বুধবার, ২৪ Jul ২০১৯, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে ॥ ব্যারিস্টার সুমনের বিরুদ্ধে মামলা ॥ প্রতিবাদে হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হবিগঞ্জ সিভিল সার্জনের মৃত্যু মির্জাপুর থেকে প্রেমিক জুটি আটক ॥ কারাগারে প্রেরণ ১০ ইউপি চেয়ারম্যান উপস্থিত না হওয়ায় নবীগঞ্জ উপজেলা সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়নি বার্মিংহামে হবিগঞ্জ নাগরিক সমাজের সাথে মতবিনিময়কালে এমপি আবু জাহির ॥ দেশবিরোধী চক্রান্তকারীদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহবান মাধবপুরে রাষ্ট্রদূতের বাড়িতে ডাকাতির ঘটনায় গ্রেফতার ১ নবীগঞ্জ ও বাহুবলে অসুস্থ রোগীদেরকে চিকিৎসা সহায়তা দিলেন এমপি মিলাদ গাজী চুনারুঘাটে নিখোঁজ প্রেমিক যুগল প্রেমিকের মা-সহ ৩ জন আটক নবীগঞ্জের দেবপাড়ায় নিহা ফ্যাশন উদ্বোধন করলেন এমপি মিলাদ গাজী বানিয়াচঙ্গে ২৮ মাস বেতন না পেয়ে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক
জেলা পরিষদ সদস্যকে যৌতুকের দাবীতে মারপিট করার ঘটনায় আটক শামীম কারাগারে

জেলা পরিষদ সদস্যকে যৌতুকের দাবীতে মারপিট করার ঘটনায় আটক শামীম কারাগারে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শহরের কোর্ট স্টেশন এলাকায় জেলা পরিষদের সদস্য সালেহা আক্তার (৪০) কে যৌতুকের দাবীতে মারপিট করে হত্যার চেষ্টার ঘটনায় আটক সাবেক ছাত্রলীগ নেতা শফিউল আলম চৌধুরী শামিম (৩৫) কে কারাগারে প্রেরন করা হয়েছে।
এদিকে, সালেহার শারিরিক অবস্থা আরও অবনতি হয়েছে বলে জানা গেছে। অপর দিকে শামিমের আরও অজানা কাহিনী বেরিয়ে আসছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোঃ সাহিদ মিয়া জানিয়েছেন শামিমের কাছ থেকে আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে আবেদন করা হবে। গতকাল বুধবার বিকেলে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল থেকে শামিমকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরন করা হয়।
উল্লেখ্য, শামীম শহরের নিউ মুসলিম কোয়ার্টার এলাকার বাসিন্দা ও স্নানঘাট ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম মুজিবুর রহমান চৌধুরীর বড় ছেলে।
মামলার বিবরণে ও আহত সালেহা আক্তার জানান, ১৮ সালের ৭ ডিসেম্বর ফেসবুকে পরিচয় হয় শামীম ও সালেহার। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে ভালবাসার সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে তারা কাবিন মুলে বিয়েতে আবদ্ধ হয়। শামীম কোর্ট স্টেশন এলাকায় সালেহার বাসায় ঘর জামাই হিসেবে বসবাস করে। গত সোমবার রাত ১০টায় সালেহাকে টাকার জন্য মারপিট করে রুমে আটক করে শামীম। পরিবারের লোকজন শামীমকে আটক করে থানায় খবর দিলে এসআই সাহিদ মিয়ার নেতৃত্বে একদল পুলিশ শামীমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আসার সময় সে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে সদর হাসপাতালে পুলিশ পাহাড়ায় চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
এ ব্যাপারে সদর থানায় ওসি মোঃ মাসুক আলী জানান, সালেহা বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। মামলার প্রেক্ষিতে অভিযুক্তকে আদালতে প্রেরন করা হয়েছে।
আহত সালেহা বলেন, ‘আমি এর আগের কাহিনী জানতাম না, সে এগুলো আমার কাছে গোপন করে আমার সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাকে প্রেমের ফাদে ফেলে বিয়ে করেছে। বিয়ের পর থেকে আমাকে টাকার জন্য মারপিট করে আসছে। ইতিমধ্যে আমার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা নিয়েছে। সে এর আগেও আরও ৩টি বিয়ে করেছে। তার ১ম স্ত্রী পুরান মুন্সেফী এলাকার কলি আক্তার, ২য় স্ত্রী মুসলিম কোয়ার্টার এলাকার হাঁিস আক্তার ও ৩য় স্ত্রী সুমনা আক্তার। আর ৪র্থ স্ত্রী আমি অধম নিজে। সে আমার জিবনটা তছনছ করে দিয়েছে’।
এ ঘটনা নিয়ে সর্বত্র রসালো আলোচনার ঝড় বইছে। বিষয়টি সালেহা আক্তারের সহকর্মীরা সহজ ভাবে মেনে নিতে পারছেন না। ভন্ড প্রতারক শামীমের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দাবী করছেন। অপর একটি সুত্র জানায়, শামিম শুধু সালেহাকে মারপিট করেনি, সালেহার পরিবারের লোকজনও শামিমকে মারপিট করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।
শামিমের ভাই বলেন, ‘শামিম শহরের একজন পরিচিত মুখ ছিল। এক সময় সে আওয়ামীলীগের দূর্দিনে সে কারা নির্যাতিত হয়ে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে রাজপথে ছিল। সে সাইপ্রাস ছাত্রলীগের সেক্রেটারী’র দায়িত্বও পালন করেছে। কিন্তু তার ভাগ্যের পরিহাসে ‘পচা শামুকে পা কেটে ঠিকানা হল কারাগারে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com