মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০২:০৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জের তরুণীকে মধ্যরাতে অপহরণ ॥ কমলগঞ্জের চা-বাগান থেকে উদ্ধার হবিগঞ্জ বিআরটিএ অফিসে জেলা প্রশাসকের ঝটিকা অভিযান ॥ দালালীর অভিযোগে আটক ৩ ২ জনকে জেল ও ১ জনকে জরিমানা জেলা সাংবাদিক ফোরামের অভিষেক অনুষ্টিত নবীগঞ্জে পানিউমদা ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন চৌধুরী বাজারে পেয়াজের মুল্য বেশি রাখার দায়ে দোকানীকে জরিমানা সন্ত্রাস দমনে পুলিশের করণীয় শীর্ষক সভা নবীগঞ্জে এমপি মিলাদ গাজীকে দারুল উলুম মাদ্রাসার বিশাল সংবর্ধনা ফুটবলার নোমানের দৃষ্টি হারানো চোখের চিকিৎসা করাতে এগিয়ে এলেন প্রবাসীরা সিলেট গণফোরামের নেতৃবৃন্দের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করলেন আবুল হোসেন জীবন উন্নয়নের স্বার্থে আয়কর প্রদানে সকলকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে-এমপি আবু জাহির
জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আতিকুর রহমানের পদত্যাগ

জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি আতিকুর রহমানের পদত্যাগ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি ॥ রাজনীতিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদের নাটকীয়তার কারণে হবিগঞ্জ জেলা জাপা’র সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন আলহাজ্ব আতিকুর রহমান আতিক। গতকাল দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেসে লিখিত বিবৃতিতে তিনি একথা জানান। হবিগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগ করার কারণ তিনি তার লিখিত পত্রে ব্যাখ্যা করেছেন। তিনি তার লিখিত পত্রে বলেন-
“জাতীয় পার্টির লাখ লাখ নেতা-কর্মীদের ত্যাগ ও মান সম্মানের কথা না ভেবে জাপা নেতা এরশাদ একেক সময় একেক ধরণের কথা ও সিদ্ধান্ত গ্রহন করে দলের ভবিষ্যৎকে অন্ধকারে ঠেলে দিয়েছেন এবং নেতা কর্মীদের জনগণের কাছে হেয়-প্রতিপন্ন করেছেন। বিগত নির্বাচনের পূর্বে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় যাওয়ার যে উজ্জল সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল তা নেতা এরশাদ নিজেই নষ্ট করে দিয়েছেন। বারবার কথা ও সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের কারনে জাপা নেতা এরশাদের উপর জনগণ আর আস্থা বিশ্বাস রাখতে পারছেনা। বিগত নির্বাচনের আগে ও পরে জাপা নেতা এরশাদ জনগণের নিকট দেয়া ওয়াদা তিনি রাখেননি। জনগণের কল্যানে দলের কোন কর্মসূচী নেই। শুধুমাত্র সরকারের দালালী ও তাবেদারী করে ক্ষমতার অংশীদার ও মন্ত্রীত্ব পাওয়াই যেন এখন দলের কিছু শীর্ষ নেতাদের কাজ। জাপা নেতা এরশাদ বিগত নির্বাচনের পূর্বে বলেছিলেন, সকল দলের অংশগ্রহণ না হলে নির্বাচন সুষ্ঠ হবে না, তাই নির্বাচনে যাবেন না। জাপা নেতা এরশাদ বলেছিলেন, নির্বাচনে গেলে মানুষ আমাকে বেঈমান বলবে, থুথু দেবে। এই কথা বলার পরও জাপা নেতা এরশাদ নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, গণতন্ত্র