মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৮:১৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ফেইসবুকে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী প্রচারণা ॥ লাখাইর সাবেক কৃষি কর্মকর্তা আহসান হাবিবের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন নবীগঞ্জের চেয়ারম্যান মুকুলের বরখাস্তের আদেশ বহাল সমৃদ্ধ দেশ গড়তে যুব সমাজকে কাজে লাগাতে হবে-এমপি আবু জাহির চাঁদাবাজির মামলায় স্বাক্ষী হওয়ায় বাস শ্রমিককে হুমকির অভিযোগ দুই লন্ডনীর বিরুদ্ধে মামলা বিএনপি নেতা নাজমুল হুদা এখন স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা পইলে সৈয়দ আহমদুল হক ফুটবল টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল শুরু পাঁচপাড়িয়া গ্রামে মরহুম আরফান আলী ব্যাডমিন্টন টুর্ণামেন্ট ও আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গের হিয়ালায় জুয়া খেলার অপরাধে ৪ জনের প্রত্যেককে ১৫ দিন করে বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান নবীগঞ্জের বাউসি গ্রামে দুর্বৃত্তের হামলায় রবি পরিবার গৃহহারা হবিগঞ্জ জেলা ট্রাক ও ট্যাংকলড়ী শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে মনোনয়ন ফরম বিতরণ
‘৭১ মুক্তিযোদ্ধাদের শুরুতে শেষ এপ্রিলে জন্মস্থান বানিয়াচং ছাড়ার করুণ স্মৃতিচারণ

‘৭১ মুক্তিযোদ্ধাদের শুরুতে শেষ এপ্রিলে জন্মস্থান বানিয়াচং ছাড়ার করুণ স্মৃতিচারণ

১৯৭১ সালের ৩০ এপ্রিল রাতে হবিগঞ্জের বানিয়াচং যাত্রাপাশাস্থ জন্মস্থান বাড়ী ত্যাগ করার প্রোপট সৃষ্টি হয়েছিল ম ার্চ মাসে। স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতার গণ আন্দোলন সারা পূর্ব পাকিস্তানের রাজপথ মেটোপথ ছিল উত্তাল। তখন আন্দোলনের কর্মসূচী নেয়া হতো বিবিসি, ভয়েস অব আমেরিকার খবর পর্যালোচনার তথ্য সূত্র থেকে। তখন ছিলাম বৃন্দাবন কলেজের আইএসসি ফাইনাল পরীক্ষার্থী এবং কলেজ হোস্টেলের ২০৫ নং রুমের আবাসিক সুদর্শন ছাত্র। হোস্টেলের সুপার ছিলেন বিহারী স্যার প্রফেসর ফয়জুল্লাহ। দ্বিতল হোস্টেলের সংলগ্ন টিন কাঠের বাসভবনে স্বস্ত্রীক বসবাসের কারণে আবাসিক ছাত্রদের প্রতি ছিল কঠোর নজরদারী। পূর্ব পাকিস্থান ছাত্র ইউনিয়নের সামান্য কর্মী হিসেবে লেখা পড়ার সময় বাদে পুরোাটা সময় কাটাতে হতো আন্দোলন মিটিং মিছিলে। ৭ মার্চে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রাহমানের ভাষণের পরদিন শুনে হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগ, ন্যাপ (মু:) ন্যাপ (ভা:) ছাত্রলীগ, ছাত্র ইউনিয়ন, বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন যুগপৎ আন্দোলন মিটিং মিছিলে উত্তাল। মধ্য মার্চের একদিন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আলাওল হলের আবাসিক ছাত্র বড়ভাই আব্দুল মালেক এজাজ হল ত্যাগ করে গ্রামের বাড়ী যাবার পথে আমার খুজখবর নিয়ে যান। পরদিনই বড়ভাই ও পিতা দক্ষিণ বানিয়াচং সংগ্রাম কমিটির সভাপতি হাজী আব্দুছ ছত্তার আমাকে নিয়ে যেতে কলেজ হোস্টেলের সুপার বিহারী স্যারের অনুমতিক্রমে ব্যাগ এন্ড ব্যাগেজ সহ নিয়ে যান। বানিয়াচং গ্রামে গিয়েও দেখি মিটিং মিছিলে সরগরম। সন্ধায় বড় বাজার, গানিংগঞ্জ বাজার ও ৫/৬নং বাজার কয়েকটি নির্দিষ্ট দোকানে জড়ো হয়ে বিবিসি শোনা ছিল গণমানুষের রুটিন ওয়ার্ক। ২৭ মার্চ বিকালে স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র থেকে মেজর জিয়ার ঘোষণা বাংলা এবং ইংরেজী শুনেছি। এসময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিদ্রোহী বাঙালী সেনা ঘাটিতে নিরাপদে থেকে বিভিন্ন নির্দেশনা দি”েছন, তাহাও বলতে শোনা গেছে। ২৬ মার্চ বিবিসির খবরের পর মিটিং মিছিল থমকে যায়। এপ্রিলের প্রথম দিক থেকেই বাসের লাটির ট্রেনিং শুরু হয়। ছাত্র যুবকরাই বেশি ট্রেনিং-এ অংশগ্রহণ করে। এমনি চলতে থাকে ২০/২২ এপ্রিল পর্যন্ত। সেই সাথে কামানের গর্জন ও এম.এম.জির গুলি টের টের আওয়াজ সুষ্পষ্টভাবে শুনা যেতো। সার্বনিক বিভিন্ন গুজব আর গুজব। বিভিন্ন জায়গা থেকে জীবিত পালিয়ে আসা বাঙালী ভাইবোনদের করুন কাহিনী। এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে খবর ছড়িয়ে পড়ে সৈয়দ কায়ছার রেললাইন দিয়া মার্চ করে পাকিস্তানি আর্মি হবিগঞ্জে নিয়ে আসছে। অবশেষে ২৯ এপ্রিল দুপুরের পর আর্মিরা শায়েস্তাগঞ্জ হাইস্কুলে ক্যাম্প করে। এসময়ই আর্মিরা ডাঃ সালেহ উদ্দিন আহমেদ ও হিরু রায়কে ট্রাকসহ রাস্তায় আটক করে পরে হত্যা করে। পরদিন পাক আর্মিরা হবিগঞ্জ এসে এম.এন.এ মোস্তফা আলী ও মানিক চৌধুরীর বাসা আগুনে পুড়িয়ে দেয়। ৩০ এপ্রিল দুপুর থেকে খবর ছড়িয়ে পড়ে আলী রাজা নারিকেল ডাব নিয়ে হবিগঞ্জ গেছে আর্মিকে বানিয়াচং নিয়ে আসবে। এ আওয়াজ থেকে আতংকিত মানুষ যে যেভাবে পারছে বাড়ী থেকে পালাচ্ছে। গুজব ছড়িয়ে পড়ে রাতেই সেনাবাহিনী আসছে। এশার নামাজের পর আমার বাবা বাড়ীতে এসেই মাকে তাগিদ দিতে থাকে দু’ছেলেকে তাড়াতাড়ি খাওয়া দাওয়া শেষ করাতে। চুপিসারে বলতে থাকেন আর্মি আসছে, এক্ষুনী বাড়ী ছাড়তে হবে। তিনজন মুনিকে ডাকছেন ছাতি, হারিকেন নিয়ে আসতে। অনুমান রাত ১০টা। ঘোর অন্ধকার ঝিরঝির বৃষ্টি। ঘর থেকে বাহির মুহুর্তে বাবা মার সাথে ফিসফিস করে কি বললেন বোঝা গেল না। বাহিরে হাতে লন্ঠন সাইদুল্লার ছাতির নিচে বাবা হাজী আঃ ছাত্তার, পর