শনিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের দিনারপুরে পাহাড়ের পাদদেশে বিদেশী ফল ড্রাগন চাষ এ কেমন শক্রতা ॥ নবীগঞ্জে বিষ ঢেলে লক্ষ লক্ষ টাকার মাছ নিধন বৃন্দাবন এলামনাই এসোসিয়েশন ইউকে এর সাধারণ সভা ও নৈশভোজ জমির আলীর বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের নিকট দেয়া অভিযোগের তদন্ত শুরু নবীগঞ্জ উপজেলার ৮নং সদর ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি গঠন নবীগঞ্জের দীঘলবাক ইউনিয়ন গণফোরামের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত আশ্বিনের মাঝামাঝি সময়ে এসে শীতের বার্তা এলো শিশিরে হবিগঞ্জে জাগ্রত তরুন সংগঠনের নিয়মিত পাঠচক্র উদ্বোধন কোর্ট মসজিদের সামন থেকে চোরাই মোটর সাইকেল উদ্ধার শ্রীমঙ্গলের ক্ষতিগ্রস্থ দেবালয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদের আর্থিক অনুদান
নবীগঞ্জে গুদামে চাল সরবরাহ নিয়ে শুরু হয়েছে চালবাজি ॥ অন্য জেলা থেকে চাল এনে গুদামে দিচ্ছে মিলাররা

নবীগঞ্জে গুদামে চাল সরবরাহ নিয়ে শুরু হয়েছে চালবাজি ॥ অন্য জেলা থেকে চাল এনে গুদামে দিচ্ছে মিলাররা

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ খাদ্য গুদামে চাল সরবরাহ করা হচ্ছে অন্য জেলা থেকে। অথচ নবীগঞ্জের কৃষকরা ধান বিক্রির জন্য ক্রেতা পাচ্ছেন না। খোজ নিয়ে জানা যায়, নবীগঞ্জ সরকারি খাদ্য গুদামে সরবরাহের জন্য চাল আনা হচ্ছে আশুগঞ্জ এবং ময়মনসিংহ থেকে। অথচ স্থানীয় ভাবে উৎপাদিত সিদ্ধ চাল গুদামে সরবরাহ করার জন্য ৩জন মিলারকে দায়িত্ব দেয়া হয়। মিল ৩টি হচ্ছে চৌধুরী অটো রাইছ মিল, টেকাদিঘী অটো রাইছ মিল ও শ্রী কৃষ্ণ প্রভাসিনী অটো রাইছ মিল। ওই ৩ মিলে উৎপাদিত ১১’শ মেঃটন সিদ্ধ চাল গুদামে সরবরাহ করার কথা। কিন্তু তা না করে করা হচ্ছে চালবাজি। তাদের মিলে চাল উৎপাদন করলে স্থনীয় কৃষকদের ধান বিক্রির সুযোগ সৃষ্টি হতো। কিন্তু ওই মিলারগণ অধিক মুনাফার আশায় খাদ্য সংশ্লিষ্টদের ম্যানেজ করে আশুগঞ্জ এবং ময়মনসিংহের বিভিন্ন মিলে উৎপাদিত চাল ক্রয় করে এনে নবীগঞ্জের সরকারী গুদামে সরবরাহ করছেন।
খোজঁ নিয়ে জানা গেছে, উল্লেখিত ৩টি অটো রাইছ মিলে সর্বোচ্চ চাল উৎপাদিত হয়েছে প্রায় ৬০ মেঃ টন। অথচ ইতিমধ্যে তাদের মিলের নামে সরকারী গুদামে চাল সরবরাহ করা হয়েছে প্রায় সাড়ে ৬’শ মেঃ টন। এরমধ্যে চৌধুরী অটো রাইছ মিল চাল দিয়েছে প্রায় ২’শ টন, টেকাদিঘী অটো রাইছ মিল দিয়েছে ১৫০ টন এবং শ্রী কৃষ্ণ সুভাসিনী অটো রাইছ দিয়েছে প্রায় ৩’শ মেঃ টন সিদ্ধ চাল। আরো জানা যায়, সরবরাহকৃত চালের মধ্যে চৌধুরী অটো রাইছ মিলের নিজস্ব উৎপাদিত চাল হবে প্রায় ১৫ মেঃ টন, শ্রী কৃষ্ণ সুভাসিনী অটো মিলের হবে প্রায় ২৫ মেঃ টন এবং টেকাদিঘীর উৎপাদিত চাল হবে প্রায় ২০ মেঃ টন। ৩মিল মিলে ৬০ চাল উৎপাদন হলেও সরকারী খাদ্য গোদামে উক্ত ৩ মিলের নামে ইতিমধ্যে চাল দিয়েছে প্রায় সাড়ে ৬’শ টন চাল। এতে ক্ষুব্ধ সুবিধা বঞ্চিত স্থানীয় কৃষকরা। অথচ প্রাপ্ত বরাদ্দের ১১’শ টন চাল উল্লেখিত ৩ মিলে উৎপাদন করলে নবীগঞ্জের কৃষকদের ধানও ওই পরিমান বিক্রি হতো। কিন্তু তারা তা না করে অধিক মুনাফার লোভে খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও গোদাম কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে নবীগঞ্জের বাহিরে থেকে চাল সংগ্রহ করে গোদামে সরবরাহ করছেন। কৃষকরা এ ঘটনার তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com