সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জেলা সাংবাদিক ফোরামের অভিষেক অনুষ্টিত নবীগঞ্জে পানিউমদা ইউনিয়ন বিএনপির কাউন্সিল সম্পন্ন চৌধুরী বাজারে পেয়াজের মুল্য বেশি রাখার দায়ে দোকানীকে জরিমানা সন্ত্রাস দমনে পুলিশের করণীয় শীর্ষক সভা নবীগঞ্জে এমপি মিলাদ গাজীকে দারুল উলুম মাদ্রাসার বিশাল সংবর্ধনা ফুটবলার নোমানের দৃষ্টি হারানো চোখের চিকিৎসা করাতে এগিয়ে এলেন প্রবাসীরা সিলেট গণফোরামের নেতৃবৃন্দের সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করলেন আবুল হোসেন জীবন উন্নয়নের স্বার্থে আয়কর প্রদানে সকলকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে-এমপি আবু জাহির মাধবপুরে পিএসসি পরীক্ষায় অনুপস্থিত ৩৮৬ শিক্ষার্থী শায়েস্তাগঞ্জে পেঁয়াজের দোকানে অভিযান ॥ ৪ হাজার টাকা জরিমানা
হিন্দু ধর্মে পূজা-অর্চনা বিজ্ঞানসম্মত

হিন্দু ধর্মে পূজা-অর্চনা বিজ্ঞানসম্মত

এডভোকেট নির্মল ভট্টাচার্য্য রিংকু ॥ হিন্দু ধর্মে পূজা-অর্চনা বিজ্ঞানসম্মত। শারীরিক ও মানসিক শক্তিবর্ধক। সে কারণে পূজা-অর্চনা ও উপাসনায় বিশুদ্ধতা বজায় রাখার বিধান দেওয়া হয়েছে। বিশুদ্ধতা এক বিজ্ঞান। পূজায় ব্যবহৃত প্রতিটি দ্রব্যের গুণাবলি বিচার করলে প্রমাণিত হবে শরীর ও মনের ক্ষমতা বৃদ্ধির এক বিশেষ প্রথা হল পূজা। অর্থাৎ পূজা-পার্বণ জীবনেরই ক্ষমতা বৃদ্ধির এক উপায়। আয়ুবর্ধক। পূজায় মন্ত্রধ্বনি এবং বাদ্যযন্ত্রের শব্দধ্বনি বায়ুতে যে তরঙ্গ সৃষ্টি করে সেই তরঙ্গ ক্ষতিকারক জীবাণুনাশক এবং রক্তশোধক। বৈদিক ঋষিরা পূজার চেয়ে যজ্ঞকে যে বেশি প্রাধান্য দিয়েছিলেন তার কারণ হল যজ্ঞাগ্নি থেকে উত্থিত ঘৃতাগ্রিমিশ্রিত ধুম্র পরিবেশ শোধন করে বলেই। যতদূর পর্যন্ত ধুম্র বিস্তার লাভ করবে ততই পরিবেশ স্বাস্থ্যবর্ধক হবে। বাতাসে থাকা ক্ষতিকারক জীবানু ধ্বংস হবে। তাই একটাই কথা হল জীবন মঙ্গলদায়ক হোক, সেটিই যাগ-যজ্ঞ, পূজা-অর্চনার কথা।
পূজা-অর্চনা নিয়ে উৎসাহ বাড়লেও মাটির তৈরী দেব-দেবীর মুর্তি বিসর্জনের সম্মানজনক দিকটির প্রতি নজর দিন দিন যে কমে যাচ্ছে, কথাটি ঠিক। অশাস্ত্রীয় দিকটিই প্রকট হচ্ছে। অথচ পূজা-অর্চনার পর সব দেব দেবীর মৃন্ময়মুর্তি জলে বিসর্জন দেওয়াই কাম্য এবং তা শাস্ত্রীয় নিয়ম-নীতিও। দুর্গাপূজার পর কাঠাম জলে বিসর্জন দেওয়া হয়। কিন্তু এছাড়াও যেসব দেব-দেবী পূজিত হন তাঁদের মাটির মুর্তি অনেকেই জলে বিসর্জন করেন না। রেখে দেন কোন গাছতলায় বা পুকুর-নদীর পারে অথবা কোন সাধারণ একটি চালাঘরে। ফলে ঝড়-বৃষ্টি-সূর্যতাপে মুর্তি ক্ষয়প্রাপ্ত হয়, ভেঙ্গে যায়, বিকৃত রূপ পায়Ñ যা জনসাধারণের কাছে হেয় হয়ে যায়। পূজার মূল তাৎপর্য নষ্ট হয়। যারা সেইসব মুর্তি জলে বিসর্জন দেন না তাদের ধারণা যজমানের অমঙ্গল ঘটবে। কারণ, তা শাস্ত্রীয় বিধান নয়। এই ধারণার জন্ম নিশ্চয় কোনো পুরোহিতের কাছ থেকে। যেহেতু পুরোহিত শব্দটির মধ্যেই রয়েছে যিনি পরের হিত কামনা করেন। সমাজের মঙ্গল কামনা পুরোহিতের ধর্ম। সুতরাং পুরোহিত শুধু পূজা-অর্চনা করে যজমানের মঙ্গল চান না, সমাজ ও রাষ্ট্রের মঙ্গল সাধন করেন। সেই অর্থে পুরোহিত কর্মটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমান ব্রাহ্মণ সমাজে এই দেশ-সমাজ হিতৈষী কর্মটি করার ব্রাহ্মণের অভাব দেখা দেয়। অর্থাৎ ব্রাহ্মণ হলেই যে পুরোহিত কর্ম সবাই করতে পারেন এমন কোনো কথা নয়। পুরোহিত কর্মটি করতে প্রশিক্ষণের প্রয়োজন পড়ে। শাস্ত্রীয় বিধি-বিধান