রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
শচীন্দ্র কলেজের নামকরন নিয়ে ভুল বুঝাবুঝির অবসান ॥ নাম পরিবর্তনের বিষয়টি আদৌ সত্য নয়-মজিদ খান নামকরণের বিষয়টি ২০০৪ সনেই সমাধান হয়েছে-নিখিল ভট্টাচার্য্য আমার প্রতিষ্ঠিত কলেজে আমি শান্তি চাই-শচীন্দ্র সরকার

শচীন্দ্র কলেজের নামকরন নিয়ে ভুল বুঝাবুঝির অবসান ॥ নাম পরিবর্তনের বিষয়টি আদৌ সত্য নয়-মজিদ খান নামকরণের বিষয়টি ২০০৪ সনেই সমাধান হয়েছে-নিখিল ভট্টাচার্য্য আমার প্রতিষ্ঠিত কলেজে আমি শান্তি চাই-শচীন্দ্র সরকার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শচীন্দ্র ডিগ্রী কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি এডঃ আব্দুল মজিদ খান এমপি, শচীন্দ্র কলেজের নাম পরিবর্তনের অভিযোগটি আমাকে মর্মাহত করেছে। তিনি বলেন, নাম পরিবর্তনের বিষয়টি আদৌ সত্য নয়। এ ধরনের হীন প্রচেষ্টা আমি কিংবা গভর্নিং বডির কোন সদস্যের মধ্যে নেই। বরং শচীন্দ্র কলেজের নামকরণের বিষয়টি যাতে ভবিষ্যতে কোন স্বার্থান্বেষী মহল কোন প্রকার হীন চরিতার্থ না করতে পারে সে বিষয়টির স্থায়ী সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছি মাত্র।
শচীন্দ্র ডিগ্রী কলেজ গভর্নিং বডির উদ্যোগে গতকাল হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।
লিখিত বক্তব্য সাংবাদিকদের নিকট সরবরাহ করে বক্তব্য শুরুর করার পর কলেজের প্রতিষ্টাতা শচীন্দ্র লাল সরকার ও গভর্নিং বডির সদস্য সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর নিখিল চন্দ্র ভট্টাচার্য্য সংবাদ সম্মেলন স্থলে উপস্থিত হলে এমপি আব্দুল মজিদ খান লিখিত বক্তব্যটি আর পাঠ করেন নি। এ সময় অন্যান্যের উপস্থিত ছিলেন গভর্নিং বডির সদস্য শরীফ উল্লাহ, মোঃ সজীব আলী, এডঃ সুদীপ কান্তি বিশ্বাস, এডঃ ত্রিলোক কান্তি চৌধুরী বিজন, আবদাল হোসেন তরফদার।
লিখিত বক্তব্যে আরো উল্লেখ করা হয়, ১৯৯৮ সনে প্রতিষ্টার পর কলেজটির সুনাম উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমি কলেজ প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে বিভিন্ন সময়ে পরিচালনা পরিষদে জড়িত ছিলাম। সাবেক অর্থমন্ত্র মরহুম শাহ এ এম এস কিবরিয়া এর প্রচেষ্টায় কলেজটি এমপিও ভূক্ত হয়েছে। ২০০৪ সনের ২৮ মে অডিট আপত্তির বিষয়টি অবগত হবার পর ভবিষ্যত জঠিলতা নিরসনে বিষয়টি এজেন্ডাভূক্ত করে গভর্ণিং বডির গত ২৫ অক্টোবরের সভায় শচীন্দ্র লাল সরকারের সাথে ব্যক্তিগতভাবে যোগাযোগ করে বিষয়টি সমাধানের জন্য কমিটির সদস্য অধ্যাপক নিখিল ভট্টাচার্য্য ও এডঃ সুদীপ কান্তি বিশ্বাসকে দায়িত্ব দেয়া হয়।
কলেজের পুকুর লীজ বিসয়ে তিনি বলেন, কলেজের আর্থিক উন্নয়নের জন্য শচীন্দ্র লাল সরকারের সভাপতিত্বে পুকুর লীজের ব্যাপারে ৭ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। উক্ত কমিটি ২০০০ সালে মাসুক মিয়া ও পরবর্তীতে মধু মিয়াকে বড়শি প্রতিযোগিতার মাধ্যমে মাছ ধরার শর্ত সাপেক্ষে পুকুর লীজ দেয়া হয়।পুকুর লীজ বা মাছ ধরার বিষয়ে তিনি (মজিদ খান) ও শরীফ উল্লাহর কোন সংশ্লিষ্টতা ছিল না। তবে ২০১৩ সন থেকে পুকুর লীজ বন্ধ রয়েছে। সাবেক অধ্যক্ষকে অবসর ভাতা বাবৎ ১৬ লাখ টাকা চেক প্রদানের বিষয় সম্পর্কে তিনি বলেন, শিক্ষক কর্মচারীরা অবসরে গেলে তাদের অবসর সুবিধা প্রাপ্তির চেক ব্যক্তিগত নামে ইস্যু করা হয়। এতে প্রতিষ্টানের কোন প্রকার সংশ্লিষ্টতা থাকে না। তিনি বলেন, ২০০৯ সালে এমপি নির্বাচিত হবার পর শচীন্দ্র কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতির দায়িত্ব গ্রহন করার পর ডিগ্রী পর্যায়ে এমপিও ভূক্তিকরণ, অনার্স কোর্স চালু, বিএসসি, বি.বি.এস কোর্স চালু প্রক্রিয়াধিন, ১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে একাডেমীক ভবন নির্মানাধিন, শিক্ষক কর্মচারীর শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান, যাত্রী ছাউনী নির্মাণ, প্রতিষ্ঠাতার ভাস্কর্য নির্মাণসহ কলেজ উন্নয়নে সক্রিয় সহযোগিতা করে যাচ্ছি।
এদিকে সাংবাদিক সম্মেলনে কলেজ গভর্নিং বডির সদস্য প্রফেসর নিখিল ভট্টাচার্য্য বলেন, কলেজ নামকরণ বিষয় নিয়ে একটি ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল। বিষয়টি নিয়ে কলেজ প্রতিষ্টাতা শচীন্দ্র লাল সরকারের সাথে আলোচনা করে তা সমাধান হয়েছে। তিনি জানান, কলেজ নামকরণের বিষয়টি ২০০৪ সনেই সমাধান হয়েছে। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষের নিকট কোন প্রকার ডকুমেন্ট না থাকায় অডিট রিপোর্টের ভিত্তিতে বিষয়টি সমাধানের জন্য সভায় এজেন্ডাভুক্ত করা হয়। এ জন্যই ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়। কাগজপত্র সঠিকবাবে সংরক্ষণ না করা এটা আমাদের কমিটির ও কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতা। এ জন্য তিনি তার বন্ধু শচীন্দ্র লাল সরকারের নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, কোন কারণে মনোমালিন্য সৃষ্টি হলে বাহিরে তা বড় আকার ধারণ করে। এ জন্য তিনি কোন বিষয়ে ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হলে তা আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
সাংবাদিক সম্মেলনে শচীন্দ্র লাল সরকার বলেন, ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল। তা সমাধান হয়েছে। তিনি বলেন, আমার প্রতিষ্ঠিত কলেজে আমি শান্তি চাই।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com