মুনি ইনুছ উল্লার ছাতার নিচে গেলেন বড় ভাই আঃ মালেক এজাজ। আর আমি (মমিন) ঘর থেকে বাহির হয়ে ছবুর আলীর ছাতার নিচে। সামনে বাবা মধ্যে বড় ভাই পিছন পিছন পশ্চিমদিকে ছারাবাড়ীর মধ্য দিয়ে হাটা শুরু হয়। কাটাখালের আইল দিয়ে ঘরের খাল পার হয়ে আজমিরীগঞ্জ সড়ক ক্রস করে জমির আইলে আইলে পশ্চিমভাগ গ্রাম। বাড়ী থেকে নামার সাথেই বাবার ক্ষীণ কন্ঠে আল্লার নাম ফুপিয়ে ফুপিয়ে অশ্র“বিসর্জন। একই অবস্থা সবার মধ্যে। অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ। বাড়ী ছেড়ে কোথায় যাচ্ছি ? আর হয়তো ফিরব না? তিন মুনির কাঁধে ছালার ব্যাগ। ব্যাগে সামান্য কয়টি ব্যবহার্য্য শার্ট, প্যান্ট, লুঙ্গি, পায়জামা, গামছা। আতœীয়তা সূত্রে ফুটবল প্লেয়ার মোস্তফা মিয়ার বাড়ীতে আশ্রয় নেওয়ার সাথে সাথে ওদের মধ্যে আনন্দের বন্যা বয়ে যায়। তাৎক্ষনিক তিন মুনিকে বাড়ীতে ফিরে যেতে বলা হয়। চৌকির নিচ থেকে দুটি মোরগ ধরে রান্না। তরকারী ভাতের সুঘ্রান পেতে না পেতেই চৌকিতে এসে যায় থালাবাটি। খেয়েই ঘুমিয়ে যাই। ঘুম থেকে উঠার সাথে সাথেই রকমারি পিঠা, দুধ, মাটা পরিবেশন করা হয়। এসময় বাবা বলতে থাকেন দুসপ্তাহ পূর্ব থেকেই তোমরা দুই ভাইকে আগরতলা, খোয়াই, করিমগঞ্জ যেতে বার বার তাগিদ দিয়েছিলাম, তোমরা শুনলে না। এখন ওদিকে যাবার সুযোগ নেই। তোমরা দু ভাই এনি কাছি কামলা অষ্টগ্রামের ঘাগড়াকোনা গ্রামে ওদের বাড়ীতে চলে যাও। নিরাপদ জায়গা, আর্মি কখনো যেতে পারবে না। আমি বাড়ীর শেষ খবর নিয়ে বিকালের দিকে ওখানে দেখা হবে। দু ভাই ছালার ব্যাগ কাঁধে নিয়ে ওদের বাড়ী ছেড়ে উত্তরদিকের আজমিরীগঞ্জের গোপাট ধরে পশ্চিমমুখী বড়ভাইয়ের পিছন অনুসরণ করে কিছুক্ষণ হাঁটলাম। হঠাৎ উল্টোদিকে দৌড়। বড়ভাই চিৎকার করে বানিয়াচং যেতে নিষেধ করছেন। কার কথা কে শুনে? বাড়ীতে হাজির। মা জড়িয়ে কি কান্না। সাথে ৭ বছর বয়সী ছোট বোন রোকসানা বেগম লাভলীর অঝোরে কান্না। বাড়ী ছাড়া আকুতি মিনতি মা বোনের। এসময় ঘর থেকে একটি রামদা বের করে দরজার পাশে এসে দেখাতে থাকি আর্মিরা এলে কিভাবে দরজা খুলে দেব। দু একটাকে কুপিয়ে মেরে নিজে মরে যাব ॥ তবুও বাড়ী ছেড়ে যাব না। পূনশ্চঃ মাতৃভূমি জন্মস্থানের সম্পদ মা বোন ফেলে অনিশ্চিত গন্তব্যে গিয়ে জান বাঁচানোর মর্মবেদনা অনেকেই সইতে পারে না।
লেখক ঃ ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক, সাবেক জনপ্রতিনিধি, ’৭১ এর ভাটি অঞ্চলের দুর্ধর্ষ গেরিলা বাহিনীর কমান্ডার শহীদ জগৎজ্যোতি দাস বীর উত্তম এর দাসপার্টির সম্মুখ সমরে অলৌকিকভাবে বেঁচে থাকা গাজী বীর মুক্তিযোদ্ধা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com