শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৪:২৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রসঙ্গ নিম্বর টাওয়ার ॥ ৫০ লাখ টাকা ঘুষ দাবি! নবীগঞ্জের ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা আবিদ আলী বরখাস্ত হবিগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার ॥ স্বাস্থ্যবিধি পালনে প্রশাসন কঠোর বাংলাদেশি-আমেরিকান দুই ভাই তীর্থ ও তন্ময়ের সাফল্য খোশ আমদেদ মাহে রমজান ॥ আজ ২৫ রমজান লোকড়ায় অর্থ সহায়তা বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির বানিয়াচংয়ের ঐতিহ্যবাহী ঠাকুরানী দিঘী রক্ষায় এলাকাবাসীর অভিযোগ ॥ ড্রেজার মেশিন জব্দ খালেদা জিয়ার সুস্থতা কামনায় জেলা যুবদলের দোয়া ও ইফতার মাহফিল বানিয়াচংয়ে অভ্যন্তরীণ বোরে ধান সংগ্রহের উদ্বোধন রিচি গ্রামে ট্রাক্টরের চাপায় স্কুল ছাত্র নিহত শায়েস্তাগঞ্জ নতুন ব্রীজে বাস উল্টে ১৫ জন যাত্রী আহত
বাহুবলে চার শিশু হত্যা অভিযোগপত্র গ্রহণের

বাহুবলে চার শিশু হত্যা অভিযোগপত্র গ্রহণের

শুনানী হয়নিপাবেল খান চৌধুরী ॥ বাহুবলে আলোচিত চার শিশু হত্যা মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণের শুনানী হয়নি। কারাগারে আটক এক আসামী নিজেকে অপ্রাপ্ত বয়স্ক দাবি করে। ফলে অভিযোগপত্র গ্রহণের বিষয়ে শুনানী হয়নি। একই সাথে ৭ দিনের মধ্যে পুলিশ সুপারের মাধ্যমে তার ডাক্তারি পরীক্ষা করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও কারাগারে থাকা ৫জন আসামীর জামিন আবেদনও নামঞ্জুর করা হয়েছে।
গতকাল সোমবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের জেলা জজ কিরণ শংকর হালদার এ আদেশ দেন। ২৮ জুন মামলার পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবুল হাসেম মোল্লা মাসুম জানান, মামলার অন্যতম আসামী রুবেল মিয়া নিজেকে অপ্রাপ্ত বয়স্ক দাবি করায় চার্জশিট গ্রহণের বিষয়ে শুনানী হয়নি। তার ডাক্তারি পরীক্ষা করে আগামী ৭ দিনের মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার জন্য আদালত নির্দেশ দিয়েছেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, সোমবার নির্ধারিত তারিখে আদালতে হাজির করা হয় কারাগারে থাকা আসামী আব্দুল আলী ওরফে বাগাল, তার ছেলে রুবেল মিয়া ও জুয়েল মিয়া, হাবিবুর রহমান আরজু এবং সাহেদ আলী ওরফে সায়েদকে। এ সময় তাদের পক্ষে আইনজীবীরা জামিন আবেদন করেন। শুনানী শেষে বিচারক জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন। এছাড়া পরবর্তী তারিখ পর্যন্ত উক্ত মামলায় জামিনে থাকা সালেহ আহমদ ও তার ভাই বশির আহমদের জামিন বর্ধিত করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, বাহুবল উপজেলার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের জাকারিয়া আহমেদ শুভ (৮), তার চাচাতো ভাই মনির মিয়া (৭), তাজেল মিয়া (১০) ও ইসমাইল হোসেন (১০) গত ১২ ফেব্র“য়ারী গ্রামের পার্শ্ববর্তী মাঠে খেলা দেখতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। ৫ দিন পর ১৭ ফেব্র“য়ারী বাড়ির অদূরে একটি বালুর ছড়া থেকে মাটি চাপা দেয়া অবস্থায় তাদের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হৃদয়বিদারক এ ঘটনাটি দেশ-বিদেশে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। উক্ত ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার তদন্তভার দেয়া হয় ডিবি পুলিশের তৎকালিন ওসি মুকতাদির হোসেন রিপনকে। তিনি ৪৮ দিন তদন্ত শেষে ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট জমা দেন। এতে অভিযুক্ত করা হয়- পঞ্চায়েত সর্দার আব্দুল আলী বাগাল, তার ছেলে জুয়েল মিয়া ও রুবেল মিয়া, ভাতিজা সাহেদ আলী ওরফে সায়েদ, অন্যতম সহযোগি হাবিবুর রহমান আরজু, উস্তার মিয়া, বেলাল মিয়া ও বাবুল মিয়াকে। এছাড়া সিএনজি অটোরিকশা চালক বাচ্চু মিয়া র‌্যাবের সাথে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় এবং ঘটনার সাথে সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় গ্রেফতারকৃত সালেহ আহমেদ ও বশির আহমেদকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। অভিযুক্তদের মাঝে এখনও পর্যন্ত পলাতক রয়েছে উস্তার মিয়া, বেলাল মিয়া ও বাবুল মিয়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com