রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ০৯:২৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ হবিগঞ্জে ড্যান্ডি নেশায় ঝুঁকছে টোকাই শিশুরা প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর সাথে মেয়র সেলিমের শুভেচ্ছা বিনিময় নয়া জেলা প্রশাসক ইসরাত জাহানের দায়িত্ব গ্রহণ এমপি পুত্র ইফাত জামিলের আইন বিষয়ে ¯œাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন হবিগঞ্জ পৌর নির্বাচন ৭দিন আগে অনুষ্ঠিত হলেও শহরে বিরাজ করছে নির্বাচনী আমেজ! পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে আছে হবিগঞ্জ শহর ! এগুলো পরিস্কারের দায়িত্ব কার ? জন দূর্ভোগ ॥ নবীগঞ্জ-মুক্তাহার ব্রীজ বানিয়াচংয়ে প্রেমিকের ব্যবসা প্রতিষ্টানে প্রেমিকার অনশন ॥ সালিশে নিষ্পত্তির শর্তে মুরুব্বীদের জিম্মায় নবীগঞ্জে খোলা জায়গায় পশু জবাই করে বিক্রি ॥ পরিবেশ দুষিত হচ্ছেন পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। কর্তারা তাদের ম্যানেজ নবীগঞ্জে অসহায় ব্যক্তির অর্ধশতাধিক গাছ কর্তন
আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ॥ বিলুপ্তির পথে মাটির ঘর

আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন ॥ বিলুপ্তির পথে মাটির ঘর

এম এ আই সজিব ॥ সবুজ-শ্যামল ছায়াঘেরা শান্তির নীড় মাটির ঘর। বেশি দিন আগের কথা নয়, প্রতিটি গ্রামে নজরে পড়তো অনেক অনেক মাটির ঘর। যাকে গ্রামের মানুষ বলেন, গরিবের এসি ঘর। ঝড়, বৃষ্টি থেকে বাঁচার পাশাপাশি প্রচণ্ড গরম ও খুব শীতে বসবাস উপযোগী মাটির তৈরি এসব ঘর, এখন আর হবিগঞ্জে তেমন একটা নজরে পড়ে না। গ্রামের আর্থ-সামাজিক অবস্থায় পরিবর্তন এসেছে। ব্যক্তিগত উদ্যোগ, সরকারি সহায়তা মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়ে এবং কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজেদের অবস্থার উন্নতি করে গরিব পরিবারগুলো এখন তৈরি করছে ছোট-বড় আধাপাকা বাড়ি। যার নিচের অংশ ইট-সিমেন্টের তৈরি, উপরের অংশে দেওয়া হয় টিনের তৈরি ছাউনি। এক সময় হবিগঞ্জের প্রতিটি উপজেলাতেই মাটির ঘর চোখে পড়তো। মাটির ঘরকে স্থানীয়ভাবে ‘কোঠার ঘর’ বলে থাকেন অনেকেই। তবে সামান্য কয়েকটি জায়গা ছাড়া এখন আর কোথাও এ ঘর দেখা যায় না।
এখন বর্তমানে চুনারুঘাট উপজেলার সীমান্ত এলাকায় সামান্য কিছু মাটির ঘর দেখা যায়। এছাড়া বানিয়াচং উপজেলার কেন্দুয়াবহ গ্রামেও রয়েছে কয়েকটি মাটির ঘর।
ঘরের গাঁথুনি দেওয়ার সময় কারিগররা একটি স্তর (১ থেকে দেড় ফুট) মাটি দিয়ে গেঁথে ফেলেন। এ অংশ শুকিয়ে গেলে আবারো গাঁথুনি শুরু করেন। এভাবে মাটির ঘর তৈরি করে ছাদ হিসেবে বাঁশ ও তার উপরে মাটির প্রলেপ দিয়ে থাকেন। ফলে এই ঘরটিতে সবসময় ঠাণ্ডা আবহাওয়া বিরাজ করে। ঘরের ভিতর ও বাইরে আকর্ষণীয় করার জন্য গ্রামীণ আল্পনায় গৃহবধূরা কাঁদা-পানি দিয়ে লেপ দিয়ে থাকেন। অনেকে এই মাটির ঘরে সিমেন্টের লেপ দিয়ে আরো মজবুত করে তোলেন।
গত কয়েক বছর ধরে মাটির ঘর নতুন করে কেউ আর তৈরি করছেন না। ইট, বালুর সহজলভ্যতার কারণে এবং গরিব মানুষগুলোর আর্থ-সামাজিক অবস্থার পরিবর্তন হওয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে চিরায়ত বাংলার মাটির তৈরি এসব ঘর।
মাটির ঘরের কারিগর পবন দাস জানান, প্রায় ২০ বছর আগে মাটির ঘর বানানোর জন্য সময় পেতাম না। একটি ঘর বানানোর পর পরই আরোটিতে কাজে লাগতে হত। কিন্তু এখন আর এগুলো বানাই না। সবাই এখন পাকা, আধা-পাকা কিংবা টিনের ঘর বানায়। এক একটি মাটির ঘরগুলো বানাতে মাস খানেক সময় লেগে যেত। তবে এক মাসে প্রায় ৫-৭টি ঘরের কাজ করতাম।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com