সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের নদী খোকোদের তালিকা প্রকাশ ॥ শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযান মাধবপুরে ছোট ভাইয়ের পিটুনীতে বড় ভাই খুন এমপি আবু জাহিরের প্রচেষ্টায় হবিগঞ্জ সদর ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ ॥ আজ এক যোগে উদ্বোধন নবীগঞ্জে সন্ত্রাসী মুছা ১০ দিনেও অধরা কর আদায়ের উপর নির্ভর করে পৌরসভার উন্নয়ন-মেয়র ছাবির চৌধুরী নবীগঞ্জে নারী প্রতারক গ্রেপ্তার মানুষ বাঁচে তার কর্মে, বয়সের মধ্যে নয়-মিলাদ গাজী এমপি নবীগঞ্জে সাবেক ইউপি সদস্যের দাফন সম্পন্ন ॥ শোক প্রকাশ ‘হবিগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী-মেয়র মিজান দুর্নীতি আর লুটপাটের মহাসাগরে নিমজ্জিত আওয়ামীলীগের পতন হবেই- জিকে গউছ
প্রধান নির্বাহীর স্বাক্ষর জাল হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উচ্চমান সহকারী বরখাস্ত

প্রধান নির্বাহীর স্বাক্ষর জাল হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উচ্চমান সহকারী বরখাস্ত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের উচ্চমান সহকারী আব্দুর রব খাঁনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার স্বাক্ষর জালিয়াতি করে স্টলের চুক্তি নবায়ন করায় তাকে বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ। সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে স্থানীয় সরকার জেলা পরিষদ আইন ১৯৮৮ এর ৪৪(১) এবং সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা মোতাবেক গত ১ জুন থেকে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।
জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত পত্র নং ৪৬.৬০.৩৬০০.০০১.৩৫.০১৪.১৬..৪৬৭ সূত্রে জানা যায়, গত ২৯ মে জেলা পরিষদের সমন্বয় সভায় অভিযোগ উঠে উচ্চমান সহকারী আব্দুর রব খাঁন সদ্য বিদায়ী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কুদ্দুছ আলী সরকারের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে চুনারুঘাট উপজেলার দূর্গাপুর ছাত্রী ছাউনির স্টলটি জনৈক আকবর আলীর সাথে নবায়নের চুক্তিনামা সম্পাদন করেন। যাচাই বাছাইকালে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই নবায়ন করে দেয়ার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে শায়েস্তাগঞ্জ নতুন ব্রীজ এলাকায় যাত্রী ছাউনী ইজারা নবায়নের ফাইল ও তথ্য সার্ভেয়ারকে না দিয়ে প্রায় ৬ মাস গোপন রাখার অভিযোগও উঠে। সভায় এসব ঘটনার তদন্ত করতে ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যরা হলেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুল মুকিত ও জেলা পরিষদ সদস্য অ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ।
উচ্চমান সহকারী আব্দুর রব খাঁন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে সবগুলো মিথ্যা। তবে থাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে তিনি স্বীকার করেন।
জেলা পরিষদের সদ্য বিদায়ী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ কুদ্দুছ আলী সরকার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, স্বাক্ষর জালিয়াতির ঘটনায় ৩ সদস্যদের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। বর্তমানে কি অবস্থায় আছে আমি বলতে পারছি না কারণ গত ৩ জুন আমাকে অন্যত্র বদলী করা হয়েছে।
ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক উপ-সচিব মো. নূরুল ইসলাম বলেন, গত ৩ জুন আমাকে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসাবে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার কোন কাগজপত্র এখনও পাইনি। তাই এ বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছি না। তবে শুনেছি তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে এবং বিষয়টি তদন্তের জন্য ৩ সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটিও করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com