সংবাদ শিরোনাম : 

 **  মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে সরকার আন্তরিক-এমপি আবু জাহির **  সদর হাসপাতালে লাশ রেখে স্বজনদের পলায়ন **  বিশ্ব ধরিত্রী দিবস পালন কলকারখানার বর্জ্য বন্ধ ও ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপুরণ দাবি **  মাধবপুরে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার **  চুনারুঘাটে হক শাহ মৌলা (র:) এর মাজার জিয়ারত করেছেন মৌলভীবাজারের সংসদ সদস্য **  বহু প্রেমিকায় আসক্ত উজ্জল প্রেমের বলি ॥ লাখাইয়ে বাবাসহ প্রেমিকা আটক ॥ হত্যার দায় স্বীকার ॥ ২ মাস পর হাওড় থেকে লাশ উদ্ধার **  নুসরাত হত্যার বিচারের দাবিতে হবিগঞ্জ পূজা উদযাপন পরিষদের মানববন্ধন **  সাতছড়ি জঙ্গল থেকে আগুনে পোড়া বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার **  বানিয়াচংয়ে হত্যা মামলার বাদীকে এক ঘরে ॥ ভুক্তভোগী পরিবারের পাশে প্রশাসন ॥ ভবিষ্যতে এমন রায় না দেয়ার অঙ্গিকার গ্রাম্য মাতব্বরের ॥ মুচলেখায় মুক্ত **  ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন এমপি আবু জাহির **  আজ পবিত্র শব-ই বরাত **  শহরের কামড়াপুর পয়েন্টে নিউ আধুনিক ট্রেডার্সের শুভ উদ্বোধন **  নবীগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড় ও শিলা বৃষ্টিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি গাছপালা ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড **  হবিগঞ্জ জেলা ইসলামী যুব আন্দোলনের সম্মেলন সম্পন্ন

চুনারুঘাটে বৃদ্ধা হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন করেছে পিবিআই দুই নাতির বিরুদ্ধে চার্জশীট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চুনারুঘাটের কাজীর খিল বাজার। যে বাজারে ছাপড়া ও দু’চালা টিনের ঘর ছাড়া কোন পাকা সিড়ি বা দালান ঘর নেই। আর সেই বাজারের সিড়ি দিয়ে নামার সময় পড়ে গিয়ে ৮০ বছরের বৃদ্ধার কোমড় ভেঙ্গে গেছে বলে তদন্ত প্রতিবেদন দিয়ে একটি হত্যার ঘটনাকে চাপা দেয়ার অপচেষ্ঠা করা হয়েছে। একজন গোয়েন্দা পুলিশ কর্মকর্তা এমন রিপোর্ট দেয়ার পর বাদীর নারাজির প্রেক্ষিতে পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো (পিবিআই) তদন্ত করে হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে। গতকাল নানীকে হত্যার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় দু’নাতির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। পিবিআই তদন্ত কর্মকর্তা (ইন্সপেক্টর) মোঃ হেলালুল ইসলাম আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।
চার্জশীট ও মামলার সূত্রে জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার ঘরগাও গ্রামে ৬শতক জায়গা নিয়ে ৮০ বছরের বৃদ্ধা কলম চান এর সাথে তার সতীনের ছেলের আব্দুল হক ও মেয়ে রাহেলা বেগমের বিরোধ চলে আসছিল। ২০১৫ সনের ১০ মে কলম চান ওই ৬ শতক জমি হেবা দলিলের মাধ্যমে তার মেয়ের সন্তান (নাতনী) সুফিয়া খাতুনকে দিয়ে দেন। এতে সতীন পক্ষের ছেলে-মেয়ের সাথে বিরোধ বাড়তে থাকে। গত ২০১৬ সনের ১ অক্টোবর সকাল ১০ টার দিকে কলম চান বাড়ির পার্শ্ববর্তী ওই জমিতে শাক তুলতে গেলে সতীনের মেয়ে রাহেলা বেগমের পুত্র মোঃ জুয়েল মিয়া (২২) এবং ছেলের আব্দুল হকের পুত্র মোঃ লায়েছ মিয়া (২০) বাধা দেয়। কিন্তু তাদের বাধা উপেক্ষা করে শাক তুলতে থাকলে এরা নানী কলম চানকে কিল, ঘুষি, লাথি মারতে থাকে। এক পর্যায়ে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দিলে বৃদ্ধার কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। কলম চানের সুরচিৎকার শুনে তার নাতীন জামাই মোঃ আলী আকবর সহ অন্যান্যরা এগিয়ে গিয়ে আহত অবস্থায় কলম চানকে উদ্ধার করে চুনারুঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে চিকিৎসাধিন অবস্থায় ঘটনার ২০ দিন পর ২০ অক্টোবর কলম চান মারা যান।
