মঙ্গলবার, ২৬ মে ২০২০, ১০:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা প্রতিষেধক শ্রীমঙ্গলে যুবলীগ নেতা সেলিমের উদ্যোগে সাড়ে ৫শ অসহায় মানুষের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ নবীগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামে ড. রেজা কিবরিয়ার পক্ষে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জে শেষ হয়েছে ৫দিন ব্যাপি ইয়ূথ এসোসিয়েশন অব ইউকে এর খাদ্য সহায়তা বিতরণ নবীগঞ্জে গৃহহীন দুই বীর সেনা মুক্তিযোদ্ধাকে সেনাবাহিনীর বাসস্থান উপহার আলমগীর চৌধুরীর সৌজন্যে নবীগঞ্জে ১৬৫ পরিবারকে ঈদ উপহার প্রদান নবীগঞ্জে স্বাস্থ্য বিধি অমান্য করায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা “বঙ্গবন্ধু ছাত্র একতা পরিষদ” নেতা রায়হান এর উদ্যোগে ইফতার বিতরণ এখন প্রমান করার সময় মানুষ মানুষের জন্য-মোতাচ্ছিরুল ইসলাম অনাহারী মুখ খাবার তুলে দিচ্ছেন হবিগঞ্জ ছাত্র সমন্বয় ফোরাম
জাকাত দেয়ার নামে ভন্ডামি দারিদ্রতা কেড়ে নিল ২৭ প্রাণ! ॥ শোকে স্তব্ধ করে নাড়িয়ে দিয়েছে দেশবাসীর হƒদয়কে

জাকাত দেয়ার নামে ভন্ডামি দারিদ্রতা কেড়ে নিল ২৭ প্রাণ! ॥ শোকে স্তব্ধ করে নাড়িয়ে দিয়েছে দেশবাসীর হƒদয়কে

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ ধনীর খামখেয়ালী আর গরীবের দারিদ্রতাই কেড়ে নিল ২৭ প্রাণ! ময়মনসিংহে জাকাত ট্র্যাজেডি জেলাবাসীকে শোকে স্তব্ধ করে নাড়িয়ে দিয়েছে দেশবাসীর হƒদয়কে। পবিত্র রমজানে ভোরের আলো ফুটার আগেই আধোঁ আলো অন্ধকারে এক হƒদয়বান ধনীর খামখেয়ালীপনা আর শত শত গরিবের দারিদ্রতায় পদপিষ্ট হয়ে ঝড়ে গেছে ২৭টি তাজা প্রাণ। এ দায় কার? কেন এই মৃত্যু? এসব প্রশ্ন নিহতের পরিবার, স্বজন ও স্থানীয়দের। ধনীদের খামখেয়ালীপনা এবং গরিবের দারিদ্রতাকেই এ মৃত্যুর কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন এলাকাবাসী। তাদের মতে, মালিক সচেতন হলেই অনাকাঙ্খিত এ মৃত্যুর ঘটনা ঘটত না। এ ঘটনায় কারখানার মালিকসহ ৮জনকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছে।
জানা যায়, শহরের অতুল চক্রবর্তী রোডের নূরানি জর্দা ফ্যাক্টরির মালিক মো. শামীম তালুকদার নিজ বাসা থেকেই প্রতি বছর গরিব, দুস্থ ও অসহায়দের জাকাত দিয়ে থাকেন। এবার জাকাতের কাপড় দেয়ার জন্য সপ্তাহখানেক আগে ৬শ কার্ড বিলি করেন নূরানি জর্দা ফ্যাক্টরির শামীম ও তার লোকজন। শহরের দুলদুল ক্যাম্প, বিহারি ক্যাম্প ও থানাঘাটসহ শহরের বিভিন্ন বস্তির গরিব ও দুস্থদের মাঝে এ কার্ড বিতরণ করা হয়। জাকাতের কাপড় দেয়ার দিন নির্ধারণ করেন শুক্রবার। কিন্তু জাকাত দেয়ার এ খবর ছড়িয়ে পড়তেই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর থেকেই নূরানি জর্দা ফ্যাক্টরির গেট ও সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে কয়েক শ’ দুস্থ নারী-পুরুষ অবস্থান নেয়। মুক্তাগাছা, ঈশ্বরগঞ্জ, তারাকান্দাসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে দরিদ্ররা ভিড় করে এ বাড়ির সামনে। বৃহস্পতিবার দিনগত মধ্যরাতে সেহরির পর আরো হাজারখানেক লোক জড়ো হয় এ বাড়ির সামনে। পরে হঠাৎ করেই গেট খোলার পর পেছন থেকে গেটে ঢুকার জন্য শুরু হয় ঠেলাঠেলি ও ধাক্কাধাক্কি। এতে সামনে বসে থাকা কমপক্ষে শতাধিক মানুষ পদদলিত হন। আর এতে ঘটনাস্থলেই মারা যান কমপক্ষে ১৫ থেকে ২০জন। জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী বলেন, বাড়ির মালিক শামীমের অসচেতনতাই এ ট্র্যাজেডি’র অন্যতম প্রধান কারণ। আমরা জানতে পেরেছি তিনি যদি ছোট গেটের বদলে বড় গেটটি খুলে দিতেন তবে অনাকাংখিত এ ট্র্যাজেডি ঘটতো না। তাছাড়া পুলিশ প্রশাসন বা জনপ্রতিনিধিদেরও তিনি বিষয়টি অবহিত করেননি। পুলিশ পুরো এ বিষয়গুলো খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেবে। ইতোমধ্যে এ ঘটনা তদন্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে এক সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
