বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:২৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে বাচ্চা চুরির ১ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কালো দিবসের আলোচনা ॥ তারেক জিয়ার মৃত্যুদন্ড দাবি করেছেন এমপি আবু জাহির বাহুবলে প্রকাশ্য দিবালোকে চা শ্রমিকদের ॥ ভাতার ১২ লাখ টাকা ছিনতাই অভিযানে অর্ধেক টাকা উদ্ধার বানিয়াচঙ্গে হত্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান সহ ৪ আসামী বিরুদ্ধে নারাজীর আবেদনের শুনানীর তারিখ পিছিয়েছে কুলাউড়ায় ট্রাক-সিএনজি সংঘর্ষে ॥ চুনারুঘাটের ১ ব্যক্তি নিহত ॥ স্ত্রী-সন্তান আহত নবীগঞ্জে দু’দলের সংঘর্ষে আহত ৪ চুনারুঘাটে সাংবাদিক নাছিরের উপর হামলা ॥ প্রতিবাদে সভা শায়েস্তাগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে মোটরসাইকেল আটক হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বারাপইলে দুধ ব্যবসায়ীর উপর প্রতিপক্ষের হামলা ॥ নগদ টাকা ও মোবাইল লুট মাধবপুরে ২শ পিস ইয়াবা সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার
বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড এলাকায় গ্যাসের দাবী যুক্তিসংগত-প্রধানমন্ত্রী

বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড এলাকায় গ্যাসের দাবী যুক্তিসংগত-প্রধানমন্ত্রী

এটিএম সালাম/কিবরিয়া চৌধুরী/মোঃ আলমগীর মিয়া, নবীগঞ্জ থেকে ॥ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান সরকার দেশের খনিজ সম্পদের সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে দেশকে জ্বালানী সমৃদ্ধ করে তুলেছে। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের চলমান কাজ আমরা সমাপ্ত করবো, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করবো। তিনি বলেন, ২০৪১ সালের আগেই বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্বে মাথা উচু করে চলবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড এলাকায় গ্যাসের দাবী যুক্তিসংগত। তিনি বলেন, যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট এবং গ্যাস ফিল্ড রয়েছে সেসব এলাকায় গ্যাস ও বিদ্যুৎ দেয়ার দাবী যুক্তিসংগত।
তিনি গতকাল শনিবার দুপুরে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড সম্প্রসারণ এবং বিবিয়ানা ধনুয়া গ্যাস সঞ্চালন পাইপ লাইনের সরবরাহ উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে আরো বলেন, আমাদের জ্বালানীর মূল উৎস প্রাকৃতিক গ্যাস পরিবেশ বান্ধব এবং মূল্য সাশ্রয়ী। এই গ্যাস আমাদের কৃষি শিল্প ও বাণিজ্যের সম্প্রসারণ তথা অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির প্রধান শক্তি। বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড হচ্ছে আমাদের অহংকার ও গর্বের সম্পদ। দেশের জ্বালানী ও গ্যাস সংকট দূরে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। যা দেশের মোট বাণিজ্যিক জ্বালানির শতকরা ৭৩ ভাগ গ্যাস হতে মেটানো হয়। গ্যাস আমাদের বৈদেশিক মূদ্রা অর্জনে বড় ভূমিকা রাখছে। গ্যাস ফিল্ড সম্প্রসারণ ও পাইপ লাইনে গ্যাস সরবরাহের ব্যবস্থা ও পাশাপাশি আমি নবীগঞ্জের বেশ কয়েকটি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করছি।
উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডে এক সুধী সমাবেশে যোগ দেন। মত বিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন খনিজ, জ্বালানী ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। এছাড়া অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ উপদেষ্টা তৌফিক এলাহী চৌধুরী, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম চৌধুরী এমপি, হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু, শেভরন এশিয়ান প্যাসিফিক চেয়ারম্যান মায়ার মেলোডি, শেভরন বাংলাদেশের চেয়ারম্যান জেমস ষ্ট্রং, জ্বালানী খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুত সচিব আবু বকর সিদ্দিক। অনুষ্ঠানে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন হবিগঞ্জ জাতীয় ঈদগাহের খতিব মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পেট্টোবাংলার চেয়ারম্যান ইশতিয়াক আহমেদ এবং অনুষ্টান উপস্থাপনা করেন বিটিভির ইংরেজী সংবাদ পাঠিকা শামীমা রহমান।