এ ঘটনায় কলম চানের নাতীন জামাই মোঃ আলী আকবর বাদী হয়ে চুনারুঘাট থানায় কলম চানের সৎ মেয়ে রাহেলা বেগমের পুত্র মোঃ জুয়েল মিয়া (২২) এবং সৎ ছেলে আব্দুল হকের পুত্র মোঃ লায়েছ মিয়া (২০)কে অভিযুক্ত করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।
চুনারুঘাট থানার এসআই সেলিম হোসেন উক্ত মামলা তদন্ত করেন। ৩ মাস ১৮ দিন তদন্তে মামলার ঘটনাটি মিথ্যা উল্লেখ করে ২০১৭ সনের ১৮ জুলাই আদালতে চুড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করেন। এতে বাদীর নারাজির প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে ডিবির ওসি মোঃ হোসাইন খান মামলাটি পুনরায় তদন্ত করেন। প্রায় সাড়ে ৩ মাস তদন্তে অভিযোগের ঘটনাটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় তিনি ২০১৮ সনের ১৪ জানুয়ারী ঘটনাটি মিথ্যা উল্লেখ করে আদালতে পুনঃরায় চুড়ান্ত রিপোর্ট প্রদান করেন। চার্জশীটে তিনি উল্লেখ করেন, কাজির খিল বাজারে সিড়ি দিয়ে নামার সময় কলম চান পড়ে গেলে তার কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। উক্ত চার্জশীটের উপর বাদী আলী আকবর আদালতে নারাজি প্রদান করলে আদালত মামলাটি পুনঃরায় তদন্তের জন্য পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো (পিবিআই) হবিগঞ্জকে নির্দেশ প্রদান করেন।
পুলিশ ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো (পিবিআই) হবিগঞ্জের ইন্সপেক্টর মোঃ হেলালুল ইসলামকে চলতি বছরের ৪ জুন মামলাটি পুনঃরায় তদন্ত করার জন্য তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত করা হয়। তিনি প্রায় ৫ মাস তদন্ত করেন। দীর্ঘ তদন্তকালে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে চৌকস তদন্ত কর্মকর্তা মোঃ হেলালুল ইসলাম বৃদ্ধা কলম চানকে হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হন। স্বাক্ষী প্রমাণের ভিত্তিতে আরজি বর্ণিত জুয়েল মিয়া ও লায়েছ মিয়াকে অভিযুক্ত করে মোঃ হেলালুল ইসলাম গতকাল ৬ নভেম্বর বিচারিক আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন।
মোঃ হেলালুল ইসলাম দাখিলকৃত চার্জশীটে উল্লেখ করেন, কলম চানের নামে ৬ শতক আবাদী জমি হেবা দলিল (নং৪১৩৩/১৫) দলিলের মাধ্যমে তার নাতনী সুফিয়া খানকে দিয়ে দেন। কিন্তু আসামী জুয়েল ও লায়েছ উক্ত জমি দখলের নেয়ার চেষ্টা চালায়। ঘটনার দিন গত ২০১৬ সনের ১ অক্টোবর সকাল ১০ টার দিকে কলম চান বাড়ির পার্শ্ববর্তী ওই জমিতে শাক তুলতে গেলে জুয়েল লায়েছ বাধা দেয়। কিন্তু তাদের বাধা উপেক্ষা করে শাক তুলতে থাকলে এরা তাকে কিল, ঘুষি, লাতি মারতে থাকে। এক পর্যায়ে ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দিলে বৃদ্ধার কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। উক্ত জখমের কারণে কলম চান শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন। এতে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে পচন ধরে। পরবর্তীতে ঘটনার ২০ দিন পর ২০১৬ সনের ২০ অক্টোবর কলম চান মৃত্যু বরণ করেন।
মোঃ হেলালুল ইসলাম দাখিলকৃত চার্জশীটে আরো উল্লেখ করেন, পূর্বের তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ হোসাইন খান তার তদন্তে লিখেছেন, কাজির খিল বাজারের সিঁড়ি দিয়ে নামতে গিয়ে পড়ে কলম চানের কোমড়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। কিন্তু সরেজমিন তদন্তকালে কাজির খিল বাজারে ছাপড়া, দু’চালা টিনের দোকান ঘর ব্যতীত কোন পাকা সিড়ি বা দালান কোঠা পাওয়া যায়নি। যেখান থেকে পড়ে গিয়ে কলম চানের কোমড়ের হাড় ভাঙ্গতে পারে। যা মনগড়া তদন্ত বলে প্রকাশ পেয়েছে।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com