সংবাদ শিরোনাম : 

 **  হবিগঞ্জ-৩ আসনটি এডভোকেট আবু জাহিরে একাট্টা আওয়ামীলীগ ॥ সুশৃংখল নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি নির্বাচনী এলাকায় করেছেন ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড **  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ॥ হবিগঞ্জ-১ আসনে রেজার প্রার্থীতা নিয়ে আলোড়ন **  হবিগঞ্জ-৩ আসনের প্রার্থীতা নিয়ে গুজবে কান না দেয়ার আহ্বান **  শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার প্রথম নির্বাহী অফিসার হলেন ফেরদৌস **  বাহুবলে ট্রাক চাপায় মাদ্রাসা ছাত্র নিহত **  শেখ হাসিনা উন্নয়নের বার্তা ঘরে ঘরে পৌছে দিতে হবে-এমপি মজিদ খান **  নবীগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের বর্ধিত সভা মুফতী সিদ্দীকুর রহমান চৌধুরীকে হবিগঞ্জ-১ আসনে ২০ দলের প্রার্থী দাবী **  বাহুবলে জামায়াত নেতা গ্রেফতার **  নবীগঞ্জের আব্দা গ্রামবাসীর সংবাদ সম্মেলন ॥ জামাত নেতা শাহিনের অত্যাচারে অতিষ্ট গ্রামবাসী **  শহরের পৌদ্দার বাড়িতে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ১০ **  নবীগঞ্জে দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন **  বিএনপি নেতার মৃত্যুতে সৈয়দ ফয়সল ও শাহজাহানের শোক **  ব্যানার ফেষ্টুন অপসারণের কাজ করছে হবিগঞ্জ পৌরসভা **  বাহুবলে হারপিক পানে মহিলার মৃত্যু **  বাহুবলে মনোমুগ্ধকর সাহিত্য আড্ডায় আলোচকগণ ॥ কাজী নজরুলকে জাতীয় কবি’র মর্যাদা দিয়ে সরকারী গেজেট প্রকাশের দাবি **  সোহেলের মোটর সাইকেলের চুরির ঘটনায় আরো ১ জন আটক **  ইনাতগঞ্জে পলাতক আসামী গ্রেফতার **  শায়েস্তাগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের চোরাই তার উদ্ধার করল পুলিশ

স্ত্রীর মামলায় সাজাপ্রাপ্ত পলাতক স্বামী আটক

আজিজুল ইসলাম সজীব ॥ হবিগঞ্জ সদর উপজেলায় স্ত্রীর দায়েরকৃত মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ৬ বছরের পলাতক আসামী স্বামী নন্দ লাল (৩০) কে সদর থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৪নং পেলে ইউনিয়নের আউশপাড়া গ্রামের রামচরনের পুত্র।
সোমবার দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সদর থানার এএসআই বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ নন্দ লালের নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে।
পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, নন্দ লাল গত ২০০৮ সালে বঙ্গ-শিবপাশা গ্রামের শৈলী লাল এর সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তার উপর শুরু হয় নির্যাতন বাবার কাছ থেকে টাকা এনে দেওয়ার জন্য। প্রথম দিকে শৈলী তার বাবার কাছ থেকে প্রায় ৮০ হাজার টাকা এনে দেয়। কিন্তু তার উপর কিছু দিন পর থেকেই আবারও টাকা এনে দিতে নির্যাতন করে নন্দ লাল। এনি কয়েকবার গ্রাম্য মোড়লদের নিয়ে বিচার নালিশ হয়। কিন্তু এতে নির্যাতনের পরিমাণ আরো বেলে যায়। পরে সে আবার অন্য এক মেয়ে প্রাণ কোম্পানীর মহিলা শ্রমিকের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে।
এ খবর পেয়ে শৈলী তার পিত্রালয়ে চলে যায়। পরে নারী-শিশু নির্যাতন দমন আইনে তার স্বামী নন্দ লাল এর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।
উক্ত মামলায় সে পলাতক ছিল। বিয়ের ২ বছরের মাথায় ২০১০ সালে শৈলী লাল আর সহ্য করতে না পেরে বাবার বাড়ি চলে যায় এবং স্বামীর উপর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করে। পরে মামলার ধারাবাহিকভাবে চলতে থাকে কিন্তু নন্দ লাল মামলার আসামি হলেও তার মনে মামলা দায়ের করলেও কোন সময় শেষ করার আগ্রহ প্রকাশ করে নি। এদিকে উক্ত মামলায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিজ্ঞ আদালতের নন্দ লাল সাক্ষ্য প্রমাণে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় আদালত নন্দ লালকে ১ বছর ৬ মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com