অপরদিকে নিহতদের স্বজনদের অভিযোগ, অতিরিক্ত ভীড় এড়াতে ভোর রাতে প্রধান ফটকে ফ্যাক্টরীর কর্মচারীরা লাঠিপেটা করে তাদের সরিয়ে দেয়োর চেষ্ঠা করে। তারা জানায়, শাড়ী দিবে ৬’শকে। অথচ শুধুমাত্র পাটগুদাম বিহারী ক্যাম্পেই কার্ড বিতরণ করেছে চারশ’র মতো। এছাড়া আকুয়া, মড়লপাড়া, দরগাপাড়া, শিকবার, থানাঘাট বস্তিসহ বিভিন্ন বস্তিতে যাকাত দেয়ার কথা বলে খবর পাঠানো হয়। ফলে তিন থেকে চার হাজার লোক সমাগম হয় সেহরির পরপরই।
ভোরে ওই বাড়ীর সামনে যাকাত নিতে আসা ও অবস্থানরত হতদরিদ্র জমিলা খাতুন, রইসা, পারুল বেগম ও রেবেকা বেগমসহ স্থানীয়দের অভিযোগ, ভীড় এড়াতে তাদের নির্দয়ভাবে লাঠিপেটা করা হয়েছে। ফলে বয়োবৃদ্ধরা দ্বিগবিদিক ছুটোছুটি করতে গিয়ে পায়ের নীচে চাপা পড়ে মারা গেছে। তারা আবেগ-আপ্লুত কণ্ঠে জানায়, জুতার মিছিল দেখলেই বুঝতে পারবেন অসহায় মানুষগুলো কিভাবে মারা গেছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ওই বাড়ীর সামনে কোথাও রক্তের থোপ অথবা কোনো লাশের গাঁয়ে কাটা-ছেঁড়ার কোনো চিহ্ন নেই। এ যেন শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে মৃত্যু সবার। আর এতগুলো মানুষের লাশ মাটিতে পড়ে থাকতে দেখে নির্বাক স্থানীয় বাসিন্দারাও।
তারা জানায়, মৃতের সংখ্যা ২৫ থেকে ৩০ জন হবে। আশপাশের অলিগলি থেকেও কয়েকটি লাশ রাস্তার উপর পড়ে থাকতে দেখেছেন তারা।
এলাকাবাসী আরো জানায়, মাত্র ৬’শ শাড়ী দিবে নুরানী জর্দ্দা ফ্যাক্টরীর মালিক। অথচ সারা শহরে প্রচার চালানো হয়েছে। এমনকি পুলিশ প্রশাসনকেও জানানো হয়নি।
এব্যাপারে ফ্যাক্টরীর মালিক শামীম তালুকদার বলেন, আমরা ৬’শর মতো যাকাতের শাড়ী বিতরণের জন্য কার্ড দিয়েছি। বাকীরা শুনে এসেছেন। কিন্তু এতো লোক সমাগম হবে তা ভাবতে পারিনি। আর আমাদের কর্মচারীরা কাউকে পিটায়নি। প্রধান ফটকে জটলা কমাতে এরা যাকাত নিতে আসাদের দূরে থাকতে বলেন।
পুলিশ সুপার মঈনুল হক জানান, যাকাতে এতো লোম সমাগম হবে অথচ পুলিশ প্রশাসনকে জানানো হয়নি। এটা ঠিক হয়নি তাদের।
এদিকে নিহতদের পরিবারে চলছে এখন শোকের মাতম। কেউ মা, কেউ স্ত্রী অথবা সন্তানকে হারিয়ে নির্বাক স্বজনরা। প্রতিটি বাড়ীতে চলছে স্বজন হারোনোদের আহাজারি।
এদিকে এ ধরণের জাকাত দেয়াকে ভন্ডামি ও লৌকিকতা বলে মনে করেন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ড. খলিলুর রহমান মাদানী। তিনি বলেন, ইসলামী বিধান মতে, নির্ধারিত ৮ ধরনের হকদারের কাছে জাকাত পৌঁছে দিতে হবে, তারা নিতে আসবে না। এভাবে জাকাত দেয়া ইসলাম বিরোধী সংস্কৃতি। এটাতে জাকাত আদায় হবে না বরং মানুষ হত্যার নামে কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত, যাতে করে কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে না পারে। এ ঘটনা ইসলাম বিরোধীদের মনে এমন ধারণা দেয় যে, একটি ধর্মীয় বিধান মানতে মানুষ মারা যায়। তাই জাকাত দেয়ার নামে এমন কার্যকলাপ নেহায়েত মূর্খতা, ভন্ডামি ও ইসলাম বিরোধী কাজ বলেই মনে করেন তিনি। ড. মাদানী আরও বলেন, জাকাত দিতে হবে এমনভাবে যাতে একজন মানুষ দারিদ্র থেকে মুক্তি পায়, প্রতিষ্ঠিত হয়। অনেক মানুষকে শাড়ি লুঙ্গি দেয়ার পরিবর্তে গাভি, ভ্যান, রিক্সা কিনে দেয়া বা এমন কিছু করা যাতে সেই মানুষকে আর কারও কাছে হাত পাততে না হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com