রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সায়হাম গ্রুপের কর্ণদার সৈয়দ মোঃ ফয়সল সেরা করদাতা নির্বাচিত বেকারত্ব দূর করতে ভূমিকা রাখতে পারেন ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ-বাহুবলের সাবেক এমপি আব্দুল মোছাব্বির এর কুলখানি অনুষ্ঠিত হবিগঞ্জ ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের কমিটি ও উপদেষ্ঠা পরিষদ গঠন নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন দাঙ্গা-হাঙ্গামায় সহযোগিতা নয় প্রতিরোধ করুন-রবিউল ইসলাম নবীগঞ্জ আউশকান্দি ইউনিয়ন বিএনপির ওয়ার্ড কমিটি গঠন হজ্ব পালনের বিভিন্ন নিয়মাবলী সম্পর্কে ধারণা দিলেন এমপি আবু জাহির বাসদ নেতা হুমায়ূন খানের বড় বোনের ইন্তেকাল ॥ শোক নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামে ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের বিশেষ সৎসঙ্গ অধিবেশন
বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে সিকৃবি ছাত্র ওয়াসিম হত্যা ॥ উত্তাল নবীগঞ্জ ॥ মানববন্ধন, মহাসড়ক অবরোধ ॥ ছেলে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মা-বাবা

বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে সিকৃবি ছাত্র ওয়াসিম হত্যা ॥ উত্তাল নবীগঞ্জ ॥ মানববন্ধন, মহাসড়ক অবরোধ ॥ ছেলে হারিয়ে বাকরুদ্ধ মা-বাবা

ছনি চৌধুরী, নবীগঞ্জ থেকে ॥ সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) ছাত্র নবীগঞ্জের মো. ওয়াসিম আব্বাস ঘোরীকে বাস থেকে ফেলে হত্যার প্রতিবাদে নবীগঞ্জসহ সিলেট নগরী উত্তাল হয়ে উঠেছে।
গতকাল রবিবার দুপুর ১২টার দিকে নবীগঞ্জের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা প্লেকার্ড হাতে নিয়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের জনতার বাজারে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। একই সময় পানিউমদা রাগীব-রাবেয়া স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা মহাসড়কের পার্শে¦ দাড়িয়ে মানববন্ধন করে। এঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিলে শিক্ষার্থীরা অবরোধ তোলে নেয়।
এছাড়া সিলেট নগরীতে সিকৃবিসহ বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা নগরের চৌহাট্টা মোড়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে। বিক্ষোভকারীরা ওয়াসিম হত্যাকারীদের সর্ব্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেন। বিক্ষোভের ফলে সিলেট নগরজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও।
গতকাল রোববার বেলা ১১টার দিকে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন ওয়াসিমের সহপাঠীরা। দুপুর ১২টার দিকে তারা নগরের চৌহাট্টায় অবস্থান নিয়ে সড়ক অবরোধ করেন।
‘যে মগজ দেশ গঠনে ব্যবহার হয়, সে মগজ কেন রাস্তায় পড়ে রয়’, ‘জীবনের নিরাপত্তা চাই’, ‘দুর্ঘটনা নয়, পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড’, ‘উদার পরিবহনের রুট পারমিট বাতিল করতে হবে’ ‘ওয়াসিম হত্যার বিচার চাই’ স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে উঠে সিলেটের চৌহাট্টাসহ আশপাশ এলাকার রাজপথ।
শিক্ষার্থীদের অবরোধে চৌহাট্টা মোড়ের চারদিকে শত শত গাড়ি আটকা পড়ে। দীর্ঘ যানজটে আটকা পড়েছেন হাজার হাজার পথচারী।
শিক্ষার্থীরা ওয়াসিম হত্যার প্রতিবাদে বাসচালক ও হেলপারের ফাঁসি কার্যকর, ঘাতক ‘উদার’ পরিবহন বাসের রুট পারমিট ও লাইসেন্স বাতিলসহ নিরাপদ সড়কের দাবি করে কোনো ফিটনেসবিহীন গাড়ি রাস্তায় চলতে পারবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন।
অবরোধ চলাকালে সিলেট মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি উত্তর) আজবাহার আলী শেখ অবরোধস্থলে এসে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। পরে তিনিও দোষী বাসচালকের ফাঁসি চান জানিয়ে এই গরমে মানুষকে কষ্ট না দিয়ে শিক্ষার্থীদের রাস্তা ছেড়ে ক্যাম্পাসে ফেরার অনুরোধ করেন। কিন্তু শিক্ষার্থীরা তার অনুরোধ প্রত্যাহার করে বিভিন্ন স্লোগান দেন।
