শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
জেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ আলেয়া-জাহির নকআউট ক্রিকেট টুর্ণামেন্টের পুরস্কার বিতরণ বাংলাদেশ পুলিশ পদক পেলেন এসপি ছাইদুল হাসান শামীম সদর উপজেলা চেয়ারম্যান পদে মহিবুল ইসলাম শাহীনের প্রার্থীতা ঘোষণা মক্রমপুর ইউনিয়ন ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের পক্ষ থেকে হত-দরিদ্র ১৮ শিক্ষার্থীকে বিদ্যালয়ে ভর্তি শচীন্দ্র কলেজে মহান ভাষা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন হবিগঞ্জ শহরে বিদ্যুতের ভেলকীবাজিতে নাভিশ্বাস শায়েস্তাগঞ্জে পুলিশের অভিযান চোরই মালামালসহ আটক ৩ ইরানে আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় প্রথম হবিগঞ্জের হাফেজ বশীর আহমেদ মাধবপুরে বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ ॥ আহত ১৮

প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ ॥ শায়েস্তাগঞ্জে উপকার করতে গিয়ে প্রবাসী ভাইসহ মামলার আসামি হলেন নারী মেম্বার লাকি

  • আপডেট টাইম সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ১২ বা পড়া হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পিতা-মা ও আত্মীয় স্বজনের অনুরোধে কুহিনুর ইসলাম নামে যুবককে শায়েস্তাগঞ্জ ইউনিয়নের ১, ২ ও ৩নং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের নারী সদস্য পশ্চিম চরহামুয়া গ্রামের বাসিন্দা লাকি আক্তার ফ্রান্সে থাকা তার ভাইয়ের মাধ্যমে পাঠিয়েছিলেন রোমানিয়ায়। বৈধভাবে এবং কোনো প্রকার অগ্রিম টাকা পয়সা ছাড়াই ওই যুবককে রোমানিয়া পাঠালেও উল্টো তাকে ও তার ভাইসহ ৫ জনকে মিথ্রা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন লাকি আক্তার। এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করে তিনি গতকাল রবিবার সন্ধ্যা ৬টায় হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি হিসেবে উন্নয়ন মূলক কাজ করার পাশাপাশি ইউনিয়নবাসীর সুখে দুঃখে তিনি সর্বদা তাদের পাশে থাকেন। তার অধিকাংশ আত্মীয় স্বজনই ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করে দেশের অর্থনীতিতে অগ্রণী ভূমিকা রাখছেন।
এ খবর জানতে পেরে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম বড়চর বর্তমানে নিজগাঁও গ্রামের বাসিন্দা মৃত আব্দুল্লাহ ওরফে কালু মিয়ার পুত্র মোঃ আহম্মদ মিয়া তার পরিবারের লোকজন নিয়ে লাকি আক্তারের কাছে গিয়ে তার ছেলে কুহিনুর ইসলামকে ইউরোপের ভিসা পাইয়ে দেয়ার অনুরোধ করেন। এসব কাজ ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় তিনি প্রথমে রাজি না হলেও কুহিনুরের বাবা আহম্মদ মিয়া, মা ও ভাইসহ অন্যান্যদের অনুরোধের পরে অবশেষে রাজি হন। কুহিনুরের বাবা তখন প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও উপস্থিত খরচের জন্য ২০ হাজার টাকা দিয়ে যান। কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পর হঠাৎ একদিন এসে তার ছেলেকে অন্য লোক মারফত পাঠাবেন বলে ২০ হাজার টাকা ও তার কাগজপত্র ফেরত নিয়া যান আহাম্মদ মিয়া। পরে লাকি আক্তার জানতে পারেন আহাম্মদ মিয়া তার ছেলেকে দুবাই পাঠিয়েছেন। ৩-৪ মাস কুহিনুর দুবাই থাকার পর অজ্ঞাত কারণে দেশে ফিরে এলে তার স্বজনরা পুনরায় লাকি আক্তারের কাছে গিয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মর্মে কান্নাকাটি করতে থাকে এবং ইউরোপের ভালো ভিসা পাইয়ে দেয়ার জন্য অনুনয় বিনয় করে। এক পর্যায়ে বাধ্য হয়েই তিনি ফ্রান্সে অবস্থানরত তার ভাই আব্দুল মতিনের সাথে কথা বলে কুহিনুরকে রোমানিয়ায় ওয়ার্কপারমিটের ভিসার ব্যবস্থা করে দেন।
লাকি আক্তার তার বক্তব্যে বলেন, রোমানিয়া যেতে ৮ লক্ষ টাকা খরচ হবে কুহিনুরের স্বজনদের জানালে তারা জানায়, রোমানিয়া যাওয়ার পর সমুদয় টাকা প্রদান করবে এবং সেখানে কুহিনুর বেশিদিন থাকবে না, অন্যদেশে চলে যাবে। তবে তাদের দায়িত্ব রোমানিয়া পর্যন্ত পৌঁছানোর। তখন তাদের কথামতো লাকি আক্তার তার ভাইকে রাজি করান এবং নির্ধারিত তারিখে কুহিনুর রোমানিয়া গমন করে। ফ্রান্স থেকে লাকি আক্তারের ভাই রোমানিয়া এসে ১ লক্ষ টাকা খরচ করে কুহিনুরের ১ মাসের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করে পুনরায় তিনি তার কর্মস্থলে চলে যান।
পরে লাকি আক্তার রোমানিয়া পৌছানো বাবদ পাওনা টাকা কুহিনুরের পিতা ও স্বজনদের নিকট চাইলে তারা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে সময় চায়। তাদের মাঝে পাওনা টাকা নিয়ে দেনদরবার চলতে থাকার এক পর্যায়ে কুহিনুরের পিতা আহম্মদ জানান, তার ছেলে রোমানিয়া থকে অন্য এক দালালের মাধ্যমে অন্যদেশে যাবার চেষ্টা করলে ধরা পড়ে এবং তাকে দেশে ফেরত পাঠিয়ে দেয়া হচ্ছে। এ জন্য তাদেরকে আরও সময় দিতে হবে। কিন্তু হঠাৎ করে লাকি আক্তার জানতে পারেন কুহিনুরের পিতা আহম্মদ মিয়া বাদি হয়ে গত ৭ ফেব্রুয়ারি লাকি আক্তার, তার ভাই আব্দুল মতিনসহ ৫ জনকে আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করেছে। যা তদন্তের জন্য হবিগঞ্জ পিবিআইকে প্রেরণ করেছেন আদালত। এতে করে তিনি মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন।
তিনি আরও জানান, তাদের দুঃখে দুঃখী হয়ে আমি তাদের উপকার করেছি। অথচ তারাই এখন পাওনা টাকা না দিতে আমি ও আমার প্রবাসী ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। আমি এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি। পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2013-2021 HabiganjExpress.Com
Design and Development BY ThemesBazar.Com