সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:২০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগস্ট মাস আসলেই মনে দাগ কাটে-মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পইলে ৭৭টি গরু কুরবানী বাড়িয়ে দিল ঈদের আনন্দ নবীগঞ্জ অপহরণের ৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী মাধবপুরে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত এরশাদ আলী গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে ছেলে ধরা সন্দেহে এক ডাকাতকে গণধোলাই হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ বনাম জেলা খেলোয়ার কল্যাণ সমিতির মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্ট কাশ্মিরী মুসলমানদের অধিকার অবিলম্বে ফিরিয়ে দিন ॥ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ জ্যোতির্বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. দীপেন ভট্টাচার্য্যরে ॥ বক্তৃতা শুনে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহ বেড়েছে হবিগঞ্জের শিক্ষার্থীদের ধুলিয়াখাল-মাহমুদপুর বাইপাস সড়ক টমটম চুরির অভিযোগে যুবক আটক হবিগঞ্জে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির রক্তদান কর্মসূচী ও শোক সভা
মাধবপুর সীমান্ত দিয়ে আসছে ভারতীয় মাদক ধ্বংসের পথে যুব সমাজ

মাধবপুর সীমান্ত দিয়ে আসছে ভারতীয় মাদক ধ্বংসের পথে যুব সমাজ

আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে ॥ মাধবপুর উপজেলার ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করছে লাখ লাখ টাকার মাদক। আর এ মাদকের ভয়াল থাবায় ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে দেশের সম্ভাবনাময় যুব সমাজ। উপজেলার ধর্মঘর, চৌমুহনী, বহরা ও শাহজাহানপুর ইউনিয়ন ভারতীয় সীমান্ত ঘেষা হওয়ায় ওইসব ইউনিয়নের রাজেন্দ্রপুর, চকরাজেন্দ্রপুর, নিজনগর, মোহনপুর, আলীনগর, কালিকাপুর, দেবপুর, কালিকৃষ্ণনগর, রাজনগর, হরিণখোলা, কমলপুর, রামনগর, শ্রীধরপুর, ভান্ডারুয়া, নোয়াগাঁও, লোহাইদ, জালুয়াবাদ গ্রাম সহ তেলিয়াপাড়া চা বাগান এলাকা দিয়ে কয়েকটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট প্রতি রাতেই বিশাল বিশাল মাদকের চালান দেশে প্রবেশ করিয়ে রাজধানী ঢাকা, সিলেট, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, ভৈরব, নরসিংদী, কিশোরগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ ও পার্শ্ববর্তী জেলা শহরগুলোতে এ চালান অতি সহজে সরবরাহ করা হচ্ছে। আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো কোনো সদস্য ও কর্মকর্তার যোগসাজসে মাদক পাচারকারী সিন্ডিকেট অতি সহজে কার, প্রাইভেটকার, হায়েছ, মাইক্রোবাস সহ বিভিন্ন যানবাহনে লোড করে চালান পৌঁছে দিচ্ছে। নিরাপদ রোড হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে হরষপুর-চান্দুরা রোড, বড়জলা-চেঙ্গারবাজার-চান্দুরা রোড, নয়নপুর-চেঙ্গারবাজার-চান্দুরা রোড, শাহপুর-তেমুনিয়া রোড, শ্রীধরপুর-শাহপুর-তেমুনিয়া, শ্র্রীধরপুর-মনতলা-সাতবর্গ রোড, রামনগর-মনতলা-সাতবর্গ রোড, নয়নপুর-কালিকাপুর-সাতবর্গ রোডগুলোকে নিরাপদ রোড হিসেবে ব্যবহার করছে পাচারকারীচক্র। পাচারে ব্যবহার করা হচ্ছে স্কুল কলেজের ছাত্র-ছাত্রী সহ উঠতি বয়সের যুব সমাজকে। মাঝে মধ্যে পাচার কাজে ব্যবহৃতরাই ধরা পড়ছে। যারা মূল হোতা তারা সব সময়ই রয়ে যাচ্ছে অধরা। মাদকের মধ্যে রয়েছে ফেনসিডিল, ভারতীয় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মদ, গাঁজা, বিয়ার, নেশাজাতীয় ট্যাবলেট, ইনজেকশন সহ যৌন উত্তেজক ঔষধ। আর এসব মাদক এলাকায় সহজলভ্য হওয়ায় সম্ভাবনাময় যুব সমাজ আসক্ত হচ্ছে মাদকে। যা দেশের ভবিষ্যত উন্নয়নকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। ওইসব গ্রামগুলোতে সরজমিনে হেঁটে গেলে মাদকের খালি প্যাকেট, ঠুঙ্গা ও বোতল যেভাবে দৃষ্টিগোচর হয় তা অবশ্যই দেশের ও জনসাধারণের জন্য সুসংবাদ নয়। এতে করে অভিভাবক মহল তাদের উঠতি বয়সী ছেলে মেয়েদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। পুরষ্কারপ্রাপ্ত সাবেক সেনা সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক মধু সহ নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকেই এই নেশাদ্রব্যের ভয়াল ছোবলের বর্ণনা দিয়ে বলেন, জরুরী ভিত্তিতে এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নিলে শুধু যুব সমাজ নয় দেশই ধ্বংসের দিকে ধাবিত হবে। মাদকের প্রসার যত বৃদ্ধি পাচ্ছে চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, রাহাজানি ততই বাড়ছে বলে মত প্রকাশ করেন তারা। তারা আরো জানান, যৌন উত্তেজক ট্যাবলেট নেশা জাতীয় দ্রব্য মদ, গাঁজা, ফেনসিডিলের অর্থ যোগাড় করতে ইতিমধ্যেই উঠতি বয়সের যুবকরা অন্ধকার পথে পা বাড়িয়ে দিতে শুরু করেছে। তারা কোমল পানীয়ের মতই সেবন করছে মাদক। কেউ টাইগার স্পীড এর বোতলে ভরে মদ আবার কেউ সিগারেটে সেবন করছে গাঁজা। তা যেন নিত্য দিনের ঘটনা। যা জরুরী ভিত্তিতে চিরুনী অভিযানের মাধ্যমে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রন করা অত্যাবশ্যকীয়। পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব সহ অন্যান্য আইন শৃংখলা বাহিনী মাঝে মধ্যে মাদকের ছোট ছোট চালান আটক করলেও বিশাল বিশাল চালানগুলো অধরাই রয়ে যাচ্ছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com