শুক্রবার, ১৯ Jul ২০১৯, ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী ॥ নবীগঞ্জে স্থায়ীবাঁধ নির্মাণে ৫১৮ কোটি টাকার মেগা প্রকল্পের ঘোষণা নবীগঞ্জে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ছাত্রীর উপর বখাটের হামলা ॥ কঠোর শাস্তির দাবীতে ফুঁসে উঠছে শিক্ষার্থীরা বাহুবলে ১ কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক লাখাইয়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ মাধবপুরের ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীরের জানাযায় মানুষের ঢল দাবি আদায় করতে গিয়ে পৌরবাসীকে জিম্মি না করতে পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রতি জিকে গউছের আহ্বান বন্যা দূর্গত মানুষের পাশে দাড়ানোর জন্য রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি হবিগঞ্জ ইউনিটের আহবান পত্রিকা এজেন্ট লাইছের হামলায় হকার আহত ঢাকায় পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবস্থান কর্মসূচীতে ১ জন নিহত ॥ আহত ৯৪ নবীগঞ্জের প্রিয়মুখ মিহির সরকারের পরলোকগমন ॥ বিভিন্ন মহলের শোক
বানিয়াচঙ্গে বাবার হাতে ছেলে খুন ॥ ১০ দিনের মাথায় রহস্য উদঘাটন ॥ ঘাতক গ্রেফতার স্বীকারোক্তি

বানিয়াচঙ্গে বাবার হাতে ছেলে খুন ॥ ১০ দিনের মাথায় রহস্য উদঘাটন ॥ ঘাতক গ্রেফতার স্বীকারোক্তি

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচঙ্গে সৎ বাবার হাতে ছেলে খুনের ১০ দিনের মাথায় হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে পুলিশ। হত্যার দায় স্বীকার করে ঘাতক আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১৫ মে বানিয়াচং উপজেলার ৫নং দৌলতপুর ইউনিয়নে। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শিশু ইয়াসিন এর মা রোকসানা বেগমের বিয়ে হয় শাল্লা থানার দুলাল মিয়ার সাথে। বিয়ের পর থেকেই তাদের সংসারে নানা অভাব অটনের কারনে তাদের মধ্যে প্রায়শই ঝগড়া বিবাদ লেগে থাকতো। এসব কারনে রোকসানা বেগম এবং দুলাল মিয়ার সংসার বেশীদুর আগায়নি। দুলাল মিয়া এবং রোকসানা বেগম এর মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। পরবর্তী রোকসানা বেগম তার ছেলে ইয়াসিনকে সাথে নিয়ে বাবার বাড়ী দৌলতপুরের নোয়াগাও হাইস্কুল হাটিতে চলে যান। বাবার বাড়ীতে থাকার সুবাদে পরিচয় হয় সৌরভ নামে জনৈক এক ব্যক্তির সাথে। একে অপরের সাথে পরিচয়ের পর সৌরভ বিয়ে করে রোকসানাকে। বিয়ের পর শিশুপুত্র ইয়াছিনকে সৌরভ বাবা বলে ডাকতে বলে। ইয়াছিন এতে রাজি হয়নি। সে তাকে মামা হিসেবে সম্বোধন করতে থাকে। এতে সৌরভ শিশু ইয়াছিন এর উপর চরমভাবে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এছাড়া তাদের সংসারে বাড়তি ঝামেলা হিসেবে শিশু ইয়াছিনকে মেনে নিতে পারেনি সৌরভ। এ জন্য সে শিশু ইয়াছিনকে প্রায় সময়ই মারধোরও করতো। তারপরও ইয়াছিন তাকে বাবা বলবে না বলে জানায়। এরপর থেকেই সৌরভ শিশু ইয়াছিনকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে। গত ১৫ মে শিশু ইয়াছিন (৬) কে বাড়ীতে না পেয়ে বিভিন্ন জায়গায় তার মা’সহ আত্মীয় স্বজনরা খোজাখোজি করতে থাকে। পরদিন ১৬ মে কাদিরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী নির্জন পুকুরে শিশু ইয়াছিন নিথরদেহ পড়ে থাকতে দেখে এলাকাবাসী থানা পুলিশকে খবর দিলে এসআই আমিনুল হকসহ এদকল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পুকুরের কাদার ভিতর থেকে ইয়াছিন এর নিথরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল রিপোর্টের জন্য হবিগঞ্জ হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। ওই দিনই শিশু ইয়াছিন এর মা রোকসানা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয় এসআই আমিনুল হককে। মামলা দায়ের এর পরপরই বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ রাশেদ মোবারক, তদন্তকারী অফিসার আমিনুল হকসহ পুলিশের একাধিক টীম হত্যা রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে। এরই মধ্যে হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লাহ শিশু ইয়াছিন হত্যার রহস্য বের করতে পুলিশের বিভিন্ন সংস্থাকে দায়িত্ব দেন। পুলিশ সুপারের নির্দেশক্রমে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে এ ঘটনার সাথে কার সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে এ বিষয়ে পুলিশ বিভিন্ন সূত্রের সন্ধ্যান নিতে থাকে। এরই মধ্যে বিভিন্ন বিষয়াদি পর্যালোচনা করে সন্দেহের তীর পরে সৎ বাবা সৌরভের দিকে। সবশেষ গত সোমবার তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে সুনামগঞ্জের দিরাই থানার পাগলাবাজার (পীরের গাও) থেকে গ্রেফতার করা হয় শিশু ইয়াছিন এর সৎ বাবা সৌরভ মিয়া (২৮) কে। সে ধল (আশ্রম) গ্রামের দিরাই থানার আব্বাছ মিয়ার ছেলে। গতকাল বানিয়াচং থানায় নিয়ে আসার পর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শিশু ইয়াছিন হত্যার কথা স্বীকার করে। পরবর্তী বানিয়াচং থানা পুলিশ সৌরভকে হবিগঞ্জ কোর্টে হাজির করলে সে ১৬৪ ধারায় আদালতে ম্যাজিস্ট্রেট এর কাছে শিশু হত্যার দায় স্বীকার করেছে এবং কিভাবে শিশু ইয়াছিনকে হত্যা করেছে তার বর্ননাও সে আদালতের কাছে জবানবন্দীতে উল্লেখ করেছে। এদিকে শিশু ইয়াছিন হত্যাকারী ঘাতক সৌরভের ফাসিঁর দাবী জানিয়েছেন শিশু ইয়াছিন এর মা’সহ এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com