রক্ষায় নির্বাচনে আর কেউ না গেলে আমি একাই যাব। এ কথা বলার পর জনগণ সত্যি সত্যিই থুথু দিয়েছে, ঝাড়– মিছিল করেছে। জাপা নেতা এরশাদ বলেছিলেন, আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাব না। আওয়ামীলীগের সঙ্গে বেহেস্তেও যাব না। এখন আওয়ামীলীগের সঙ্গে তিনি সংসদেও যাচ্ছেন এবং প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিচ্ছেন। জাতীয় পার্টির শীর্ষ পর্যায় থেকে সর্বস্তরের দলীয় চেইন অব কমান্ড এখন ভেঙ্গে পড়েছে। ২১শে ফেব্র“য়ারী ’১৪ইং তারিখে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় জাপা নেতা এরশাদ নিজেই বলেছেন। জাপার ভবিষ্যত অন্ধকার। তাই ভবিষ্যত অন্ধকার জেনে লাখ লাখ নেতা-কর্মীদের ভবিষ্যত নষ্ঠ ও তাদেরকে হতাশায় ডুবিয়ে তাদের কষ্ট দেওয়ার কোন যুক্তি নাই। আতিক আরও বলেন যে, “আমি দীর্ঘ এক যুগেরও বেশী সময় ধরে সততা, নিষ্ঠার সাথে জাতীয় পার্টির একজন কর্মী হিসেবে কাজ করেছি। আমি সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়কারী হিসেবে বিগত বহু বছর ধরে জাতীয় পার্টিকে শক্তিশালী করার চেষ্টা করেছি। বিগত ২০১১ সালে টিপাইমুখ লংমার্চের আমি কনভেনার ছিলাম এবং লংমার্চ সফল করতে বিশেষ ভূমিকা রেখেছি। বিগত ৫ বৎসরের বেশী সময় ধরে আমি হবিগঞ্জ জেলা জাপার সভাপতি হিসাবে অর্থ, শ্রম, মেধা, শরীরে ঘাম ফেলে, রোদ-বৃষ্টি, ঝড় এবং নানা প্রতিকুলতার মোকাবেলা করে দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে জাতীয় পার্টিকে সু-সংগঠিত করার চেষ্টা করেছি। দলের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন গড়তে আন্তরিক সকল সহযোগীতা করেছি। বিগত নির্বাচনের পূর্বে নেতা কর্মীদের নিয়ে হবিগঞ্জ নিউ ফিল্ড ময়দানে ঐতিহাসিক মহা-সমাবেশের সকল আয়োজন করেছিলাম। আমার নির্বাচনী এলাকার প্রতিটি ইউনিয়নে বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচীর মাধ্যমে দলকে এবং তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের চাঙ্গা রাখার চেষ্টা করেছি। কিন্তু বিনিময়ে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নিকট থেকে আমি এবং হবিগঞ্জের আমাদের গ্রাম, ইউনিয়ন, উপজেলা, পৌরসভা ও জেলার ত্যাগী নেতা কর্মীরা সম্পূর্ণ বঞ্চিত হয়েছে। কোন প্রকার মূল্যায়ন পায় নাই”। বরং জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরা নিরবে অপমান সহ্য করেছে নেতা এরশাদ সাহেবের বিভিন্ন কর্মকান্ডে। এরশাদ সাহেব বলেছিলেন, সকল দলের অংশগ্রহণ না হলে নির্বাচন সুষ্ঠ হবে না, তাই নির্বাচনে যাবনা। নির্বাচনে গেলে মানুষ আমাকে বেঈমান বলবে, থুথু দেবে। এই কথা বলার পরও তিনি নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন। তারপর জনগণ সত্যি সত্যিই থুথু দিয়েছে, ঝাড়– মিছিল করেছে। তিনি বলেছিলেন, নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে যাব না। আওয়ামীলীগের সঙ্গে বেহেস্তেও যাব না। গণতন্ত্র রক্ষায় নির্বাচনে কেউ না গেলে আমি যাব। তারপর নির্বাচনে