রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগস্ট মাস আসলেই মনে দাগ কাটে-মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পইলে ৭৭টি গরু কুরবানী বাড়িয়ে দিল ঈদের আনন্দ নবীগঞ্জ অপহরণের ৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী মাধবপুরে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত এরশাদ আলী গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে ছেলে ধরা সন্দেহে এক ডাকাতকে গণধোলাই হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ বনাম জেলা খেলোয়ার কল্যাণ সমিতির মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্ট কাশ্মিরী মুসলমানদের অধিকার অবিলম্বে ফিরিয়ে দিন ॥ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ জ্যোতির্বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. দীপেন ভট্টাচার্য্যরে ॥ বক্তৃতা শুনে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহ বেড়েছে হবিগঞ্জের শিক্ষার্থীদের ধুলিয়াখাল-মাহমুদপুর বাইপাস সড়ক টমটম চুরির অভিযোগে যুবক আটক হবিগঞ্জে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির রক্তদান কর্মসূচী ও শোক সভা
পটুয়াখালী বিদ্যুৎ কেন্দ্রে নিহত শাবন্ডের পরিবার দিশেহারা

পটুয়াখালী বিদ্যুৎ কেন্দ্রে নিহত শাবন্ডের পরিবার দিশেহারা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার পৌরসভার জয়নগরের ছোট একটি দরিদ্র পরিবারে সন্তান শাবেন্ড দাস। একটু স্বঞ্চলতা ও বেশি টাকা আয় করতে গিয়ে পটুয়াখালীর পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে লাশ হয়ে ফিরতে হলো তাকে। তাপ বিদ্যু কেন্দ্রর ৬ তলা থেকে পড়ে মৃত্যু হয় তার। সেই সঙ্গে এক দরিদ্র চা বিক্রতা পিতার বাবা ও দুই কন্যা সন্তানের ‘সোনালী স্বপ্নের সমাধি ঘটে গেলো চিরতরে।
গত মঙ্গলবার পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের টাওয়ারে পাইপ ফিটিংসের কাজ করার সময় নিরাপত্তা বেল্ট ছিড়েঁ নিচে পড়ে মারা যায় শাবেন্ড দাশ (২৮)। পরে শাবেন্ডের লাশ উদ্ধার করে কলাপাতা থানায় রাখা হয়। পরর্বতীতে বুধবার পটুয়াখালীর সদর হাসপাতালে লাশের ময়না তদন্ত শেষে রাত দুই টায় নবীগঞ্জ জয়নগরস্থ পৌর শশ্মান ঘাটে লাশের সৎকার করা হয়। শাবেন্ডের পরিবার সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ পৌর শহরের জয়নগর পূর্ব পাড়ার দরিদ্র চা বিক্রেতার নগেন্দ্র দাশের ছেলে শাবেন্ড দাশ পাইপ ফিডার হিসাবে কাজ করতো। এলাকায় তেমন কাজ-কর্ম না গত মাসের ১৮ তারিখ মামা গোপাল দাস তাকে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে কাজে নিয়ে যায়। তার বাবার প্রত্যাশা ছিল, ছেলে সেখানে ভাল কাজ করে সংসারের অভাব দূর করবে। কিন্তু তাপ বিদ্যৎ কেন্দ্রে সেই স্বপ্ন আর প্রত্যাশার সমাধি ঘটেছে।
শাবেন্ডর কাকাতো ভাই অনন্তর দাস জানায় মঙ্গলবার বিকাল ২.৩০ মিনিটে তার ভাই কবিন্ড দাশ ও অন্তর দাশ কাজের ফাঁকে ভাইয়ের খোঁজ নিতে গিয়ে তার কাজের জায়গা না পেয়ে ফোন করলে ফোন বন্ধ পায়। পরে জানতে পারে তার ভাই কাজ করতে গিয়ে বেল্ট ছিড়ে নীচে পরে তাৎক্ষণিকভাবে মারা যায়। সাথে সাথে তার নীচে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে। তখন লাশ চায়না কতৃপক্ষ ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তাদের হস্তক্ষেপে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্ত শেষে বাড়ীতে নিয়ে আসে। উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার বিকালে নির্মাণাধীন পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের বয়লার থেকে পড়ে বাংলাদেশি শ্রমিক শাবিস চন্দ্র দাস মারা যান। এ ঘটনার জের ধরে বিকালে বাংলাদেশি শ্রমিক এবং চীনা শ্রমিকদের মাঝে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে বাংলাদেশি ১০ জন এবং চায়নিজ ৬ শ্রমিক আহত হন। এদিকে শাবেন্ডর বাড়ীতে গিয়ে দেখা যায় তার বাবা-মা, স্ত্রী-সন্তান ও পরিবারের সদস্যদের আর্তনাদে বাড়ীতে হৃদয়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। রাতে ভিড় কিছুটা কমলেও গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল থেকে আবার বাড়ীতে শত-শত নারী-পুরুষ ভিড় করতে থাকেন। এদিকে ভাইয়ের মৃত্যুতে তার ছোট ভাই কবিন্ড দাশ (২৩) গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় নবীগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যপারে শোকাহত তার স্ত্রী শুক্লা দাস ও পিতা নগেন্দ্র দাশ বলেন শাবেন্ডর সুস্মিতা ও উস্মিতা নামে তার দুই কন্যা সন্তান আছে। রেখে যাওয়া কন্যা সন্তানকে কিভাবে তারা মানুষ করবেন এই চিন্তায় তারা বারবার মুছ্যা যাচ্ছিল। পরিবারের অন্যতম উপার্জন কর্ম ব্যক্তি ছিল সে। তাকে হারিয়ে তারা বাকরুদ্ধ কোন কথা বলতে পারছিল না। এদিকে লাশ নিয়ে আসা শাবেন্ডর মামা গোপাল দাস বলেন, চায়না কতৃপক্ষ লাশ নিয়ে আসা সময় একটি সাদা কাগজে শাবেন্ডর পরিবারকে ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছে বলে জানান। স্থানীয় অনেকেই বলছেন, শাবেন্ড এক দিকে যেমন ছিলেন বিনয়ী অন্যদিকে খুবই ভদ্র। সকলেই তাকে খুব ভালোবাসতেন, তার মৃত্যুর সংবাদে এখন এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com