প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, আজকের এই আনন্দঘন মুহুর্তে নবীগঞ্জবাসীকে অভিনন্দনের পাশাপাশি শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। তবে নবীগঞ্জে এসে দুইজন রাজনৈতিক নেতার কথা মনে পড়ায় আমার মন ভীষন ভারাক্রান্ত। তারা হচ্ছেন জাতির পিতার ঘনিষ্টজন মরহুম সাবেক সাংসদ দেওয়ান ফরিদগাজী ও সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া। বিশেষ করে দেওয়ান ফরিদ গাজীর কথা আমি ভুলতে পারি না। আমি সিলেটে যতবার এসেছি প্রতিটি প্রোগ্রামে ছিলেন তিনি আমার পাশে। সর্বশেষ ৯৮ সালে তার একটি জনসভা করেছিলাম ভোর বেলায়। সেই জনসভায় উল্লেখযোগ্য জনতার উপস্থিতি সেটা আজও আমার মনে পড়ছে। তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্থ বাংলাদেশ পূণর্গঠনের পাশাপাশি দেশের জ্বালানী খাতের উন্নয়নকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন। জাতির পিতা চেয়েছিলেন নিজস্ব সম্পদ আহরণে অর্থনৈতিক উন্নয়ন। এ লক্ষ অর্জনে তিনি ১৯৭৫ সালে ৯ আগষ্ট শেল ওয়েল কোম্পানীর মালিকানাধীন তিতাস, হবিগঞ্জ, কৈলাশ টিলা, রশিদপুর ও বাখরাবাদ গ্যাস ক্ষেত্রে ১ হাজার ৭শ ৮৬ কোটি টাকায় ক্রয় করেন। আজ এই ৫টি গ্যাস ক্ষেত্র থেকে মোট ৮৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন হচ্ছে, যা দৈনিক উৎপাদিত গ্যাসের ৪৩% এবং বর্তমান বাজার দরে যার আর্থিক মূল্য প্রতিদিন প্রায় ১০ কোটি টাকা। তিনি আরো বলেন, দেশের সম্পদ রক্ষায় জাতির পিতার এই যুগান্তকারী পদক্ষেপকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য প্রতি বছর ৯ আগষ্ট জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস পালন করা হয়। ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে কাজ করছে। গ্যাসের চাহিদা ও যোগানের সমন্বয় সাধনের জন্য অনুসন্ধান-উত্তোলন, সঞ্চালন এবং বিতরণের স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। আজকে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড সম্প্রসারণ এবং বিবিয়ানা-ধনুয়া গ্যাস সঞ্চালন পাইপ লাইনের গ্যাস সরবরাহ সফলতার একটি অংশ। তিনি বলেন আওয়ামীলীগ সরকার সুন্দলপুর, শ্রীকাইল ও রূপগঞ্জে গ্যাস ক্ষেত্র আবিস্কার করেছে। আবিস্কৃত গ্যাসক্ষেত্র সহ অন্যান্য উন্নয়ন কূপ এবং ওয়াক অভার কার্যক্রমের মাধ্যমে অতিরিক্ত ৭১০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উৎপাদন বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়েছে। ২০০৮ সালে দৈনিক গ্যাসের উৎপাদন ছিল ১ হাজার ৭শ ৪৪ মিলিয়ন ঘনফুট। আজ ২০১৪ সালে গ্যাসের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ২ হাজার ৪শ ৫৪ মিলিয়ন ঘনফুটে দাড়িয়েছে। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার ৭০৬ কিলোমিটার নতুন ট্রান্সমিশন লাইন স্থাপন করেছে। ইতিমধ্যে গ্যাস নেটওয়ার্ক বিভাগীয় শহর রাজশাহীতে সম্প্রসারন করা হয়েছে। হাটি কমরুল ভেরামারা পাইপ লাইনের কাজ সম্পন্ন হলে দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে গ্যাস সরবরাহ সম্প্রসারিত হবে। জাতীয় গ্যাস সঞ্চালন গ্রিডে চাপ ও পাইপ লাইন সমূহের ক্যাপাসিটি বৃদ্ধির জন্য ২০১২ সালের মার্চে হবিগঞ্জের মোচাই এবং এ বছরের জুলাই মাসে ব্রাহ্মনবাগিয়ার আশুগঞ্জে কম্প্রেসর ষ্টেশন স্থাপন করা হয়েছে। টাঙ্গাইলে আরো একটি কম্প্রেসার স্থাপনের কাজ শেষ পর্যায়ে। তিনি বলেন, বিএনপি জামাত জোট এবং তত্ত্ব¡াবধায়ক সরকার অতীতে জ্বালানি খাতের উন্নয়নে কোন কাজ করেনি। ফলে আমাদের অল্প সময়ে বিশাল চাহিদা পূরণ করতে হচ্ছে। দেশ উন্নতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। জ্বালানি চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। তিনি বলেন, আগামী ২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ এশিয়ার মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। ৪১ সালের মধ্যে এশিয়ার মধ্যে একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে।
