সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৩:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
প্রেমিকার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করায় তেঘরিয়ার খোকনকে গলা টিপে হত্যা ॥ প্রেমিকা ও তার বন্ধু ও বান্ধবী গ্রেফতার হবিগঞ্জ জেলাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান খোশ আমদেদ মাহে রমজান সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে এমপি আবু জাহির ॥ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ না করে রাস্তায় বের হওয়া মানেই জীবনের ঝুঁকি ব্রি ৮৮ জাতের নতুন ধান আগাম কাটতে পেরে বেজায় খুশি কৃষক হবিগঞ্জে স্বাস্থ্য-বিধি লঙ্ঘনের করায় ৪০ জনকে জরিমানা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে সুতাং বাজারের পুরাতন ব্রীজের রাড বিক্রির অভিযোগ ॥ ট্রাক বোঝাই রড আটক বানিয়াচংয়ে ব্র্যাক সিড এর ধান কর্তন সহায়তা কর্মসূচি ল্যাবএইড হাসপাতালে ৮ কেজি ওজনের টিউমার অপসারণ সংবাদ সম্মেলন দাবী ॥ গ্রাম্য মাতব্বরদের ইন্ধনে বানিয়াচংয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী আহত
শায়েস্তাগঞ্জে জিএস ব্রাদার্স সিএনজি ফিলিং স্টেশন অংশীদার গাজীউর রহমানের বিরুদ্ধে অপর দু’অংশীদারের এন্তার অভিযোগ

শায়েস্তাগঞ্জে জিএস ব্রাদার্স সিএনজি ফিলিং স্টেশন অংশীদার গাজীউর রহমানের বিরুদ্ধে অপর দু’অংশীদারের এন্তার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শায়েস্তাগঞ্জে জিএস ব্রাদার্স সিএনজি ফিলিং স্টেশনের অংশীদার লন্ডন প্রবাসী আবুল কালাম ও সামছুল ইসলাম গতকাল সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন। হবিগঞ্জ শহরের আশরাফ জাহান কমপ্লেক্সের ফুড ভিলেজ রেস্টুরেন্টে মতবিনিময়কালে লন্ডন প্রবাসী আবুল কালাম ও সামছুল ইসলাম জিএস ব্রাদার্স সিএনজি ফিলিং স্টেশনের অপর অংশীদার গাজিউর রহমান এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরেন।
আবুল কালাম ও সামছুল ইসলাম বলেন, গাজীউর রহমান লন্ডনে তাদের সাথে একসাথে লেখাপড়া করেছেন। লন্ডনে আমাদের বড় ব্যবসা থাকায় গাজীউর রহমান আমাদেরকে অনুরোধ করে দেশে বিনিয়োগ করার জন্য। আমরা কোন টাকা কামানোর জন্য নয় বরং দেশে আসার জন্য এখানে বিনিয়োগ করি। কিন্তু গাজীউর রহমান আমাদের সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাদের নাম বাদ দিয়ে ফিলিং স্টেশনের জমি তাদের নামে ক্রয় করে এবং যৌথ ব্যবসার টাকা দিয়ে নিজেদের ব্যবহারের জন্য বিলাশবহুল গাড়ী ক্রয় করে। গাড়ীর চালক এবং বাসার কাজের লোকের বেতনও প্রদান করা হয় ফিলিং স্টেশন থেকে। চুক্তি অনুসারে প্রতি বছর অংশীদারদের মধ্যে লাভ-ক্ষতির হিসাব বন্টন করার কথা থাকলেও ১০ বছর যাবৎ গাজীউর রহমান গং আমাদেরকে কোন লাভের টাকা বুঝিয়ে দেয় নি। এ নিয়ে আমাদের মাঝে বিরোধ সৃষ্টি হয়। পরে এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও লন্ডনে বসবাসরত নেতৃবৃন্দের সাথে যোগাযোগ করেও আমাদের এই বিরোধ নিস্পত্তি হয়নি। পরবর্তীতে আমরা বাধ্য হয়ে দেশে এসে হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি এডভোকেট মো. আবু জাহির এর স্মরণাপন্ন হই। তিনি যথেষ্ট আন্তরিকতার সাথে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে