সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০২:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত শ্রীমঙ্গলে করোনায় স্বর্ণ ব্যবসায়ীর মৃত্যু ॥ পরিবারে আরো ৩জন আক্রান্ত চুনারুঘাটে খোয়াই নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের মেশিন ও পাইপ ধ্বংস মাধবপুর পৌর কাউন্সিলর বাবুল হোসেনের পিতা’র ইন্তেকাল নবীগঞ্জে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের যৌথ অভিযান হবিগঞ্জ কারাগারে বন্দি দ্বিগুন ॥ করোনার ভয় শায়েস্তাগঞ্জে স্ত্রী মামলায় সতীনসহ স্বামী আটক বাহুবলে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধার ॥ ২ জন গ্রেফতার
হবিগঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে ॥ আজমিরীগঞ্জের মিসবাহ ভূইয়া ও নুরুল হক ভূইয়ার যুদ্ধাপরাধের তথ্য উপস্থাপন করলেন মুক্তিযোদ্ধারা

হবিগঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে ॥ আজমিরীগঞ্জের মিসবাহ ভূইয়া ও নুরুল হক ভূইয়ার যুদ্ধাপরাধের তথ্য উপস্থাপন করলেন মুক্তিযোদ্ধারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আজমিরীগঞ্জে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মিজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া ও তার ভাই ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল হক ভূঁইয়ার যুদ্ধাপরাধের তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করেছেন ৫ মুক্তিযোদ্ধা। সোমবার দুপুরে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি জানান। এ সময় তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের শক্তি হয়েও অত্যন্ত সুকৌশলে অর্থনৈতিকসহ বিভিন্ন প্রভাব খাটিয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তির দলের বড় পদ বাগিয়ে নিয়েছেন নূরুল হক ভূইয়া ও তার ভাই মিজবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া। একাধিকবার তিনি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে ভরাডুবি উপহার দিয়েছেন। যুদ্ধাপরাধি হওয়ার কারণে তাকে মানুষ গ্রহণ করেনি। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তাদের লোটপাট, হত্যা, অগ্নিসংযোগের ঘটনা নিয়ে কথা বলার সাহস কারও নেই। কেউ কথা বললেই তাকে বিভিন্ন মামলা মোকদ্দমা দিয়ে ঘায়েল করা হয়। এখন মুক্তিযোদ্ধারা তাদের এ অপকর্ম নিয়ে কথা বলায় তাদের বিরুদ্ধেও মামলা মোকদ্দমা ঠুকে দিয়েছেন অভিযুক্ত দুই ভাই। মুক্তিযুদ্ধকালীন তাদের অপকর্মের বিষয়ে ইতিমধ্যে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের তদন্ত সংস্থার কাছে অভিযোগ দিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধারা। তারা এসব ঘটনার তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য আজমিরীগঞ্জ উপজেলার সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা তৈয়বুর রহমান খান বাচ্চু বলেন, একাত্তরে হত্যা, লুন্ঠন ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ এনে গত ২৩ আগস্ট ঢাকার ট্রাইব্যুনালে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিসবাহ উদ্দিন ভূইয়া, তার ভাই ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক ভূইয়া, আলী রেজা ও সিদ্দিক আলীর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ অভিযোগ দায়ের করেন মুক্তিযোদ্ধারা। এরপর থেকেই নিজেকে বাচাতে মিসবাহ ভূইয়াব মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার, মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যক্তিগত চরিত্র হনন করে