বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

অশ্র“সিক্ত নয়নে মেয়র পদ ছাড়লেন জি কে গউছ

অশ্র“সিক্ত নয়নে মেয়র পদ ছাড়লেন জি কে গউছ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অশ্র“সিক্ত নয়নে পৌরসভার মেয়রের পদ ছাড়লেন আলহাজ্ব জি কে গউছ। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হবিগঞ্জ-৩ আসনে বিএনপির প্রার্থী হওয়ায় তিনি গতকাল বুধবার দুপুরে মেয়রের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ২০০৪ সাল থেকে টানা ৩ বার মেয়র নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করছিলেন জি কে গউছ। দীর্ঘ দিনের কর্মস্থল থেকে বিদায় নেয়ার সময় এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে ছুটে আসেন পৌর এলাকার বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ। এ সময় তিনি পৌরসভার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কাউন্সিলরদের সাথে পৃথক পৃথক মতবিনিময় সভা ও কুশল বিনিময় করেন। শেষ কর্মদিবসে স্বাক্ষর করেছেন অসংখ্য ফাইলে। পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে বিদায়ী বক্তব্যে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীরাও ডুকড়ে ডুকড়ে কেদেছেন।
বিদায়ী বক্তব্যে জি কে গউছ তার দায়িত্বকালে দীর্ঘ সময় কারাগারে কাটানোর স্মৃতিচারণ করে অনেক অসম্পূর্ণ কাজ না করতে পারার আক্ষেপ করেন। তিনি বলেন, যদি আরও বড় পরিসরে কাজ করার সুযোগ পাই তবে পৌরসভায় দায়িত্বপ্রাপ্তদের কোন কিছুতে হস্তক্ষেপ করবো না। উপরন্তু তাদের সর্বাত্বক সহযোগিতা করবেন বলে তিনি প্রতিজ্ঞা করেন। পৌর এলাকার উন্নয়নে তাঁর অসম্পূর্ণ কাজগুলো সম্পন্ন করবেন দ্রুততম সময়ের মধ্যে। সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলে এক বছরের মধ্যেই পৌরসভার ডাম্পিং সমস্যা সমাধান করা হবে এবং একটি ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণ করবেন।
জি কে গউছ বলেন, জীবন যেখানে ক্ষণস্থায়ী সেখানে ক্ষমতা চিরস্থায়ী হতে পারে না। জনসেবাকে ইবাদত মনে করেই ২০০৪ সালে হবিগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচনে অংশ নিয়ে নির্বাচিত হয়েছিলাম। সেই থেকে প্রায় ১৪ বছর এই পৌরসভার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কাউন্সিলরদের নিয়ে পৌরবাসীর সেবায় কাজ করেছি। এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে দূর্নীতির সাথে কোন দিন আপোষ করিনি। পৌরসভায় দায়িত্ব পালনকালে কোন দিন দলের পরিচয় বহন করিনি। কোন ধর্মীয় গন্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিলাম না। সকল ধর্মের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করেছি। সর্বদা চেষ্টা করেছি হবিগঞ্জের মানুষকে উন্নত সেবা দেয়ার। রাজনৈতিক প্রতিকূল অবস্থার কারনে প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করতে পারিনি। বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের কারণে আমাকে বারবার কারাগারে যেতে হয়েছে। এতে পৌরসভার উন্নয়ন কর্মকান্ড থমকে যেতো। কারামুক্ত হয়ে আবার নতুন করে শুরু করতাম।
আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েই হবিগঞ্জ পৌরসভায় প্রথম মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেয়ার রীতি চালু করেছি, পৌরসভার পক্ষ থেকে পবিত্র হজ্ব ও ওমরা পালনকারীদের প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যবস্থা করেছি, দরিদ্র পরিবারের সন্তানদের সুন্নতে খৎনা করার ব্যবস্থা করেছি, গণবিয়ের প্রচলন করেছি, কৃতি ছাত্র/ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের সংবর্ধনা দেয়ার রীতি চালু করেছি, বৈশাখী মেলা, বই মেলা, কর মেলা, পিঠা উৎসব অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করেছি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com