রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:২৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
আগস্ট মাস আসলেই মনে দাগ কাটে-মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ পইলে ৭৭টি গরু কুরবানী বাড়িয়ে দিল ঈদের আনন্দ নবীগঞ্জ অপহরণের ৭ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী মাধবপুরে মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত দুর্ধর্ষ ডাকাত এরশাদ আলী গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে ছেলে ধরা সন্দেহে এক ডাকাতকে গণধোলাই হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ বনাম জেলা খেলোয়ার কল্যাণ সমিতির মধ্যে ফুটবল টুর্নামেন্ট কাশ্মিরী মুসলমানদের অধিকার অবিলম্বে ফিরিয়ে দিন ॥ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত সমন্বয় পরিষদ জ্যোতির্বিজ্ঞানী অধ্যাপক ড. দীপেন ভট্টাচার্য্যরে ॥ বক্তৃতা শুনে বিজ্ঞান চর্চায় আগ্রহ বেড়েছে হবিগঞ্জের শিক্ষার্থীদের ধুলিয়াখাল-মাহমুদপুর বাইপাস সড়ক টমটম চুরির অভিযোগে যুবক আটক হবিগঞ্জে রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির রক্তদান কর্মসূচী ও শোক সভা
মানবতা বিরোধী অপরাধ ॥ মুরাদপুর ইউপি চেয়ারম্যান মধু মিয়ার বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন

মানবতা বিরোধী অপরাধ ॥ মুরাদপুর ইউপি চেয়ারম্যান মধু মিয়ার বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন

এক্সপ্রেস রিপোর্ট ॥ একাত্তরের মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে বানিয়াচঙ্গের মধু মিয়া তালুকদার ওরফে মধু মিয়া (৬৬) এর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। মধু মিয়া বানিয়াচং উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও বিএনপির সমর্থক। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন। তবে মামলার অপর আসামি পলাতক থাকায় তার নাম প্রকাশ করেনি তদন্ত সংস্থা।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে ধানমণ্ডিতে তদন্ত সংস্থার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করে তদন্ত প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। পরে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন শাখায় সেটা জমা দেয়া হবে।
এর আগে ১২ নভেম্বর ট্রাইব্যুনালে মামলার তদন্তের অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু তদন্ত সম্পন্ন করতে আরো দুই মাস সময় প্রয়োজন বলে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।
এর ওপর শুনানি শেষে তা মঞ্জুর করেন বিচারপতি আমির হোসেনের নেতৃত্বে দুই সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।
ট্রাইব্যুনালে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন। এই মামলার তদন্ত করছেন ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কর্মকর্তা এএসপি নূর হোসেন।
মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাকিস্তানি হানাদারদের হয়ে বানিয়াচং উপজেলায় মানবতা বিরোধী অপরাধ সংঘটনের অভিযোগ রয়েছে মধু মিয়া তালুকদারের বিরুদ্ধে। গত বছরের ২৩ মে তার বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। পুলিশ ওই দিনই তাকে গ্রেফতার করে।
তদন্ত সংস্থা সূত্রে জানা যায়, মধু মিয়া ১৯৭১ সালে ‘মধু বাহিনী’ নামে রাজাকার বাহিনী গড়ে তুলে বহু হিন্দু লোককে হত্যা করেন। স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালে উপজেলার বিথঙ্গল গ্রামের বাসিন্দা প্রমোদ রায়, আরাধন সরকার ও আদম আলীকে নির্মমভাবে হত্যা, একাধিক নারী অপহরণ-ধর্ষণসহ মুক্তিকামী অসংখ্য সাধারণ নারী-পুরুষের ওপর নির্মম নির্যাতন চালায় এ বাহিনী।
ফলে এসব নিহতের স্বজনরা রাজাকার কমান্ডার মধু ও তার সহযোগীদের বিচার চেয়ে ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কাছে অভিযোগ দাখিল করে।
পরবর্তী সময়ে তদন্ত সংস্থার প্রধান সমন্বয়ক আবদুল হান্নান খানের নির্দেশে ওই সব ঘটনার তদন্ত শুরু হয়। তদন্তে মধু বাহিনীর প্রধান মধুসহ তাঁর লোকজন কর্তৃক নানা মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটিত করার প্রাথমিক সত্যতা মেলে।
মামলার তদন্তের স্বার্থে গত বছরের ২৩ মে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করলে তা মঞ্জুর করেন ট্রাইব্যুনাল। ওই দিনই পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com