আসছেন। তিনি বলেন- ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু আজমিরীগঞ্জে লঞ্চ যোগে প্রচারণায় এসেছিলেন সে সময় মিজবাহ উদ্দিন ভুইয়া ও তার ভাই নূরুল হক ভূইয়া আজমিরীগঞ্জে বঙ্গবন্ধু লঞ্চ ঘাটে ভিড়াতে বাধা প্রদান করে। পরে বঙ্গবন্ধু লঞ্চ থেকে ভাষন প্রদান করেন এবং জনতা ও নৌকা মাঝি তার ছেলের সহযোগিতায় মাজার জিয়ারত করে আজমিরীগঞ্জ ত্যাগ করেন। লঞ্চে মহামান্য রাষ্ট”পতি আব্দুল হামিদ মহোদয় সফর সঙ্গী ছিলেন। যাহা এলাকার প”বীনগণ অবগত রয়েছেন। এছাড়াও ৭১ এ পাকহানাদার বাহিনীকে চলাচলের জন্য তারা। তাদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধে বিরোধীতা, লুটপাট, চোরা চালানসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। তিনি আরো বলেন- গত ৫ সেপ্টেম্বর মিজবাহ উদ্দিন ভূইয়া সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন তিনি ১৯৭০ সালে নবম শ্রেণীতে থাকাকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন। এটি একটি মিথ্যা তথ্য। সেই সময় আমি সেই স্কুলের একই ক্লাসের ছাত্র ছিলাম। আমার সাথে ছিলেন মঞ্জু কান্দি রায়, গোলাম মোস্তাফা, তফসির মিয়া, আজিজুর রহমান, হাবিবুর রহমান, খালেদুজ্জামান, মাসুদুর রহমান আনসারী, ফেরদৌস মিয়া, জামাল মিয়া, মিজবাউর রহমান আনসারীসহ আরও অনেকে। কোন সহপাঠী বন্ধু যদি বলে মিজবাউদ্দিন ভূইয়া ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিল তাহলে জনতার আদালতে আমার বিচার হবে। তিনি বলেন-মিজবাহ উদ্দিন ভূইয়া ও তার ভাই নূরুল হক ভূইয়া ১৯৯৬ সালে জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ নৌকা মার্কার বিপক্ষে এড. ফজলুর রহমানের পক্ষে প্রচারনা করেছেন এবং এড. ফজলুর রহমানকে নগদ ১০ লাখ টাকা, শরিফপুর নামক একটি লঞ্চ ও দিদার নামক ১০ টি নৌকা দিয়ে সহায়তা করেছেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সুরঞ্জিত সেন গুপ্তের কাকাইলছেও বাজারের মিটিংয়ে বাধা প্রদান করেছেন। বাধ্য হয়ে সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত বিএনপি নেতা মহিবুর সওদাগরের মার্কেটে ভাষাসৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ফজলুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দিনের সঞ্চালনায় মিটিং করেছিলেন। মিজবাউদ্দিন ভূইয়া আজমিরীগঞ্জের নৌকার মাঝি কিন্তু বিগত ৪টি উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের টিকিট নিয়ে জনগণের মেন্ডেড নিতে পারেননি। আর এখন তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ উপেক্ষা করে বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীদেরকে আওয়ামী লীগের ভাইটাল পদে পদায়ন করছেন। ১৯৬৯ সালে মিজবাউদ্দিন ভূইয়া গণঅভ্যুত্থানের সক্রিয় কর্মী ছিলেন দাবি করেছেন। এটিও মিথ্যা কথা। এখানে উল্লেখ্য যে, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের সময় আমি বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দিন, আনন্দপুরের নজরুল ইসলামসহ যারা আইয়ুব খানের ছবি ভাংচুর করেছিল সেই সব ছাত্রদের কয়েকজনকে নুরুল হক ভূইয়া ও মিজবাউদ্দিন ভূইয়া শারীরিক শাস্তি দিয়েছিলেন। ১৯৭০ সালে এমএনএ প্রার্থী কর্নেল (অবঃ) আব্দুর রব ও এমপিএ প্রার্থী গোপাল কৃষ্ণ মহারত্নের পক্ষে নির্বাচনে কাজ করেছেন বলে দাবি করেছেন মিজবাউদ্দিন ভূইয়া। যাহা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। এ সময় নির্বাচনী প্রচারের জন্য তিনিসহ মমিন খান, মুতাব্বির হোসেন একটি নৌকা প্রতীক কাকাইলছেও বাজারে লাগাইতে গেলে নুরুল হক ভূইয়া আমাদের গুলি করার হুমকি দিয়েছিলেন। তারা দুই ভাই রফিক আহমদের পক্ষে নির্বাচন করেছেন। ১৯৭০ সালে জাতীয় নির্বাচনী প্রচারে বঙ্গবন্ধু আজমিরীগঞ্জ এসেছিলেন। