বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ০৬:২৯ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জ খোয়াই নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ পরবর্তী প্রেক্ষাপট

হবিগঞ্জ খোয়াই নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ পরবর্তী প্রেক্ষাপট

মোহাম্মদ আলী মমিন ॥ হবিগঞ্জের খোয়াইর পাড় তীর থেকে গত সপ্তাহে উচ্ছেদকৃত ভূমিতে চলছে ব্যাপক উন্নয়ন। এ সপ্তাহে পাড়ের সুলতানমামুদপুর মৌজার অংশের অবৈধ স্থাপনায় উচ্ছেদকালে এক্সেভেটরে ভাঙ্গাচুরা ইট কাঠ টিন সরিয়ে নেওয়ার মহোৎসব দৃশ্যমান। আগামী সপ্তাহে অবৈধ স্থাপনার উচ্ছেদের আশংকায় রামপুর মৌজার খোয়াইর পাড়ের স্থাপনার বসবাসকারীরা নিজেরা ভেঁেঙ্গ অক্ষত অবস্থায় সড়িয়ে নেয়ার ধুম পড়েছে। সরজমিনে দেখা যায়, নদীর উচ্ছেদকৃত কামড়াপুর অংশে খোয়াইর তীরে শতশত জিও টেক্সটাইল বস্তায় বালু ভর্ত্তি করতে দেখা গেছে। কর্মরত শ্রমিকরা জানায়, বালুর বস্তা শীঘ্রই স্থানে স্থানে নির্দেশানুযায়ী স্থাপন করা হবে। দর্শনার্থী অভিজ্ঞদের ধারনা নদীর তীরে ঝোপ জঙ্গলের উপর বস্তা ফেলা হলে ইদুরের কার্যক্রম ঠিকই থাকবে? অপর দিকে এ সপ্তাহে শহরের মধ্যে বেইলী ব্রীজ থেকে নদীর পাড়ের নোয়াবাদের সুলতান মামুদপুর মৌজার পাড়ের সকল অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদকালে এক্সভেটরে গুড়িয়ে দেয়া ভাঙ্গাচুরা ইট কাঠ টিন সরিয়ে নিতে অসংখ্য মহিলা পুরুষকে ব্যস্ত দেখা গেছে।
এ সময় উচ্ছেদ হওয়া আতাব আলী (৯১) বৃদ্ধার সঙ্গে কথা হয়। তিনি জানান, ৭৯ সালে সর্বপ্রথম তিনি স্বস্ত্রীক নোয়াবাদ প্রাইমারী স্কুলের দক্ষিনের পৈত্রিক বাড়ি ছেড়ে নদীর পাড়ে ঘর বানিয়ে বসতি শুরু করেন। খোয়াই লুপ কাটিং এ শতশত শ্রমিক দিয়ে সহযোগিতার কারণে সবার কাছে ছিলাম সুপরিচিত। ঐ সুবাদে এখানে ঘর বানিয়ে থাকতে দেয়া হয়েছিল। বিপতœীক আতাব আলী একটুখানি থাকার জায়গা প্রদানের জন্য হবিগঞ্জবাসীর কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন। এদিকে নদীর পাড় তীরের রামপুর মৌজার মাইট্টাদই বিল সংলগ্ন স্লুইস গেইট পর্যন্ত অবৈধ স্থাপনার মালিকারা গুড়িয়ে দেয়ার আশংকায় স্থাপনা সরিয়ে নেয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। অনেক স্থাপনার আঙ্গিনায় দৃষ্টিকটু আড্ডা দেখা গেছে। জড়ো হওয়া অনেক মহিলাকে অশ্রাব্য, অশোভন ভাষায় দেশের ভিআইপিদের গালাগালের শব্দও শোনা গেছে। অনেক পুরুষ-মহিলা নিজেদেরকে বাংলাদেশী নাগরিক হয়ে, রোহিঙ্গা চেয়েও নিকৃষ্টতম আখ্যায়তি করেন। অনেককে শহরের মালিকানা ভূমিতে ছাপটা ঘর নির্মান করতে দেখা গেছে। ঘর নির্মানকারীরা জানান, ১২/৮ হাত ভূমি ৫ শ টাকা মাসিক ভাড়াতে টিনের ঘর বানাচ্ছেন। পুরান মুন্সেফীর দিলোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, মানবিক বিবেচনা করে ১৬টি পরিবারকে আমার মালিকানা ভূমিতে চুক্তিতে ঘর-বানাতে অনুমতি দিয়েছি। উত্তর শ্যামলী ইসলামনগর সামাজিক উন্নয়ন কমিটির সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান কাউছার বলেন, উচ্ছেদকৃত লোকদের মানবিকতার বিবেচনায় থাকার জায়গা দেয়া উচিত। তবে মাদক ইয়াবা শহরময় যেন ছড়িয়ে না যায় সে দিকে দায়িত্ববান লোকদের পূর্ব-সতর্কতার আহবান জানাচ্ছি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com