রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০২:৪১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
চুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট দুলন গ্রেফতার ॥ এলাকায় উল্লাস, মিষ্টি বিতরণ শহরের চাঞ্চাল্যকর মা ও মেয়েকে হত্যার দায়ে তাজুল গ্রেফতার হবিগঞ্জে কনফারেন্সে ড. বোরহান উদ্দিন ॥ ভারত উপমহাদেশে আ’লা হযরত ছিলেন আশির্বাদ স্বরূপ বাহুবলে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক ও হেলপার নিহত খেলাধূলার উন্নয়নে আন্তরিকতা অব্যাহত থাকবে-এমপি আবু জাহির বাহুবলে ৭ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতি হবিগঞ্জ জেলা শাখার বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত ঈদে মিলাদুন্নবী (দঃ) উপলক্ষে বিশেষ পরামর্শ সভা অনুষ্টিত বানিয়াচঙ্গের এক গৃহবধূ সাপের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে বাইপাস সড়কে অবৈধভাবে আবারো জায়গা দখল চলছে
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী জি কে গউছ ॥ হবিগঞ্জে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসন ব্যর্থ

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী জি কে গউছ ॥ হবিগঞ্জে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসন ব্যর্থ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ-৩ আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী এবং বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছ বলেছেন, হবিগঞ্জে সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করতে নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসন ব্যর্থ হয়েছে। এখনও স্থানীয় এমপি ও নৌকার প্রার্থী মোঃ আবু জাহির পুলিশ প্রটোকল নিয়ে নির্বাচনী মাঠে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, কোন মামলা ও গ্রেফতারী পরোয়ানা ছাড়াই পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে। বিএনপির নির্বাচনী সভাগুলোতে গোয়েন্দা পুলিশ গিয়ে বক্তাদের নাম ও ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করছে। এতে সাধারণ মানুষের মধ্যে ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরী হচ্ছে। এসব বিষয়ে লিখিতভাবে হবিগঞ্জের রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসককে অবহিত করা হলেও কার্যত কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। প্রশাসনের নিকট থেকে আমরা ন্যায় বিচার পাচ্ছি না। এমতাবস্থায় হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জে সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশ ব্যাহত হলে দায়ভার প্রশাসনকেই নিতে হবে। তিনি গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিএনপির কার্যালয়ে তাৎক্ষনিক এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।
বিভিন্ন অভিযোগ উত্তাপন করে জি কে গউছ বলেন- বাংলাদেশে এই প্রথম কোন দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বিএনপি দেশের গণতন্ত্র ও মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার আন্দোলনের অংশ হিসেবেই এই নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশে দলীয় সরকারের অধীনে কোন সুষ্ঠ নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনা নেই, যার প্রমাণ আওয়ামীলীগ সরকারের আজ্ঞাবহ নির্বাচন কমিশন ও স্থানীয় প্রশাসনের কার্যকলাপে পরিলক্ষিত হচ্ছে। তবে এসব অপকর্মে সাধারণ মানুষ বিক্ষুব্দ হয়ে উঠছে। ভোটাররা আগামী ৩০ তারিখ ব্যালটের মাধ্যমে এসব অপকর্মের জবাব দিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে।
জি কে গউছ বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর কাউকে প্রেফতার করা হবে না মর্মে প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন। রাজনৈতিক মামলায় কাউকে গ্রেফতার না করতে পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। কিন্তু হবিগঞ্জের অতিউৎসাহি পুলিশ কোন মামলা ছাড়াই বিএনপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করছে। গ্রেফতার হওয়া নেতাকর্মীদের আদালতে জামিন হলেও জেলগেইটে আবারও ডিবি পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। পরে পুরনো মামলায় তাদের গ্রেফতার দেখানো হচ্ছে। পুলিশের এমন আচরণ সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। প্রশাসনের এমন আচরণ প্রমাণ করছে, তারা সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশ বজায় রাখতে চায় না।
প্রশাসনের সহযোগীতা কামনা করে জি কে গউছ বলেন, নৌকার পক্ষের লোকজন তাদের নিজেদের অফিসে আগুন দিয়ে, মাইক ভাংচুর করে, পোস্টার ছিড়ে বিএনপির লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হবে, এমন ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। সুষ্ঠ নির্বাচনের পরিবেশ বজায় রাখতে হলে এসব অপকর্ম যারা করতে চাচ্ছে তাদেরকে নিভৃত করতে হবে। পুলিশ প্রশাসন এই বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করবে বলে আমরা প্রত্যাশা করছি।
প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে জি কে গউছ বলেন, দি রোজেস স্কুলের সভাপতি হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক। অথচ এই স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ইসমত আরা জলি ও সহকারী শিক্ষিকাগণ নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালাচ্ছেন। কিন্তু আশ্চর্য্যরে বিষয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। আমরা প্রত্যাশা করছি, প্রশাসন এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহন করবে।
তিনি বলেন, কোন মামলার আসামী না হওয়া সত্ত্বেও লাখাই উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি হাবিবুল্লাহ বাহার, সাংগঠনিক সম্পাদক শামছুদ্দিন আহমেদ, লাখাই উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা এস আর তালুকদার শাহানুর, লাখাই উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক তাউছ আহমেদ, লাখাই ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, যুবদল নেতা শফিকুল ইসলাম, বাদশা মিয়া, রিপন মিয়া, ব্রাহ্মণডোরা ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক আবু তাহের, বারিক মিয়া, ইলিয়াছ মিয়া, সারওয়ার আলম পলাশকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদেরকে আদালত জামিন দিলেও জেলগেইটে আবারও ডিবি পুলিশ গ্রেফতার করে অন্য মামলায় কারাগারে প্রেরণ করছে। বিএনপি প্রত্যাশা করে, পুলিশ নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবে এবং একটি শান্তিপূর্ণ সুষ্ঠ নির্বাচন করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।
সংসাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এডঃ মঞ্জুর উদ্দিন শাহিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম ইসলাম তরফদার তনু, মিজানুর রহমান চৌধুরী, এডঃ হাজী নুরুল ইসলাম, গোলাম মোস্তাফা রফিক, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী বেলাল, হবিগঞ্জ পৌর বিএনপির আহ্বায়ক আবুল হাশিম, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল ইসলাম নানু, লাখাই উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ তালুকদার আব্দাল, সদর উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আজিজুর রহমান কাজল, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক জালাল আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বাবুল, জেলা ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক তাজুল ইসলাম চৌধুরী ফরিদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুশফিক আহমেদ, সহ-সভাপতি জহিরুল হক শরীফ, জেলা জাসাসের সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি এমদাদুল হক ইমরান, সাধারণ সম্পাদক রুবেল আহমেদ চৌধুরী, জেলা মৎস্যজীবি দলের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ, বিএনপি নেতা আব্দুল হান্নান ফরিদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com