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে নুরুল হক ভূইয়া মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বাধিক সহযোগীতা করেছেন বলে মিজবাউদ্দিন দাবী করেছেন। আমাদের কথা খুব ষ্পষ্ট, যে মুক্তিযুদ্ধে যায় নাই, যারা রাজাকার লালন করেছে, পাক বাহিনীর সহযোগী হয়ে কাজ করেছে, লুটপাট নিয়ে ব্যস্ত ছিল, পিচ কমিটির সদস্য ছিল তারা কিভাবে দাবি করে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষ শক্তি। যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে নুরুল হক ভূইয়া ও মিজবাউদ্দিন ভূইয়ার মালীকানাধীন শরীফপুর ও আজমিরীগঞ্জ নামক দুইটি লঞ্চে পাকিস্তানের পতাকা লাগিয়ে ও টিক্কা-ইয়াহিয়ার ছবিতে মালা পড়িয়ে দাপটের সাথে লাল কার্ড নিয়ে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
১৯৭১ এর ১০ ডিসেম্বর মেঘনা রিভার ফোর্স কমান্ডার ফজলুর রহমান চৌধুরী ও দাশ পাটির” সেকেন্ড ইন কমান্ড ইলিয়াছ চৌধুরী কর্তৃক আটককৃত নুরুল হক ভূইয়াকে রমনী চৌধুরী বাড়িতে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে লুন্টিত মালামাল, কিছু অস্ত্র, আলী রেজা গংয়ের সহযোগীতায় শাহানাগরের লুটতরাজ ও হরিলাল দাসের বাড়িতে অগ্নি সংযোগসহ অনেক বিষয় স্বীকার করেন। আলী রেজাকে ১১ তারিখ সকালে হবিগঞ্জ মহকুমা কারাগারে প্রেরণ করি।
এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে বক্তৃতা করেন হবিগঞ্জ জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডের সাবেক কমান্ডার মুন্সী আব্দুর রহমান জুয়েল। তিনি তার বক্তৃব্যে বলেন-১৯৭১ সালে নূরুল হক ভূইয়া গং মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দিন মিজবাহ উদ্দিন ভূইয়া গংদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উপস্থান করেন। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন-দিশেহারা মিজবাহ উদ্দিন ভূইয়া গং একেক সময়ে একেক ধরণের বক্তব্য দিচ্ছেন। তারা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের ভূল বুঝিয়ে মামলা চলাকালীন অবস্থায় মিথ্যা তথ্য প্রচার করছেন। আমরা মুক্তিযোদ্ধারা বলেছি- ১৯৭১ সালে প্রকাশ্য দিবালোকে যুদ্ধপরাধ মামলার আসামী নূরুল হক ভূইয়া, তার ভাই মিজবাহ উদ্দিন ভূইয়া, আলী রেজা, সিদ্দিক আলী বিথঙ্গল গ্রামের আদম আলী, ওয়াহাব মিয়া, লন সরকার, আরাদন সরকার ও প্রমোদ রায় এই পাঁচজনকে গুলি করে খুন করেছে, লুটতরাজ করেছে, অগ্নিসংযোগ করে বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে।
এসময় ওয়াহাব মিয়া খুন হলেও এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় তার ভাই মধু মিয়া বর্তমানে কারাগারে আছে। তবে সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দীন বলেন, ১৯৭১ সালে মধূ মিয়ার বয়স ছিল ৯/১০ বছর।
সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিটের সাবেক কমান্ডার আব্দুর রহিম জুয়েল, দাস পার্টির সেকেন্ড ইন কমান্ড ইলিয়াছ চৌধুরী, বীরমুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ, বীরমুক্তিযোদ্ধা মর্তুজ আলী, আক্কেল আলী, বীরমুক্তিযোদ্ধা রমজান আলী, হরেকৃষ্ণ দাস, সুনীল দাস, মনি লাল দাস, পিতাম্বর দাস, নিখিল দাস, রাখেশ সরকার, হেমেন্দ্র মাস্টার, দিলীপ চৌধুরী, রজনী, ছোবহান মিয়াসহ ৩৫জন মুক্তিযোদ্ধা, তাদের সন্তান ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com