তিনি বলেন, আমরা গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে সরকার গঠন করায় উন্নয়ন কাজে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। বার বার সরকার পরিবর্তন হলে উন্নয়ন কাজে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়। জামাত-বিএনপি জোট দেশে জঙ্গিবাদ সৃষ্টি করে অরাজকতার পায়তারা করছে। আপনারা সতর্ক থাকবেন। আওয়ামী লীগ জনতার দল, জনগণের রায় নিয়েই ক্ষমতায় থাকবে। তিনি আরো বলেন, নবীগঞ্জের বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড হতে বর্তমানে দৈনিক ৮৩০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন হচ্ছে। বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের এই সম্প্রসারন জাতীয় গ্রিডে অতিরিক্ত ৩০০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করবে। আরো ৪ হাজার ব্যারেল কনডেনসেট উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। ফলে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ড হতে দৈনিক ১ হাজার ২শ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস ও ৮ হাজার ২শ ব্যারেল কনডেনসেট উৎপাদন হবে। বিবিয়ান-ধনুয়া গ্যাস সঞ্চালন পাইপ লাইন হচ্ছে এযাবত কালের সর্বোচ্চ ব্যাস বিশিষ্ট পাইপ লাইন। তিনি বলেন, মিয়ানমার ও ভারতের সাথে সমূদ্র জয়ের ফলে গভীর সমূদ্রে আমাদের সম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে। এই সমূদ্র বিজয়কে কাজে লাগিয়ে আমরাও গভীর সমূদ্রাঞ্চলে ৯টি ব্লক ও গভীর সমূদ্রাঞ্চলে ৩ ব্লকে মোট ১২ ব্লকে অন্তর্ভূূক্ত করে গ্রিডিং রাউন্ডে কার্যক্রম শেষ করেছি। এসব এলাকায় ইতিমধ্যে দুটি বিদেশি কোম্পানী কাজ শুরু করেছে। আমরা একটি সুসংহত জ্বালানী সেক্টর ঘরে তুলতে চাই। তাই ২০০৯ সালে সরকার দায়িত্ব গ্রহনের পর বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে স্বল্প মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচি গ্রহণ করি। আমার দলের নির্বাচনী ইশতেহার মোতাবেক ১০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উন্নতি হয়েছে। ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহনের সময় ৪ হাজার ৯শ ৪২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ছিল যা বর্তমানে ১১ হাজার ৭শ ৩৫ মেগাওয়াটে উন্নতি হয়েছে।
তিনি গতকাল গ্যাস সম্প্রসারন সেন্টার উদ্বোধন ছাড়াও ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হতে বিবিয়ানা পাওয়ার প্ল্য্যান্ট সংযোগ সড়ক, নবীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ষ্টেশন উদ্বোধন করেন। এছাড়া বিবিয়ানা (দক্ষিণ) ৪০০ মেগাওয়াট কম্পাইল সাইকেল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প, বিবিয়ানা বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট, বিজনা ব্রীজ, নবীগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। এছাড়া তিনি হেলিকপ্টারযোগে সামিট বিবিয়ানা বিদ্যুৎ প্ল্যান্টের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য প্রবীন পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত এমপি, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রি মোজাম্মেল হক, সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী, সাবেক চীফ হুইপ উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি, হুইপ সাহাব উদ্দিন এমপি, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, শেভরন বাংলাদেশের সিকিউরিটি ডাইরেক্টর মেজর হাসনাইন চৌধুরী প্রমুখ।
বিবিয়ানায় দুপুর ১২টায় ৩টি হেলিকপ্টারযোগে তাঁর সফরসঙ্গীদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডের পাশে নির্মিত হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন। ১২ টা ২০ মিনিটে সুধী সমাবেশের কার্যক্রম শুরু হয়। বিকাল ২টা ১০ মিনিটে তিনি আবারও হেলিকপ্টারযোগে হবিগঞ্জের নিউফিল্ডের উদ্দেশ্যে বিবিয়ানা ত্যাগ করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com