রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা ॥ পুত্রের হাতে পিতা খুন হবিগঞ্জে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ॥ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনই উত্তম পন্থা শহরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের সামন থেকে ১২ রোমিও আটক পরিবারের মুছলেখায় মুক্তি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে চুনারুঘাটের ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীর ঝগড়া প্রাণ গেল সবুর হোসেনের বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দিয়েছিল-এমপি মিলাদ গাজী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা গড়াই হোক জাতীয় শোক দিবসের অঙ্গীকার-এমপি মজিদ খান পইলে শহীদ এনাম স্মৃতি সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে বানিয়াচঙ্গে চেক ডিজঅনার মামলার সাজা প্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার
৩০ ঘন্টা বিদ্যুৎবিহীন হবিগঞ্জ ॥ কর্তৃপক্ষের অবহেলাকেই দায়ী করছে শহরবাসী

৩০ ঘন্টা বিদ্যুৎবিহীন হবিগঞ্জ ॥ কর্তৃপক্ষের অবহেলাকেই দায়ী করছে শহরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দু’দিনে প্রায় ৩০ ঘন্টা বিদ্যুৎবিহীন ছিল হবিগঞ্জ জেলা সদর। এতে মারাত্মক দুর্ভোগে পড়তে হয় শহরবাসীকে। আকাশের চোখ রাঙানী আর সামান্য বাতাস এলেই বিদ্যুৎ চলে যায়। সোমবার ও মঙ্গলবার দু’দিনই রাতে জেলা শহরবাসীকে অন্ধকারে থাকতে হয়। গতকাল বুধবার দুপুর পর্যন্ত বিদ্যুৎ ছিলনা। দুপুরে পর শহরের কোন কোন এলাকায় যে কিছু সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ করলেও বার বার থেলে লুকোছুড়ি খেলা। বিদ্যুতের এমন ভেলকিবাজিতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন সাধারণ গ্রাহকরা।
সোমবার রাত ১০টায় বৃষ্টি শুরু হওয়ার সাথে সাথেই বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ আসে মঙ্গলবার বেলা ২টায়। তাও ছিলনা ভোল্টেজ। বিকেল ৩টায় পূর্ণ ভোল্টেজ পেলেও বিকেল ৪টায় আবারও বিদ্যুৎ চলে যায়। আধাঘন্টা পর সাড়ে ৪টায় বিদ্যুৎ আসে। সন্ধ্যার পর আবার শুরু ভেলকীবাজি। রাত ১২টায় বৃষ্টি শুরুর সাথে বিদ্যুতের তারে পানি লেগে যায়। চলে যায় বিদ্যুৎ। কারণ জানতে অভিযোগ কেন্দ্রের ল্যান্ড ফোনে কল করলে কেউ রিসিভ করেনি। পুনরায় ফোন করে দেখা যায় রিসিভার উঠানো। ফলে বিদ্যুৎ চলে যাবার কারন টুকুও জানা যায়নি। আর নির্বাহী প্রকৌশলীর মোবাইল ফোন তো বন্ধই থাকে। অনেক সময় রিং হলেও রিসিভ করার সময় নেই। খোজ নিয়ে জানা গেছে তিনি অফিস করেন সপ্তাহে ২/৩দিন। বাদী দিন থাকেন ষ্টেনের বাহিরে। এদিকে মঙ্গলবার রাত ১২ টায় বিদ্যুৎ চলে যাবার দীর্ঘ ১২ ঘন্টা পর গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। তাও পুরো শহর নয়। এর পর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কয়েক দফা আসা যাওয়ার খেলা খেলে বিদ্যুৎ। সন্ধ্যার পর শহরের বৃহতাংশ আবার অন্ধকারে ঢুবে যায়। তখন ফোন বন্ধ বন্ধ করে ঘুমুচ্ছেন নির্বাহী প্রকৌশলী। রাত ৯টার দিকে কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হলেও রাত পৌণে বার টার দিকে পুরো শহরে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়।
বিদ্যুতের এমন ভেলকিবাজীতে শহরবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছেন। বিদ্যুৎ না থাকার কারণে সরকারি, বেসরকারি অফিস, হাসপাতালসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হয়। হাসপাতালে রোগীদের চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়। মোম জ্বালিয়ে চিকিৎসা দিতে হয় ডাক্তারদের। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে মোমবাতি জ্বালিয়ে ক্লাস নিতে হয় শিক্ষকদের। বাসাবাড়িতে খাবার পানির তীব্র সংকট দেখা দেয়। বিদ্যুতের ভেলকীবাজির কারণে অনেকের ফ্রিজ-টিভিসহ ইলেক্ট্রিক সামগ্রী নষ্ট হয়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণ চায় শহরবাসী। অনেকের মতে, বিদ্যুৎ বিভাগের লোকজনের গাফিলতির কারণেই শহরবাসীকে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে হয়তো শহরবাসীর ধৈর্যের বাধ ভেঙ্গে যেতে পারে। এর আগেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা গ্রহণ প্রয়োজন বলে সচেতন মহলের দাবী।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com