বুধবার, ১৭ Jul ২০১৯, ১১:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে ১৯ মাদক মামলার আসামী আকবর কারাগারে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অফিসে পিস্তল টেকিয়ে মোটর সাইকেল ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলা আদালতেও নিরাপত্তা জোরদার নবীগঞ্জে বন্যাাশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত বন্ধ ঘোষণা, ত্রাণ বিতরণ বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে নবীগঞ্জে আসছেন দুই মন্ত্রী ক্যান্সার আক্রান্তদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তার চেক বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির পৌর কর্মকর্তাদের অবস্থানের কারণে নাগরিক সেবা বন্ধ নবীগঞ্জে ছাত্রদল নেতা রায়েছ চৌধুরীরমুক্তির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল নবীগঞ্জে খালিক মঞ্জিলের স্বত্ত্বাধিকারীবেলাল চৌধুরীকে বিদায় সংবর্ধনা বানিয়াচং থেকে চোরাই মোটরসাইকেল সহ যুবক আটক
মোস্তাকের মুক্তিদাবি করেছেন এলাকাবাসী ॥ বানিয়াচঙ্গে প্রভাবশালী ১ সাবেক চেয়ারম্যানের রোষানলে শিকার সমাজকর্মী মোস্তাক

মোস্তাকের মুক্তিদাবি করেছেন এলাকাবাসী ॥ বানিয়াচঙ্গে প্রভাবশালী ১ সাবেক চেয়ারম্যানের রোষানলে শিকার সমাজকর্মী মোস্তাক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচঙ্গ থানা পুলিশের হাতে জামায়াতের অর্থের যোগানদাতা ও জঙ্গি সন্দেহে সাড়াষি অভিযানে গ্রেফতারকৃত মোস্তাক আহমেদ জঙ্গি নয়, একজন নিঃস্বার্থ সমাজকর্মী। সমাজের প্রতিটি শ্রেণীর মানুষের কাছে মুস্তাক একজন আদর্শ ও ন্যায় পরায়ণ ব্যক্তিত্ব। নেই যার কোন রাজনৈতিক পরিচয়। জড়িত নয় কোন সংগঠনের সাথেও। তবুও সাড়াষি অভিযানে গ্রেফতার হয় মোস্তাক। তবে এলাকার লোকজনের ধারণা একজন প্রভাবশালী সাবেক চেয়ারম্যানের ব্যক্তি স্বার্থের রোষানল, ষড়যন্ত্র ও প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন তিনি”।
সরেজমিনে বানিয়াচং উপজেলার তকবাজখানী গ্রাম ও আদর্শ বাজারের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বহু মানুষ এ প্রতিবেদকের সাথে আলাপকালে এমন দাবী করেন। জানা যায়, দেশ ব্যাপী সাঁড়াশী অভিযানের অংশ হিসেবে গত ১৫ জুন বুধবার বানিয়াচং উপজেলার তকবাজখানী গ্রামের মনোয়ার আহমেদের পুত্র মোস্তাক আহমেদকে আটক করে থানা পুলিশ। পরে মোস্তাক আহমেদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলা দায়ের করেন বানিয়াচং থানার এস আই ফিরোজ আহমেদ। মামলা দায়েরের পর আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। মামলায় উল্লেখ করা হয়, ১৫ জুন বুধবার রাত ১২.৪০ মিনিটে বানিয়াচং উপজেলার রঘু চৌধূরী পাড়াস্থ পরিত্যাক্ত ব্র্যাক স্কুল ঘরে মোস্তাকসহ কতিপয় ব্যক্তি নাশকতার উদ্দেশ্যে একত্রিত হলে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে ৬টি ককটেল ও পেট্রোলবোমাসহ গ্রেফতার করে। কিন্তু এলাকাবাসী বলছেন ভিন্ন কথা। আদর্শ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও তোফাজ্জুল গার্মেন্টেস এর স্বত্ত্বাধিকারী মোঃ জিতু মিয়া জানান, ওই দিন ইফতারের পর আমার দোকানে বসে মোস্তাককে নিয়ে গল্প করছিলাম। এমন সময় হঠাৎ পুলিশ এসে মোস্তাককে ধরে নিয়ে যায়। তখন মোস্তাকের কাছে ককটেল, পেট্রোলবোমা কিংবা কোন জিহাদী বই পায়নি পুলিশ”। অথচ পুলিশ মামলায় উল্লেখ করেছে, ওই দিন মধ্যরাতে মোস্তাককে উপজেলার রঘু চৌধুরী পাড়া ব্র্যাক স্কুলের মধ্য থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং তার কাছে ককটেল ও পেট্রোলবোমা পাওয়া গেছে। যা একেবারেই সাজানো নাটক”। এ ব্যাপারে কথিত ব্র্যাক স্কুল ঘরের পার্শ্ববর্তী পাতির খারকানার নৈশপ্রহরী আব্দুল বাছিরের কাছে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “প্রতিদিনের ন্যায় ১৫ জুন বুধবারও আমি সারারাত ওই এলাকায় পাহারারত অবস্থায় ছিলাম। ওই রাতে ব্র্যাক স্কুল ঘর থেকে মোস্তাক কি অন্য কোন ব্যক্তিকে পুলিশ ককটেল বা পেট্রোলবোমসহ গ্রেফতার করতে দেখিনি বা কোন পুলিশকে ওই এলাকায় আসতে দেখিনি। এ ব্যাপারে রঘু চৌধুরী পাড়া ব্্র্যাক স্কুলের বাড়ির মালিক আসমা খানম জানান, ওই দিন রাতে আমার বাড়ি থেকে পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি। এদিকে, আদর্শ বাজার, মাতাপুর ও তকবাজখানি মহল্লার বিশিষ্ট মুরুব্বি সাথে আলাপচারিতায় জানায়, “মোস্তাককে ভালো মানুষ হিসেবেই জানি। সে কোন রাষ্ট্র বিরোধী কাজের সাথে জড়িত আছে বলে আমাদের জানা নেই”। তারা আরও বলেন, “মোস্তাক গ্রেফতারের পর বানিয়াচং থানার ওসি অমূল্য কুমার চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেছেন- দেশ ব্যাপী সাঁড়াশী অভিযানের অংশ হিসেবে জঙ্গি সন্দেহে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারের সময় তার কাছে কিছু জিহাদী বই পাওয়া গেছে। যা ১৬ জুন বৃহস্পতিবার স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু থানা পুলিশের এস আই ফিরোজ আহমেদ মামলায় উল্লেখ করেছে, মোস্তাকের কাছে ককটেল ও পেট্রোলবোমা পাওয়া গেছে। এদিকে, ওই এলাকার জনসাধারণ অতি দ্রুত মোস্তাকের মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় আন্দোলনেরও হুশিয়ারি দেন তারা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com