সংবাদ শিরোনাম : 

 **  বানিয়াচঙ্গে কৃষকের বাড়ী থেকে ধান ক্রয় করলেন জেলা প্রশাসক **  হবিগঞ্জে কালবৈশাখীর তাণ্ডব অর্ধশতাধিক ঘরবাড়ি লণ্ডভণ্ড চরম বিদ্যুৎ বিপর্যয় **  চুনারুঘাটে কৃষকরা হতাশায় নিমজ্জিত বোরো চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষক **  খোশ আমদেদ মাহে রমজান **  হবিগঞ্জ জেলা কল্যাণ সমিতি যুক্তরাষ্ট্র ইন্ক এর ইফতার ও দোয়া মাহফিল **  পইলে বিষধর সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু **  নবীগঞ্জে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত অর্ধশত **  নবীগঞ্জে পুলিশী হয়রানী বন্ধে ইমা লেগুনা-সিএনজি মালিক ও শ্রমিকদের ধর্মঘট ॥ এমপির আশ্বাসে প্রত্যাহার **  সাংবাদিক জুয়েলকে হুমকি নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি **  লাখাই থানার মানব পাচার মামলার পলাতক আসামী হবিগঞ্জে গ্রেফতার **  বানিয়াচঙ্গের শিশু ধর্ষণ মামলার আসামী জাহাঙ্গির কারাগারে **  নবীগঞ্জে পিকআপ ভ্যান চুরির ৫ ঘন্টার মধ্যে উদ্ধার **  শহরের ইনাতাবাদে গাছ থেকে পরে বৃদ্ধের মৃত্যু **  বানিয়াচঙ্গে একই পরিবারের ৭ জনকে কুপিয়ে ক্ষত-বিক্ষত **  মাধবপুরে বাংলা টিভির তৃতীয় প্রতিষ্ঠা বাষিকী পালিত **  মাধবপুরে সিএনজি-পিকআপ সংঘর্ষে আহত ৫, পিকআপ চালক আটক **  কাল বৈশাখীর ঝড়ে বিধ্বস্ত হবিগঞ্জ ॥ সহায়তার আশ্বাস

বানিয়াচংয়ের সত্যজিত হত্যাকান্ড নবীগঞ্জের অরবিন্দু দাশে মৃত্যুদণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বানিয়াচং উপজেলার সত্যজিৎ দাশ হত্যা মামলায় অরবিন্দু দাশ (৩৩) নামে নবীগঞ্জের এক ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে আসামিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তার সম্পত্তি বিক্রি করে তা আদায়ের নির্দেশ দেয়া হয়। গতকাল বুধবার সকালে আসামির উপস্থিতিতে জেলা ও দায়রা জজ আমজাদ হোসেন এ রায় দেন। দণ্ডপ্রাপ্ত অরবিন্দু নবীগঞ্জ উপজেলার চৌকি গ্রামের মনিন্দ্র দাশের ছেলে। নিহত যুবক সত্যজিৎ বানিয়াচং উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের চন্ডিপুর গ্রামের নকুল চন্দ্র দাশের ছেলে।
মামলার অভিযোগে জানা গেছে, ২০০৯ সালের ১১ ফেব্র“য়ারি রাত ১০টার দিকে সত্যজিৎ দাশ নবীগঞ্জের চৌকি গ্রামের মাঠে কির্তন শুনতে যান। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ ছিলেন। নিখোজের ৩ দিনপর ১৫ ফেব্র“য়ারি বিকেলে গ্রামের শ্মশানঘাট সংলগ্ন ডোবা থেকে হাত বাঁধা অবস্থায় তার গলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় তার বোন অনিকা রাণী দাশ বাদী হয়ে ১৬ ফেব্র“য়ারি অজ্ঞাত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে বানিয়াচং থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে ওই বছরের ১৩ জুন নয় জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। তদন্ত চলাকালে গ্রেফতারকৃত অরবিন্দু দাশ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। এতে সত্যজিতের কাছে পাওনা এক হাজার টাকা না দেয়ায় তাকে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করে। রাষ্ট্রপক্ষে ১৮ জন সাক্ষির স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক মামলার রায় ঘোষণা করেন।
মামলার অপর ৮ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দেয়া হয়। রায় ঘোষণাকালে দণ্ডিত আসামি সত্যজিৎ দাশসহ ৪ জন উপস্থিত ছিলেন।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com