সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বানিয়াচঙ্গে কৃষকের বাড়ী থেকে ধান ক্রয় করলেন জেলা প্রশাসক **  হবিগঞ্জে কালবৈশাখীর তাণ্ডব অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড চরম বিদ্যুৎ বিপর্যয় **  চুনারুঘাটে কৃষকরা হতাশায় নিমজ্জিত বোরো চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষক **  খোশ আমদেদ মাহে রমজান **  হবিগঞ্জ জেলা কল্যাণ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র ইন্ক এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল **  পইলে বিষধর সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু **  নবীগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত অর্ধশত **  নবীগঞ্জে পুলিশী হয়রানী বন্ধে ইমা লেগুনা-সিএনজি মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘট ॥ এমপির আশ্বাসে প্রত্যাহার **  সাংবাদিক জুয়েলকে হুমকি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি **  লাখাই থানার মানব পাচার মামলার পলাতক আসামী হবিগঞ্জে গ্রেফতার **  বানিয়াচঙ্গের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী জাহাঙ্গির কারাগারে **  নবীগঞ্জে পিকআপ ভ্যান চুরির ৫ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার **  শহরের ইনাতাবাদে গাছ থেকে পরে বৃদ্ধের মৃত্যু **  বানিয়াচঙ্গে একই পরিবারের ৭ জনকে কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত **  মাধবপুরে বাংলা টিভির তৃতীয় প্রতিষ্ঠা বাষিকী পালিত **  মাধবপুরে সিএনজি-পিকআপ সংঘর্ষে আহত ৫, পিকআপ চালক আটক **  কাল বৈশাখীর ঝড়ে বিধ্বস্ত হবিগঞ্জ ॥ সহায়তার আশ্বাস

মাধবপুরে মেয়াদোর্ত্তীণ ঔষধের রমরমা ব্যবসা

মাধবপুর প্রতিনিধি ॥ মাধবপুরে দীর্ঘদিন ধরে লাইসেন্সবিহীন ঔষধের দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ ও নি¤œমানের ঔষধ বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভেজাল নি¤œমানের ঔষধে রোগীর জীবন রক্ষার পরিবর্তে জীবন ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। অনুমোদনবিহীন ঔষধের দোকনের বিরুদ্ধে অজ্ঞাত কারনে ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অধিক লাভজনক হওয়ায় ফার্মাসিষ্ট ও ড্রাগ লাইসেন্সের অনুমোতি ছাড়াই ঔষধ ব্যবসাতে ঝুঁকে পড়ছে নামমাত্র শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিরা। উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাট বাজারে, অলি-গলিতে ব্যাঙের ছাতার গড়ে ওঠছে ঔষদের দোকান। ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ৩ লাখ জনগনের এ উপজেলাতে অর্ধ সহ¯্রাধিক ঔষধের দোকান রয়েছে। ঔষধ প্রশাসনের নীতিমালার তোয়াক্কা না করে শুধুমাত্র ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে উপজেলা সদর পৌর শহরের অলিগলিতে এবং বিভিন্ন হাট বাজারে করে আসছে রমরমা ঔষধের ব্যবসা। কোন কোন হাট বাজারের ঔষধ ব্যবসায়ীদের স্থানীয় পরিষদের ট্রেড লাইসেন্সও নেই। এসব ফার্মেসীতে চিকিৎকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন এ্যান্টিবায়োটিক, লাইসেন্স বাতিল হওয়া কোম্পানীগুলোর ঔষধ, পেনিসিলিন, সেফালোসপোরিন, ক্যান্সার ও জন্মনিয়ন্ত্রন ও যৌনক্ষমতা বৃদ্ধির নি¤œমানের ঔষধগুলো বিক্রি হচ্ছে। সেই দোকানগুলোতে নেই কোন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ফার্মাসিস্ট। ফলে ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়ায় রোগ নিরাময়ের পরিবর্তে আরও জটিল রোগের সৃষ্টি হচ্ছে। কোন কোন ক্ষেত্রে ফার্মাসিষ্ট দ্বারা চিকিৎসা করতে আসা রোগী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঔষধ ব্যবসায়ী জানান-লাইসেন্স করতে সরকারী নির্ধারিত ফি’র বাইরে ঘুনতে হয় বাড়তি অর্থ। তাছাড়া অবৈধ ফার্মেসীর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার পূর্বেই খবর চলে আসে ব্যবসায়ীদের কাছে। ড্রাগ ইন্সপেক্টররা যে দিন অভিযানে নামেন সেই দিন ফার্মেসী বন্ধ করে চলে যায় অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা। ড্রাগ নিয়ন্ত্রন অধ্যাদেশ ১৯৮২ এর ৪(১৩) ধারায় ফার্মাসিস্টদের নিয়োগ’ শিরোনামের ২নং ধারায় উল্লেখ আছে কোন খুচরা ঔষধ বিক্রেতা বাংলাদেশ ফার্মেসী কাউন্সিলের কোন রেজিষ্টারের রেজিস্ট্রিভুক্ত ফার্মাসিস্টদের তত্ত্বাবধান ব্যতিরেকে কোন ড্রাগ বিক্রি করতে পারবে না। কিন্তু উল্লেখিত বিধিমালা উপেক্ষা করে প্রশিক্ষিত ফার্মাসিস্ট ছাড়াই অধিকাংশ দোকানে ঔষধ বিক্রি হচ্ছে। মাধবপুর কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজল রায় জানান-উপজেলা সদর বাজারে ৭৭টি ফার্মেসী রয়েছে, তন্মধ্যে ৭৩টির ব্যবসায়ীক বৈধ কাজগপত্র আছে দাবী করে তিনি আরো জানান ড্রাগ এবং ফার্মাসিস্ট অনুমোদ বন্ধ থাকায় বাকী ৪টি দোকান অনুমোদ নিতে পারছে না।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com