বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০২:১৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে মেয়াদোর্ত্তীণ ঔষধের রমরমা ব্যবসা

মাধবপুরে মেয়াদোর্ত্তীণ ঔষধের রমরমা ব্যবসা

মাধবপুর প্রতিনিধি ॥ মাধবপুরে দীর্ঘদিন ধরে লাইসেন্সবিহীন ঔষধের দোকানে মেয়াদোত্তীর্ণ ও নি¤œমানের ঔষধ বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভেজাল নি¤œমানের ঔষধে রোগীর জীবন রক্ষার পরিবর্তে জীবন ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। অনুমোদনবিহীন ঔষধের দোকনের বিরুদ্ধে অজ্ঞাত কারনে ব্যবস্থা নিচ্ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। অধিক লাভজনক হওয়ায় ফার্মাসিষ্ট ও ড্রাগ লাইসেন্সের অনুমোতি ছাড়াই ঔষধ ব্যবসাতে ঝুঁকে পড়ছে নামমাত্র শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন ব্যক্তিরা। উপজেলা সদরসহ বিভিন্ন হাট বাজারে, অলি-গলিতে ব্যাঙের ছাতার গড়ে ওঠছে ঔষদের দোকান। ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ৩ লাখ জনগনের এ উপজেলাতে অর্ধ সহ¯্রাধিক ঔষধের দোকান রয়েছে। ঔষধ প্রশাসনের নীতিমালার তোয়াক্কা না করে শুধুমাত্র ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে উপজেলা সদর পৌর শহরের অলিগলিতে এবং বিভিন্ন হাট বাজারে করে আসছে রমরমা ঔষধের ব্যবসা। কোন কোন হাট বাজারের ঔষধ ব্যবসায়ীদের স্থানীয় পরিষদের ট্রেড লাইসেন্সও নেই। এসব ফার্মেসীতে চিকিৎকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়াই উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন এ্যান্টিবায়োটিক, লাইসেন্স বাতিল হওয়া কোম্পানীগুলোর ঔষধ, পেনিসিলিন, সেফালোসপোরিন, ক্যান্সার ও জন্মনিয়ন্ত্রন ও যৌনক্ষমতা বৃদ্ধির নি¤œমানের ঔষধগুলো বিক্রি হচ্ছে। সেই দোকানগুলোতে নেই কোন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ফার্মাসিস্ট। ফলে ঔষধের বিরূপ প্রতিক্রিয়ায় রোগ নিরাময়ের পরিবর্তে আরও জটিল রোগের সৃষ্টি হচ্ছে। কোন কোন ক্ষেত্রে ফার্মাসিষ্ট দ্বারা চিকিৎসা করতে আসা রোগী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঔষধ ব্যবসায়ী জানান-লাইসেন্স করতে সরকারী নির্ধারিত ফি’র বাইরে ঘুনতে হয় বাড়তি অর্থ। তাছাড়া অবৈধ ফার্মেসীর বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার পূর্বেই খবর চলে আসে ব্যবসায়ীদের কাছে। ড্রাগ ইন্সপেক্টররা যে দিন অভিযানে নামেন সেই দিন ফার্মেসী বন্ধ করে চলে যায় অধিকাংশ ব্যবসায়ীরা। ড্রাগ নিয়ন্ত্রন অধ্যাদেশ ১৯৮২ এর ৪(১৩) ধারায় ফার্মাসিস্টদের নিয়োগ’ শিরোনামের ২নং ধারায় উল্লেখ আছে কোন খুচরা ঔষধ বিক্রেতা বাংলাদেশ ফার্মেসী কাউন্সিলের কোন রেজিষ্টারের রেজিস্ট্রিভুক্ত ফার্মাসিস্টদের তত্ত্বাবধান ব্যতিরেকে কোন ড্রাগ বিক্রি করতে পারবে না। কিন্তু উল্লেখিত বিধিমালা উপেক্ষা করে প্রশিক্ষিত ফার্মাসিস্ট ছাড়াই অধিকাংশ দোকানে ঔষধ বিক্রি হচ্ছে। মাধবপুর কেমিষ্ট এন্ড ড্রাগিষ্ট সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাজল রায় জানান-উপজেলা সদর বাজারে ৭৭টি ফার্মেসী রয়েছে, তন্মধ্যে ৭৩টির ব্যবসায়ীক বৈধ কাজগপত্র আছে দাবী করে তিনি আরো জানান ড্রাগ এবং ফার্মাসিস্ট অনুমোদ বন্ধ থাকায় বাকী ৪টি দোকান অনুমোদ নিতে পারছে না।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com