মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:২১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে চা-বাগানে কাকাতো ভাইয়ের হাতে জেঠাতো ভাই খুন যুক্তরাজ্যে গাড়ির নাম্বার প্লেটের রেজিষ্ট্রেশন নিয়ে জটিলতা ॥ আইনি লড়াইয়ে জয়ী হলেন এনটিভির ইউরোপ ব্যুরো চিফ ফারছু আহমেদ চৌধুরী শহরে প্রকাশ্যে ছাত্রলীগ নেতা আসিফ চৌধুরীকে কুপিয়ে ক্ষতবিক্ষত করেছে দূর্বৃত্তরা আজমিরীগঞ্জে হাওর থেকে যুবতীর বিকৃত লাশ উদ্ধার নবীগঞ্জে ছাতল বিলের ইজারা সমিতির সদস্যদের স্বাক্ষর জাল ইউএনও বরাবর অভিযোগ বানিয়াচঙ্গের এক মহিলাকে বিদেশ পাঠানোর নামে পাচারের অভিযোগ স্কুল-কলেজের সামনে বখাটেদের উৎপাত বন্ধে পুলিশকে কঠোর হওয়ার নির্দেশ হবিগঞ্জে ‘বিবর্তন বিজ্ঞান চক্র’র উদ্যোগে ২ দিনব্যাপী জ্যোতির্বিজ্ঞান বিষয়ক কর্মশালা সম্পন্ন মাধবপুরে গাছ থেকে পড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু বাহুবলে প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা আকবর আলী আর নেই
মাধবপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত শুরু

মাধবপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত শুরু

মাধবপুর প্রতিনিধি ॥ মাধবপুর উপজেলায় শাহজাহানপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুল আলম চৌধুরীর বিরুদ্ধে অতি দরিদ্র কর্মসৃজন কর্মসূচীতে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে। ইউপি সদস্য ফারুক মিয়া মাধবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ করেন। এর প্রেক্ষিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিয়মের বিষয়টি তদন্ত করার জন্য সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মতিউর রহমান খাঁনকে দ্বায়িত্ব দেন।
লিখিত অভিযোগে জানা যায়, শাহজাহানপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুল আলম চৌধুরী ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে ১ম পর্যায়ে ২৬৭ জন শ্রমিকের অনুকুলে ৪০ দিনের কর্মসূচীতে প্রতিজন শ্রমিকের ২শ টাকা মজুরী হিসেবে প্রায় ২১ লাখ ৩৬ হাজার টাকা বরাদ্দ পান। ১ম পর্যায়ে কর্মসূচীতে প্রতিদিন মাত্র ১শ থেকে ১৩০ জন শ্রমিক কাজ করেছে। কিন্তু প্রতিদিন কাজ করার কথা ২৬৭ জন। নামে বেনামে শ্রমিকদের স্বাক্ষর দিয়ে অবশিষ্ট সরকারি অর্থ আত্মসাত করা হয়েছে। ২য় পর্যায়ে আবার ২৬৭ জন শ্রমিকের অনুকুলে ৪০ দিনের কর্মসূচীতে প্রতিজন শ্রমিকের ২শ টাকা মজুরী হিসেবে প্রায় ২১ লাখ ৩৬ হাজার টাকার বরাদ্দ হয়েছে। নিয়মানুযায়ী গত ৪ মে থেকে কর্মসৃজন কর্মসূচীর কাজ শুরু হবার কথা থাকলেও ৩০/৩৫ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ করাচ্ছে। কিন্তু কাগজে কলমে সকল শ্রমিকের উপস্থিতি দেখিয়ে সই স্বাক্ষর দিয়ে সরকারি টাকা আত্মসাত করা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মল্লিকা দে জানান, অভিযোগের সত্যতা যাছাই করে যতদ্রুত সম্ভব প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য বলা হয়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ মতিউর রহমান খান বলেন-দ্বায়িত্ব প্রাপ্ত হয়ে আমি গোপনে ও প্রকাশ্য বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে তদন্ত করছি। খুব শীঘ্রই রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com