রওশন এরশাদ গেলেন। কিন্তু এরশাদ রওশন এরশাদ এর বিরুদ্ধে কোন দলীয় ব্যবস্থা নিলেন না। বরং সিএমএইচ হাসপাতালে থেকে গল্ফ খেলতে গেলেন। এসব নাটক দেশের জনগন দেখেছে। এরশাদ সাহেবের কথায় ১৮৪জন দলীয় প্রার্থী নির্বাচন বর্জন করেছে। অথচ যারা এমপি হয়েছে, তার কথার অবাধ্য হয়েছে, তাদেরকে তিনি ফুলের মালা দিয়ে দলে আসতে বললেন আর যারা ১৮৪জন নির্বাচন বর্জন করেছে তাদের সামনে মিটিং ডেকে এই কথা বলেছেন যেন তাদের “কাঁটা গায়ে লবন” দিলেন। তিনি বলেছিলেন এমপিদের শপথ না নিতে। কিন্তু তিনি নিজেই এমপি হিসাবে শপথ নিলেন। তিনি বলেছিলেন-নির্বাচন সুষ্ঠ হয় নাই, তাই আবার সকল দলের অংশগ্রহনে মধ্যবর্তী নির্বাচন প্রয়োজন। এখন বলছেন-গত নির্বচন সুষ্ঠু হয়েছে এবং এই সরকার ৫বৎসর ক্ষমতায় থাকবে। তিনি বলেছিলেন আওয়ামীলীগের সাথে বেহেস্তেও যাবেন না। তিনি সকালে এক কথা, বিকালে অন্য কথা বলেন। তাই জনগণ তার উপর আস্থা, বিশ্বাস রাখতে পারছেনা। এভাবে তিনি দলীয় ভাবমূর্তী ও তার নিজের ভাবমূর্তী তিনি নিজেই ক্ষুন্ন করছেন। তিনি নিজেই বলেছেন-জাতীয় পার্টির কোন ভবিষ্যত নাই। তাই ভবিষ্যতহীন দলে থেকে কি লাভ। জনগনের কল্যানের জন্যইতো রাজনীতি করা। এক সময় তিনি জনগনের কল্যান করেছিলেন বলে জনগণ থাকে মনে রেখেছিলেন। তৃণমূলের নেতাকর্মীরা তাকে ভালবেসে ছিল। কিন্তু তিনি লাখ লাখ তৃণমূল নেতাকর্মীদের কথা ভূলে গিয়ে এমপি হয়েছেন, একজন সাবেক রাষ্ট্রপতি হয়েও তিনি আওয়ামীলীগ নেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর দূত হয়েছেন। তিনি নিজের সুখ, ভোগ-বিলাসে লিপ্ত অথচ লাখ লাখ নেতাকর্মীরা আজ হতাশ। এই দলের নেতার নিকট থেকে জনগনের কল্যানে কোন কর্মসূচী নেই। রাজপথে কোন কর্মসূচী নেই। জাতীয় পার্টির সুবিধাবাদী কিছু চিহ্নিত নেতা যারা সরকারের দালালী করছে, তাদের কারণে আজ জাতীয় পার্টির ভবিষ্যৎ অন্ধকার। আতিক বলেন, বর্তমানে এই দলের নেতা এরশাদ সাহেবের নিকট থেকে জনগনের কল্যানে কোন কর্মসূচী নেই। রাজপথেও কোন কর্মসূচী নেই। শুধুমাত্র সরকারের দালালী করে কিভাবে নিজেরা ভাল থাকা যায় সেই কাজে লিপ্ত আছেন জাতীয় পার্টির সুবিধাবাদী কিছু চিহ্নিত নেতা, যারা সরকারের দালালী করছে, তাদের কারণে আজ জাতীয় পার্টির ভবিষ্যৎ অন্ধকার। সুতরাং-বর্তমান এই পরিস্থিতিতে হবিগঞ্জ জেলা জাপার সভাপতি পদ থেকে আমি পদত্যাগ করতে বাধ্য হলাম। আতিক বলেন, “হবিগঞ্জ জেলার বিভিন্ন গ্রাম, ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা, পৌরসভা ও জেলা জাপা ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী যারা বিগত ৫বৎসর আমাকে আন্তরিক সহযোগীতা করেছে তাদেরকে আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। আতিক আরও বলেন, হবিগঞ্জ-লাখাইবাসীর এলাকার সন্তান হিসেবে আমি রাজনৈতিক, সামাজিক বিভিন্ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে সব সময় হবিগঞ্জবাসীর পাশে থাকব এবং হবিগঞ্জ এর উন্নয়নে কাজ করে যাব এটাই আমার অঙ্গীকার।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com