বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে ছোট্ট ছোঁয়া দাফন সম্পন্ন ॥ পরিবারে চলছে শোকের মাতম প্রধানমন্ত্রী অবহেলিত মানুষের কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিচ্ছেন-ডাঃ মুশফিক চৌধুরী নবীগঞ্জে বিভিন্ন স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায় বাহুবলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ডাকাতি ॥ আটক ১ বারাপৈলের জয়নাল মিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় প্রতিবাদ সমাবেশ নবীগঞ্জে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বিএনপি নেতা আব্দুল হাই বহিষ্কার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে মোতাচ্ছিরুল ইসলামের মতবিনিময় দক্ষিণ তেঘরিয়া থেকে এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার চান্দপুর ও মির্জাপুরে মাদক ও দাঙ্গা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক সভা বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস হবিগঞ্জ জেলা শাখার প্রশিক্ষণ বৈঠক অনুষ্ঠিত
নবীগঞ্জে গুদামে ধান ক্রয়ে কৃষকের তালিকা তৈরীতে অনিয়মের অভিযোগ

নবীগঞ্জে গুদামে ধান ক্রয়ে কৃষকের তালিকা তৈরীতে অনিয়মের অভিযোগ

ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জ উপজেলায় সরকার কর্তৃক সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ও চাল ক্রয়ে চলছে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি। উপজেলা খাদ্য অধিদপ্তর ও কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের ঠেলাঠেলিতে হচ্ছে এ অনিয়ম। দায়ভার এড়িয়ে একে অপরের প্রতি দোষ চাপিয়ে দিচ্ছেন। আবার দেখা গেছে অনেক গ্রামকে তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। একই পরিবারের ৫জন থেকে ৭ জনকে কৃষক হিসাবে দেখানো হয়েছে। চেয়ারম্যান মেম্বার এর আত্মীয় স্বজনই বেশী রয়েছেন তালিকায়। কৃষি পেশায় নেই এমন ব্যক্তিদের তালিকা ভরপুর করা হয়েছে। তালিকায় রয়েছে প্রবাসীদের নামও। পেশায় কৃষক না হলেও কৃষক সেজে উৎকোচ দিচ্ছেন খাদ্য কর্মকর্তাকে। এনিয়ে কৃষকের তালিকা নিয়ে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে উপজেলার সর্বত্র।
মাসখানেক ধরে ধান সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু করা হলেও ৫৩৮ মেঃ টন এর মধ্যে নেয়া হয়েছে মাত্র ১৭০ মেঃ টন। টন প্রতি খাদ্য গোদামের কর্মকর্তাকে চাহিদা মতো টাকা না দেয়ায় এবং নানা অজুহাতের কারণ দেখিয়ে কৃষকদের ধান ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। আবার অনেক কৃষকের ধান গোদাম এলাকায় দিনের পর দিন মাপ ঝুকের অজুহাত দেখিয়ে রাখা হচ্ছে। সিন্ডিকেট ও প্রভাবশালী নেতার মাধ্যমে করা হচ্ছে ক্রয়। এতে করে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। একই পরিবারে ৫-৭ জনের নামও তালিকায় রয়েছে। জনপ্রতিনিধিরা তালিকা তৈরীতে আত্মীয় স্বজনদের প্রাধান্য দিয়েছেন। এনিয়ে নবীগঞ্জে সুশীল সমাজের মধ্যে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে সংশ্লিষ্ট কার্যালয়ে গেলে এর দায়ভার নিতে চাচ্ছেন না কেউই। কর্মকর্তারা একে অপরকে দোষারূপ করছেন। ধান সংগ্রহ অভিযানের শুরু থেকেই প্রভাবশালীদের কবজায় চলে যায়। ওই সব নেতা ও ব্যবসায়ীরা রাতারাতি হয়ে উঠেছেন কৃষক। তারা কৃষকের কাছ থেকে কম দামে ধান কিনে সরকারি গুদামে বেশি দামে বিক্রি করছেন। তাই সরকারের ধান কেনায় কৃষক নয়, জনপ্রতিনিধি ও নেতারাই বেশি লাভবান হচ্ছেন। অনেকেই মনে করেন, ধান-চাল সংগ্রহ নীতিমালা পরিবর্তন না হলে সরকারের এ সহায়তা কৃষকের কাছে পৌঁছাবে না। ধান সংগ্রহ কার্যক্রমের পূর্বে একটি পৌরসভাসহ ১৩টি ইউনিয়নে পৃথক কৃষকদের নামের তালিকায় তৈরি করা হয়েছে।
