রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০২:০৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আজ পবিত্র শব-ই-কদর নয় সহশ্রাধিক মানুষের মাঝে সরকারি সহায়তা বিতরণে এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জে জাহির হত্যার মামলা ॥ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে আসামীদের গোপন বৈঠক ‘হৃদ্যতা হবিগঞ্জ’র দরিদ্রদের মাঝে অর্থ সহায়তা বিতরণ শহরের শায়েস্তানগরে তুচ্ছ ঘটনায় যুবককে ছুরিকাঘাত নবীগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পদক উজ্জ্বল সরদারকে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা উপ কমিটির সদস্য মনোনীত নবীগঞ্জের বিশিষ্ট মুরুব্বী ওয়াহিদ চৌধুরী আর নেই সুশীল সমাজ, এতিম ও শিক্ষার্থীদের সম্মানে নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আজমিরীগঞ্জে ছুরিকাঘাতে নাড়ি-ভুড়ি বের হয়ে গেছে নবীগঞ্জে নুরানী মার্কেটে মহিলা ক্রেতাকে মারধোর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ ॥ এলাকায় উত্তেজনা
হবিগঞ্জের একমাত্র মহিলা চেয়ারম্যান শামসুন্নাহার ‘কোন চাওয়া-পাওয়া নাই, হারাবারও কিছু নাই’

হবিগঞ্জের একমাত্র মহিলা চেয়ারম্যান শামসুন্নাহার ‘কোন চাওয়া-পাওয়া নাই, হারাবারও কিছু নাই’

নুরুল আমিন, চুনারুঘাট থেকে ॥ ‘যিনি রাঁধেন তিনি চুলও বাঁধেন- গ্রামের এ প্রবাদটির সাথে অক্ষরে অক্ষরে যার পরিচয় তিনি শামসুন্নাহার। উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ দেওরগাছ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তিনি। গত নির্বাচনেও বাঘা বাঘা প্রার্থীদের পেছনে রেখে ছিনিয়ে এনেছিলেন বিজয়ের মালা। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীকে বিপুল ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে ২য় বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তিনি আওয়ামীলীগের টিকিটে। এর আগে মিরাশি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন চৌধুরী শামসুন্নাহার। এক কথায় শামসুন্নাহার মানেই মমতাময়ী এক চেয়ারম্যান। সেই চেয়ারম্যানের রয়েছে করুন কিছু ইতিহাস। ১৯৮৭ সাল। তার স্বামী মিরাশি ইউপি’র জনপ্রিয় চেয়ারম্যান চুনু চৌধুরীকে একদল বিপদগামী কুলাঙ্গার রাতের আঁধারে হত্যা করলে তিনি স্বামীর অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার কাজে হাত দেন। তার কাজ দেখে এলাকার মানুষ হুমড়ি খেয়ে পড়েন। পরের বছরই তিনি নির্বাচিত হয়ে অভিভাবকহীন মিরাশি ইউপি‘র হাল ধরেন শক্ত হাতে। ফাঁকে জীবনের তাগিদে পুনরায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন সেই সময়কার আপোষহীন ছাত্র নেতা, আজকের উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহেরের সাথে। এরপর তিনি মিরাশি ইউনিয়ন থেকে চলে আসেন চুনারুঘাট পৌর সভায় স্বামীর বাসায়। ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান বানে’-এমন অবস্থায় এখানেও পেয়ে বসে তাকে। স্বামী আবু তাহের দেওরগাছ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানীর হাল শামসুন্নাহারের উপর ছেড়ে দিয়ে পৌর নির্বাচনের দিকে মনোনিবেশ করেন আর বেচারী শামসুন্নাহার দেওরগাছ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করার ঘোষনা দেন।…আর পেছনে ফিরে থাকাতে হয়নি তাকে। টানা ২য় বারের মতো চুনারুঘাট পৌরসভা লাগোয়া দেওরগাছ ইউনিয়ন পরিষদের সফল চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তিনি। দেশে প্রথম দলীয় প্রতিকে নির্বাচন অনুষ্টানের ঘোষনা আসার পর তিনি আওয়ামীলীগের টিকিটে নির্বাচন করার ঘোষনা দেন। সবার কাছে গ্রহণযোগ্যতা থাকায় সহজেই দল তাকে টিকিট প্রদান করে। ৪জুন অনুষ্টিত নির্বাচনে তিনি ধানের শীষ-এর প্রার্থীকে পরাজিত করে পুনরায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি ভোট পান ৬ হাজার ১৫১টি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি আবু নাঈম হালিম (ধানের শীষ) পান ৪ হাজার ৪০২ ভোট। দুই পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানের জননী শামসুন্নাহার বলেন, জীবনে কোন চাওয়া পাওয়া নাই। হারাবারও কিছু নাই। একটাই চাওয়া-জনগণের মাঝে ছিলাম, আছি এবং থাকতে চাই জীবনের শেষ দিনটি পর্যন্ত। চলতি নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হওয়ায় তিনি ইউনিয়নের সর্বস্তরের জনগণকে শুভেচ্ছা জানান এবং শারীরিক সুস্থতার জন্য দোয়া চান।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com