জানতে হয়। শাস্ত্রীয় বিধি বিধান জানতে হলে টোল শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। দেশ ও সমাজের ব্যভিচার নির্মুল করতে হলে প্রকৃতিতে থাকা সাত্ত্বিক গুণ শাস্ত্রীয় আচার-আচরণ দ্বারাই সম্ভব। সুতরাং যথার্থ পুরোহিতের অভাব দূর করা জরুরি হয়ে পড়েছে। বর্তমানে বিশ্বায়নের যুগে মানুষ যতই উন্নত যন্ত্র সভ্যতায় এগিয়ে যাক, ভোগ-বিলাসকে কাছে টেনে আধুনিক মানুষ বলে গর্ব করুক, দুঃখকে কিন্তু জয় করতে পারেনি। সেই দুঃখ নামক অনুভব থেকে মুক্ত হতে আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার ধার ঘেঁষেও যখন নীরোগ জীবনযাপন সম্ভব হচ্ছে না। তখনই ভাবনায় আসছে, দেবতাদের আশীর্বাদই দুঃখ, যন্ত্রণা নির্মুলের একমাত্র পথ তা অনুভবে আসছে। সেই পথের পথপ্রদর্শক পুরোহিতরা যদি প্রকৃত অর্থে পুরোহিত না হন, তাহলে তো মানুষ অসহায় হয়ে পড়বে।
বলতে দ্বিধা নেই, পূজা-অর্চনার পর দেব-দেবীর মৃন্ময়মুর্তি জলে বিসর্জন দেওয়ার বিষয়টি লোকাচার-দেশাচার বলে যতই জটিল করা হোক, পূজা-পদ্ধতি তার নিজস্ব শাস্ত্রীয় বিধান মতে চলে। কোনো দেব-দেবীর আহবান করার পর যদি তাঁদের রক্ষণাবেক্ষন সম্মানজক অবস্থায় এবং শুদ্ধাচারে রাখা অসম্ভব হয় তাহলে বিসর্জনের ব্যবস্থা শাস্ত্রকারকরা দিয়ে রেখেছেন। তাই পূজায় স্থায়ী ও অস্থায়ী দু’টি দিক রয়েছে। নিজস্ব সার্বজনীন দিকও আছে। আর সেই সব দিকের পূজার বিধান পুরোহিতদের উপর বর্তায়। দেশাচার ও কুলাচার নির্ণয়কারীদের উপর বর্তায় না। যজমানকে পুরোহিতদের পরামর্শেই চলতে হয়ে। ওতেই দেশ ও সমাজের মঙ্গল সাধন হয়। সে কারণেই বলতে হচ্ছে, অস্থায়ী পূজা-অর্চনা যা স্থায়ী দেবগৃহে বা মন্দিরগৃহে হয় না, সেখানে কোনো স্থায়ী পুরোহিত নেই, প্রতিদিন ফুল-জল দেবার পুরোহিতের অভাব, সেখানে কোনো দেব-দেবীর পূজা হলে সেই দেব-দেবীর পূজার পর জলে বিসর্জন হওয়া বাধ্যতামূলক। বাধ্যতামূলক বলেই পুরোহিত আহবান করার পর ঘট ও মঠ বিসর্জন দিয়ে থাকেন। বিসর্জনে দেব-দেবীকে আবার আসার প্রার্থনাও করে থাকেন। তাই বিসর্জন অর্থে বর্জন নয়। যাওয়া-আসার এক আকুল প্রার্থনা। তা ছাড়া বিসর্জন শব্দে আছে পূজাবসনে প্রতিমা জলে বিলোপ। যদি আমরা বিসর্জন শব্দটিকে সন্ধি বিচ্ছেদ করে বি+সৃজ+অন ধরি, তাহলে দাঁড়ায় বিশেষে সৃষ্টি অযোগ্যতা। যোগ্যতা অর্থাৎ সম্মান যখনই ক্ষুন্ন হয় তখনই অযোগ্য শব্দ আসে। পূজাবসানের পর যোগ্য-অযোগ্য প্রশ্ন আসে বলেই শাস্ত্রে বিসর্জন পর্বটি রেখেছে। সুতরাং পুরোহিত বিসর্জন মন্ত্র উচ্চারণের পর প্রতিমা জলে না ভাসালে তা শাস্ত্রের বিরুদ্ধাচারণই হয়ে থাকে এবং অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। তাই পুরোহিতের বিসর্জন মন্ত্র পাঠের পর যজমান তার ইচ্ছামত পোষণ করে প্রতিমা রেখে দিয়ে আসার অশস্ত্রীয় বিধান পুরোহিতকে পীড়ন করে। পুরোহিতর যজমানের অপরাধকে নিজের মাথায় তুলে নেবার কথা নয়। কিন্তু তাই হয়ে আসছে। প্রত্যেক পুরোহিত যদি যজমানকে পূজারম্ভের পূর্বেই সতর্ক করে দিতেন তাহলে আজ এই সিদ্ধান্ত নিতে হত না। যখন পূজা পুরেহিত দিয়ে করতে হবে, তখন পুরোহিত যা বলবেন সেটাই বিধান। সে কারণে, পুরোহিত কর্মটি সাধারণ কর্ম নয়। শাস্ত্রীয় জ্ঞানের সঙ্গে বিজ্ঞানভিত্তিক অন্যান্য বিষয় জ্ঞানেরও প্রয়োজন। যজমানের যে-কোনো শাস্ত্রীয় বিষয়ের যথাযথ উত্তর সঠিক যুক্তির মাধ্যমে মীমাংসা করার ক্ষমতাও পুরোহিতের থাকা দরকার।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com