শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২০, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম কাজ বন্ধ করে দিলেন এলাকাবাসী বিমানে অনিয়ম ঠেকাতে ১২ পদক্ষেপ নিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী সরকারী হচ্ছে বাহুবলের বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চীন ও ভিয়েতনাম সফর শেষে দেশে ফিরেছেন এমপি আবু জাহির হবিগঞ্জে সাড়ে ৫শ দরিদ্র লোকজনের মাঝে পুলিশ সুপারের শীতবস্ত্র বিতরণ নবীগঞ্জে শীতের তীব্রতায় ব্যস্তসময় কাটাচ্ছেন ধুনকাররা নবীগঞ্জের সাংবাদিক মুন্নাকে হত্যার হুমকির প্রতিবাদে প্রেসক্লাবের নিন্দা শ্রমিক নেতা শাহজাহানের মৃত্যুতে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লাহর শোক প্রকাশ আজ জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবুর রহমান হাওলাদার হবিগঞ্জ আসছেন শায়েস্তাগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী আব্দুল আউয়ালের ইন্তেকাল
বানিয়াচঙ্গে একটি সেতুর জন্য ২০ হাজার মানুষের ভোগান্তি

বানিয়াচঙ্গে একটি সেতুর জন্য ২০ হাজার মানুষের ভোগান্তি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচংয়ে ‘চিনাই নদীর’ ব্রীজটি অনেক বছর ধরে পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে আছে। ফলে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে দুই উপজেলার প্রায় ২০ হাজার মানুষ। বারবার জন প্রতিনিধিদের দরজায় ধর্না দিয়েও কোন উপকার পাচ্ছেন না ভূক্তভোগীরা। স্থানীয় জনগণের সাথে কথা বলে জানা যায়, বানিয়াচং উপজেলার পৈলারকান্দি ইউনিয়নের কুমড়ি বাজারের পাশ দিয়ে বয়ে চলা ‘চিনাই নদীর’ উপর প্রায় শতাধিক বছরের পোড়নো ব্রীজটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ব্রীজটি সম্পূর্ণ ভাবে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে যাওয়ার পরও প্রশাসনের পক্ষে থেকে এটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয় নি। দীর্ঘ প্রায় ৫ বছর ধরে স্থানীয় জনগণ এই ব্রীজটি ব্যবহার করতে না। ফলে নদী পারাপারে তাদেরকে পোহাতে হচ্ছে সীমাহীন দূর্ভোগ। স্থানীয়রা আরো জানান, শুকনো মৌসুমে নদীর উপরে বাঁশের চট বিছিয়ে নদী পাড়াপার হচেছন সাধারণ মানুষসহ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা। শিশু-বৃদ্ধরা নদী পাড় হতে গিয়ে অনেক সময় দূর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন। অন্যদিকে, বর্ষা মৌসুমে নৌকা ছাড়া পারাপার হওয়ার আর কোন মাধ্যম নেই।
সদর উপজেলা এবং বানিয়াচং উপজেলায় ৫/৬টি গ্রামের প্রায় ১৫/২০ হাজার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা। সেই সাথে কিশোরগঞ্জ জেলার অষ্টগ্রাম উপজেলার ২/৩টি গ্রামের আরও ৫ হাজার মানুষ তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করেন।
ব্রীজটি সংস্কারের দাবি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরেই স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে ধর্ণা দিয়ে আসছেন এলাকাবাসী। অথচ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি কোন কর্ণপাত করেননি। উল্টো উপজেলা চেয়ারম্যানও স্থানীয় সাংসদের উপর দায় চাপিয়ে দেন তিনি।
এ ব্যাপারে স্থানীয় পৈলারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল রহমান খান গাঁ ছেড়ে বলেন, ব্রীজগুলো দেখা আমাদের বিষয় না। এই বিষয়টি উপজেলা চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সাংসদরা দেখবেন। আমরা ইউনিয়নের সুবিধা-অসুবিধা তাদের সামনে বিষয়গুলো তাদের কাছে উপস্থাপন করতে পারি। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট যথাযত কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এগুলো দীর্ঘ প্রকীয়াধীন আছে। ঢাকা থেকে টেন্ডার দেওয়ার অনুমতির অপেক্ষায় রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com