সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:২০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
করোনা ভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে এক যুবক ভর্তি পরিবেশ ও নিরাপত্তায় আপোষহীন শিল্প প্রতিষ্ঠান সায়হাম গ্রুপ পানির অভাবে গুঙ্গিয়াজুরী হাওর বিরান ভূমিতে পরিণত বানিয়াচঙ্গে ডোবা থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার শায়েস্তাগঞ্জে আপনজনের উদ্যোগে শিক্ষা সহায়ক উপকরণ বিতরণ বিথঙ্গল জেডিসি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও স্বেচ্ছারিতার অভিযোগ হবিগঞ্জ জেলা যুবদলের সাথে যুবদলের কেন্দ্রীয় মনিটরিং টিমের কর্মীসভা নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নে গণফোরামের ৭নং ওয়ার্ড কমিটি গঠিত সারা বছরই অরক্ষিত থাকে বানিয়াচঙ্গের শহীদ মিনার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা দ্রুত সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে-এমপি আবু জাহির
আসামপাড়ার প্রেমিক যুগল হবিগঞ্জ কারাগারের বাসিন্দা

আসামপাড়ার প্রেমিক যুগল হবিগঞ্জ কারাগারের বাসিন্দা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাবার জিম্মায় যেতে চায়নি বলে প্রেমিক ও প্রেমিকাকে পুলিশের হাতে তোলে দিলেন ইউপি চেয়ারম্যান। ওই প্রেমিক যুগল এখন হবিগঞ্জ কারাগারের বাসিন্দা। প্রেমিকার বাবা ইতোমধ্যে অপহরণ মামলা টুকে দেয়ায় প্রেমিকের বাবা এই রমজানে বাড়ি ছাড়া। সীমান্ত ইউনিয়ন গাজীপুরের ফাটাবিল গ্রামের হিরা মিয়ার কন্যা লিলির সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে একই ইউনিয়নের মানিকভান্ডার গ্রামের আকসির মিয়ার পুত্র ফটিক মিয়ার সাথে। লিলি গাজীপুর হাই স্কুল এন্ড কলেজের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী। তাদের মধ্যে প্রেমের আদান প্রদান চলে আসছিলো বিগত ৩ বছর যাবৎ। গত ১০ মে প্রেমিক ফটিকের হাত ধরে বাবার বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায় লিলি। ফটিক মিয়া প্রেমিকা লিলিকে নিয়ে তার বাড়িতে অবস্থান নেয়। এদিকে প্রেমিকার বাবা হিরা মিয়া বিষয়টি ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ুন খানকে অবহিত করলে চেয়ারম্যান ফটিক ও তার বাবা আকসির মিয়াকে অফিসে তলব করেন। তারা লিলিকে নিয়ে রবিবার সকালে স্থানীয় ইউপি অফিসে হাজির হন। এ সময় চেয়ারম্যান লিলিকে বাবার হিরা মিয়ার জিম্মায় ফিরে যাবার চাপ দেন। কিন্তু লিলি প্রেমিক ফটিককে ছাড়া যাবে না বলে মতামত ব্যক্ত করলে চেয়ারম্যান তাদেরকে পুলিশে সোর্পদ করেন। চুনারুঘাট থানার দারোগা সজিব প্রেমিক যুগলকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে যান। এদিকে প্রেমিকার বাবা হিরা মিয়া থানায় উপস্থিত হয়ে একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেন রবিবার। মামলায় প্রেমিক ফটিকের বাবা আকসির মিয়াকেও আসামী করা হয়। গতকাল দুপুরে প্রেমিক প্রেমিকাকে আদালতে মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করে পুলিশ। হিরা মিয়ার কন্যা লিলির পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে এলাকায় নানা ধরনের আলোচনার জন্ম হয়েছে। প্রেমিক ফটিক প্রায় সময়ই হিরা মিয়ার বাড়িতে অবস্থান করতো। দিনের অধিকাংশ সময় কাটতো তার প্রেমিকার বাড়িতে। হিরা মিয়া বলেন, তার মেয়ে লিলিকে ফটিক অপহরন করে নিয়ে যায়। তিনি এ জন্যে আইনের আশ্রয় নিয়েছেন। অপর দিকে ফটিকের আত্মীয়রা বলেছেন, হিরা মিয়ার কন্যা লিলি নিজের ইচ্ছায় ফটিকের বাড়িতে চলে আসে। এদের মধ্যে দীর্ঘদিন থেকে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। অপহরণ মামলাটি সাজানো বলে জানান তারা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com