বৃহস্পতিবার, ২০ Jun ২০১৯, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সরকারি ধান-চাল সংগ্রহ কার্যক্রমে অনিয়ম ॥ নবীগঞ্জে সংগ্রহ কার্যক্রম স্থগিত ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন নবীগঞ্জে গুদামে চাল সরবরাহ নিয়ে শুরু হয়েছে চালবাজি ॥ অন্য জেলা থেকে চাল এনে গুদামে দিচ্ছে মিলাররা হবিগঞ্জ পৌরসভার ৮৫ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা শহরের পোদ্দাবাড়িতে টাটা গাড়ির শো-রুমের উদ্বোধন চুনারুঘাটে মহিবুল হত্যার আসামীর হুমকিতে বাদী পক্ষ আতঙ্কিত শহরের বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী বিএনপি নেতা তনু ॥ জলাবদ্ধতামুক্ত পরিচ্ছন্ন শহর গড়তে মোবাইল ফোন মার্কায় ভোট দিন মিজানের নৌকার বিজয় নিশ্চিতে একাট্টা ৯নং ওয়ার্ডবাসী ॥ প্রচার মিছিল-সভা পৌরবাসীর ভালবাসা সারাজীবন মনে রাখবো-মেয়র প্রার্থী টিটু দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা শায়েস্তাগঞ্জে প্রকাশ্যে জুয়ার আসর ॥ আটক ৬
নবীগঞ্জে গার্মেন্টস কর্মী নিখোঁজের ৩ দিন পর নদী থেকে লাশ উদ্ধার ॥ লাশের হাত-পা ও কোমড়ে ৩টি ইট বাঁধা ছিল ॥ সন্দেহভাজন ৩ জন আটক

নবীগঞ্জে গার্মেন্টস কর্মী নিখোঁজের ৩ দিন পর নদী থেকে লাশ উদ্ধার ॥ লাশের হাত-পা ও কোমড়ে ৩টি ইট বাঁধা ছিল ॥ সন্দেহভাজন ৩ জন আটক

এটিএম সালাম/আলমগীর মিয়া/ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ নবীগঞ্জে গার্মেন্টস কর্মী রুহেলর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিখোঁজ হওয়ার ৩দিন পর গতকাল শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নবীগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর গ্রামের পার্শ্ববর্তী পিংলি নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় বিকৃত লাশটি উদ্ধার করা হয়। লাশ উদ্ধারের সময় দু’হাত ও পা দড়ি দিয়ে বাঁধা এবং কোমরে গেঞ্জি দিয়ে তিনটি ইট বাঁধা অবস্থায় ছিল। নিহত রুবেল উপজেলার ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ঘোলডুবা গ্রামের খুর্শেদ মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও রুহেলের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, তিনি চট্টগ্রামে একটি গার্মেন্টে কর্মরত ছিলেন। গত ১৫ মে ছুটি নিয়ে বাড়ি আসেন। ২৮ মে ইফতার শেষে তিনি বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেননি। পরিবারসহ আত্মীয় স্বজনরা সম্ভাব্য সকল স্থানে খোজ করেও তার সন্ধান পাননি। গতকাল সকালে স্থানীয় লোকজন পিংলি নদীতে ভাসমান অবস্থায় একটি লাশ দেখতে পান। তাৎক্ষণিক নবীগঞ্জ থানায় খবর দেয়া হলে থানার ওসি তদন্ত গোলাম দস্তগীর এর নেতৃত্বে¡ একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অর্ধগলিত লাশটি উদ্ধার করেন। এ সময় লাশের দু হাত ও পা দড়ি দিয়ে বাঁধা ও কোমরে গেঞ্জি দিয়ে তিনটি ইট বাঁধা ছিল বলে জানায় পুলিশ। পরে থানার অফিসার ইনচার্জ ইকবাল হোসেন গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে অজ্ঞাতনামা লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।
এদিকে খবর পেয়ে ঘোলডুবা গ্রামের খুর্শেদ আলীর স্ত্রী ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজনরা থানায় ছুটে আসেন। এক পর্যায়ে পড়নের কাপড় ও হাতের আঙ্গুল দেখে লাশটি রুহেলের বলে সনাক্ত করেন। পরে বিকাল ৪টার দিকে তার লাশ হবিগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করা হয়।
ওসি ইকবাল হোসেন বলেন-উদ্ধারকৃত লাশটি অর্ধগলিত হওয়ায় তাৎক্ষনিকভাবে শনাক্ত করা সম্ভব না হলেও পরবর্তীতে ঘোলডুবা গ্রামের খুর্শেদ আলীর স্ত্রী, স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার ও মুরুব্বীয়ানদের নিয়ে থানায় হাজির হয়ে উক্ত লাশ তার ছেলে রুহেল মিয়ার বলে সনাক্ত করেন।
প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে দুর্র্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে হাত পা বেধে ও লাশটি ডুবে যাওয়ার জন্য কোমরে ইট বেধে নদীতে ফেলে দিয়েছে। পুলিশ ঘটনার রহস্য উদঘাটনসহ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারে কাজ করছে।
এদিকে শুক্রবার দিবাগত রাত ১টার দিকে নবীগঞ্জ থানার ওসি মোহাম্মদ ইকবাল হোসেনের নেতৃত্বে এক বিশেষ অভিযান চালিতে সন্দেহভাজন হিসেবে তাদের আটক করা হয়।
আটককৃতরা হলেন, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের ফতেহপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের পুত্র মাসুম আহমেদ, রইছ উদ্দিনের পুত্র শাহজাহান মিয়া এবং কৈখাই গ্রামের আবু সামার পুত্র রেজুয়ান মিয়া। নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন তিনজনে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, সন্দেহভাজন হিসেবে তাদের আটক করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com