এদিকে বাসচাপায় নিহত সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) ছাত্র মো. ওয়াসিম আব্বাসের জানাজা শেষে তার গ্রামের বাড়ি নবীগঞ্জ উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের রুদ্রগ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। দুপুর ২টায় নিহত ওয়াসিমের জানাযার নামাজে হবিগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ মিলাদ, নবীগঞ্জ-বাহুবলের সার্কেলের সিনিয়র পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান ইমদাদুর রহমান মুকুল, ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদ জাবেদ, আবু সিদ্দিকসহ ওয়াসিমের আত্মীয়স্বজন, সহপাঠি ও সামাজিক রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন অংশ নেন।
প্রসঙ্গত, শনিবার বিকেলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের শেরপুর বাস স্টেশনে ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কির একপর্যায়ে বাস থেকে ওয়াসিমকে গলা ধাক্কা দিয়ে নিচে ফেলে দেন বাসের সহকারী মাসুক আলী। এতে বাসের চাকার নিচে পড়ে মারা যান ওয়াসিম। নিহত ওয়াসিম সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি অ্যান্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র ছিলেন। তিনি নবীগঞ্জ উপজেলার রুদ্র গ্রামের আবু জায়েদ মাহবুব ও নীলা পারভীন দম্পতির একমাত্র ছেলে। ওয়াসিমের বড়বোন ইমো স্বামীর সঙ্গে ঢাকা থাকেন।
এদিকে একমাত্র ছেলে সন্তানকে হারিয়ে পাগল প্রায় ওয়াসিমের বাবা-মা। ওয়াসিমের মা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নীলা পারভীন ছেলের শোকে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন। জ্ঞান হারাচ্ছেন কিছু সময় পর পর। যখই জ্ঞান ফিরছে তখনই ‘আমারে কে মা ডাকবে আর? ও ওয়াসিম… আমাকে আর কে মা ডাকবে বাবা ’ বলে চিৎকার দিয়ে আবার জ্ঞান হারাচ্ছেন। ওয়াসিমের বাবা আবু জায়েদ মাহবুব নির্বাক, একটানা তার চোখ দিয়ে পানি ঝড়ছে। প্রতিবেশী, আত্মীয়-স্বজন, সহপাঠী কেউই চোখের পানি ধরে রাখতে পারছেন না।
নিহত ওয়াসিমের চাচা মফিজুর রহমান টিপু জানান, আমাদের সবার আদরের সন্তানটি চলে গেছে নির্মমভাবে, তাই মামলা করে কি করব? আমাদের ক্ষতিপূরণ দরকার নেই। আমাদের ছেলেকে তো আর ফেরত পাবো না।
উল্লেখ্য, ওয়াসিমসহ ১১ জন শিক্ষার্থী নবীগঞ্জের দেবপাড়ায় একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। শনিবার বিকেলে ফেরার পথে তারা ময়মনসিংহ-সিলেট রোডের উদার পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসের ভাড়া ও সিটে বসা নিয়ে বাসের হেলপারের সঙ্গে তাদের বিবাদ হয়। একপর্যায়ে বাসের হেলপার ওয়াসিমসহ আরেক জনকে ধাক্কা দেন। এতে ওয়াসিম বাস থেকে পড়ে যান এবং বাস চালক বেপরোয়া গতিতে ওয়াসিমের ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে চলে যান।
এ সময় তার সঙ্গে থাকা রাকিব হোসেন নামে আরেকজন শিক্ষার্থী বাস থেকে লাফ দিয়ে নামেন। ওয়াসিমকে দ্রুত একটি প্রাইভেটকারে করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। রাকিব হোসেনকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা বাসটি আটক করেন। ততক্ষণে বাসের চালক ও হেলপার পালিয়ে যান। পরে মৌলভীবাজার সদর থানা পুলিশ বাসটি জব্দ করে। এ ঘটনায় শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উদার পরিবহনের বাস চালক জুয়েল আহমদ ও রাত ২টার দিকে হেলপার মাসুক আলীকে পৃথক স্থান থেকে আটক করে মৌলভীবাজার মডেল থানা পুলিশ। এ ঘটনায় মামলা না করার কথা জানিয়েছে নিহত ওয়াসিমের পরিবার।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com