এ বছর ধান চাষ করে শ্রমিক সংকটে বিপাকে পড়েন কৃষকরা। ফসলী জমিতে পানি ও ধানের মূল্য কম হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে হতাশা দেখা দেয়। অনেকেই তার ফসলী জমিতে আগুন ধরিয়ে দিয়ে এর প্রতিবাদও করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতেই সরকার কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করার উদ্যোগ গ্রহণ করে। ধানের দরপতন ঠেকাতে ২৬ মে থেকে সরকার নির্ধারিত প্রতি মণ ধান ১ হাজার ৪০ টাকা দরে ধান-চাল কেনার কার্যক্রম শুরু হয়। চলবে ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত। ধান সংগ্রহ কার্যক্রমের উদ্বোধনের পর পর নবীগঞ্জের একটি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নে কৃষকদের কাছে থেকে ধান সংগ্রহের কাজ শুরু হয়। নবীগঞ্জ পৌরসভা ও উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে একটি করে তালিকা করা হয়। এ তালিকায় বেশির ভাগই লোকই কৃষক নয়।
জানা গেছে, কৃষকদের নিকট থেকে কম দামে ধান ক্রয় করে তালিকাভূক্তরা বেশী দামে সরকারের নিকট বিক্রি করছে।
নবীগঞ্জ খাদ্য গোদাম অফিস সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ উপজেলা ও পৌরসভা মিলে ৫৩৮ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহের কথা রয়েছে। এখন পর্যন্ত ধান সংগ্রহ করা হয়েছে ১৭০ মেঃ টন। তাদের কথা অনুযায়ী এখনও আরো ৩৬৮ মেঃ টন ধান সংগ্রহের কাজ বাকি রয়েছে।
শিবলু মিয়া নামে এক কৃষক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রভাবশালী একটি মহলের ছত্রছায়ায় সিন্ডিকেটের মাধ্যমে ধান সংগ্রহ করা হচ্ছে। ধান সংগ্রহে অনিয়ম দুর্নীতি কেন? তিনি এক সপ্তাহ ধরে ধান নিয়ে আসলেও তার ধান অজুহাতে গ্রহন করা হচ্ছে না। আবার প্রভাবশালীরা বিভিন্ন মাধ্যমে সাথে সাথে দিয়ে যাচ্ছে।
তালিকাভুক্ত কৃষক কামাল মিয়া জানান, খাদ্য কর্মকর্তার কথা অনুযায়ী গত এক সপ্তাহ যাবত আমার ধান খাদ্য গোদামে পড়ে রয়েছে, কিন্তু মাপ-ঝুক করা হচ্ছেনা।
আনছার মিয়া নামে এক কৃষক জানান, কৃষি কর্মকর্তা ও মেম্বারকে টাকা না দেওয়ায় তালিকায় নাম উঠেনি।
এ ব্যাপারে জানতে খাদ্য গুদাম ইনচার্জ আহসান হাবিব বলেন, আমাদের কোন দুর্নীতি হচ্ছে না, আমরা কৃষকের তালিকা মোতাবেক ধান নিচ্ছি, কোন অনিয়ম হলে কৃষি অফিস করেছে, তাদের তালিকায় যদি কোন কৃষক বাদ পড়ে আমাদের কিছু করার নেই, আবার কোন অকৃষক যদি তালিকায় ঢুকে আমাদের কিছু করার নেই। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা কারো কাছ থেকে টাকা নেই নাই। যারা এসব অভিযোগ করেছে সেটা সঠিক নয়।
নবীগঞ্জ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক গৌরি পদ বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসের কর্মকর্তারাই এ ব্যাপারে ভাল বলতে পারবেন। কারন তাদের মাধ্যমেই এ তালিকা করা হয়েছে। আমরা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কৃষক আসলে সেই ধান সংগ্রহ করি আবার অনেকে ধান রেখে চলে যান।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা, এ কে এম মাকসুদুল আলম বলেন, আমরা স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারদের সহযোগীতায় কৃষকদের তালিকা তৈরি করেছি। তালিকায় কোনো অনিময় দুর্নীতি হয়ে থাকলে আমরা খতিয়ে দেখবো।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ধান-চাল সংগ্রহ কমিটির আহ্বায়ক তৌহিদ বিন হাসান বলেন, কোন অনিয়ম হয়ে থাকলে তা খতিয়ে দেখা হবে, কৃষকের তালিকায় যদি চেয়ারম্যান-মেম্বারদের নিজের নাম এবং আত্মীয়স্বজনের নাম দেয়া হয় অবশ্যই আমরা এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।
নবীগঞ্জ ধান-চাল সংগ্রহ কমিটির উপদেষ্টা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুল হক চৌধুরী সেলিম বলেন, যদি তালিকায় কোনো প্রবাসীদের নাম দেয়া হয় এবং জনপ্রতিনিধিদের নাম পাওয়া যায় তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com