তাঁর ঢাকাস্থ এমপি হোস্টেল বাসভবনে ২০১৮ সালের ১২ মার্চ শালিস বৈঠক আহবান করেন। আমাদের হিসাব অনুযায়ী গাজীউর রহমান গংদের কাছে ব্যবসায়িক লভ্যাংশের ৪ কোটি টাকা পাওনা হয়। কিন্তু গাজীউর রহমানের দেয়া হিসাব মতে এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আমাদের লভ্যাংশ পাওনা হয় ১ কোটি ২০ লাখ টাকা। সালিশ বৈঠকের সভাপতি এমপি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির আমাদের অনেক বুঝিয়ে শুনিয়ে আমাদের লভ্যাংশের পাওনা হিসাবে ১ কোটি ২০ লাখ টাকা নেয়ার অনুরোধ করলে আমরা অনেক ভেবে-চিন্তে সালিশ বৈঠকের সভাপতির সিদ্ধান্ত মেনে নেই। এ ব্যাপারে একটি আপোষনামাও সম্পাদিত হয়। এই রায় অনুসারে গাজীউর রহমান বিভিন্ন তারিখে ভিন্ন ভিন্ন চেকে এমপি আবু জাহির এর নিকট ৫০ লাখ টাকা জমা করেন এবং পরিবারের বিভিন্ন জনের নামে ৭০ লাখ টাকার চেক প্রদান করে। গাজীউর রহমান এর দেয়া চেকের সময় অতিবাহিত হয়ে যাওয়ার সম্ভবান সৃষ্টি হলে আমরা এমপি আবু জাহিরকে বার বার তাগিদ দিলে তিনি গাজীউর রহমানকে টাকা পরিশোধ করার জন্য বার বার বলেন। কিন্তু সে টালবাহনা শুরু করলে এবং চেকগুলোর মেয়াদ শেষ হয়ে আসলে সেগুলো নগদায়নের জন্য ব্যাংকে জমা দেয়া হয়। কিন্তু ব্যাংক কর্তৃপক্ষ টাকা না দিয়ে চেক ফেরৎ দিলে আমাদের অনুরোধে বাধ্য হয়ে এমপি আবু জাহির মামলার ব্যবস্থা করেন। তারা আরও বলেন, আমাদের পাওনা ১ কোটি ২০ লাখ টাকা না দেয়ার হনি উদ্দেশ্যে সালিশ বিচারের সভাপতি এমপি আবু জাহির ও তার পরিবারের লোকজন এবং আমাদের বিরুদ্ধে ঢাকার যুগ্ম-জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মিথ্যা দেওয়ানী মামলা দায়ের করে। এছাড়া গাজীউর রহমান গং কৌশলে আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ ব্যবসার সমুদয় টাকা থেকে আমাদের বঞ্চিত করার হীন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। লন্ডনে ব্যবসা রেখে এই কয়দিন দেশে থাকায় আমাদের ২০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এই দুর্বলতার বিষয়টি সে জানে বলেই আমাদেরকে ক্ষতিগ্রস্থ করার চেষ্টা করছে। তারা আরও বলেন, ইতিপূর্বে আমরা হাই কমিশনের মাধ্যমে আমাদের টাকা পাবপাার জন্য আবেদন করেছিলাম। যা বিভিন্ন দপ্তর তদন্ত করছে। ইদানিং আমরা দেশে এসে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করছি। এ জন্য দেশে এসেও নিজ বাড়ি যেতে পারিনি। তবে এর আগে আমরা কোন দপ্তরে আবেদন দেইনি। আমরা আইনী লড়াই করব। আর কোন কম্প্রোমাইজ মানিনা। আমরা আর সালিশের নির্ধারিত টাকা মানি না। আমাদের প্রাপ্য ৪ কোটি টাকা আদায়ের জন্য লড়াই করব। তারা বলেন, গাজিউর শালিসের নামে ৩ মাসের সময় নিয়ে দুই বছর সময় কাটিয়ে দিয়েছে। এই সময়ে আমাদের আরও প্রায় দেড় কোটি টাকা পাওনা হয়েছে। কোম্পানীর বেতনের টাকা প্রতিমাসেই সে অতিরিক্ত ১ লাখ টাকা গ্রহণ করাসহ নিজের ভোগ বিলাসে ব্যবহার করেছে। সে অধিক মুনাফার জন্য সিএজি ফিলিং স্টেশনের মিটার টেম্পারিং করে ৫৮ লাখ টাকা জরিমানা প্রদান করেছে। তারা বলেন, শুধুমাত্র আমাদের চাপে এমপি আবু জাহির সালিশ করে আজ মামলা আসামী। বিষয়টি সকলকে অবহিত করতে হবিগঞ্জে এসেছি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com