সংবাদ শিরোনাম : 

 **  শহরে স্বর্ণের চেইন ছিনতাই ৫ মহিলার জনতার হাতে আটক **  বিয়ের ২৮ দিনের মাথায় লোকড়া গ্রামে গ্রীস প্রবাসী সহিদ আলীর আত্মহত্যা **  চুনারুঘাটে এলজিএসপি প্রকল্পের টাকা নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ **  তারেক রহমানের বিরুদ্ধে রায়ের প্রতিবাদে হবিগঞ্জে বিএনপি কালো পতাকা মিছিল **  নবীগঞ্জে ২১ দিনে ১ ডাকাতি ১০ চুরি ॥ জনমনে আতংক **  হবিগঞ্জে ৫ম অভিষেক ও ইন্টারন্যাশনাল লায়ন্স ডে অনুষ্ঠানে-ডিস্ট্রিক্ট গভর্নর লায়ন কাজী এখলাছুর ॥ বিশ্বব্যাপী আর্তমানবতার সেবায় লায়ন্স ক্লাব কাজ করে যাচ্ছে **  চেষ্টার এন্ড নর্থওয়েলস রিজিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্টিত চ্যারিটি ডিনারের মাধ্যমে দরিদ্র নারীদের জন্যে আড়াই লাখ টাকা উত্তোলন **  বানিয়াচঙ্গে ফেরী করে ইয়াবা বিক্রিকালে জনতার হাতে যুবক আটক **  নবীগঞ্জ সদরঘাটে ডাকাতদলের হানা ॥ গ্রামবাসীর তৎপরতায় ডাকাতদের পলায়ন **  গণআন্দোলনের মুখেই আওয়ামীলীগ সরকারের পতন হবে-মেয়র জিকে গউছ **  ভিডিও কনফারেন্সে শেখ রাসেল মিনি স্ট্যাডিয়ামের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী

আলোচিত ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ॥ তারেক-হারিছসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন বাবর-পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড

এক্সপ্রেস ডেস্ক ॥ বহুল আলোচিত গ্রেনেড হামলার ঘটনায় দায়ের করা দুই মামলায় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের তৎকালীন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১৯ জনকে দেওয়া হয়েছে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। এছাড়া এ মামলার আসামি ১১ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।
বুধবার ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন জনাকীর্ণ আদালতে এই রায় ঘোষণা করেন। এ সময় কারাগারে থাকা ৩১ আসামির সবাইকে আদালতে উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন উভয় পক্ষের আইনজীবী এবং গণমাধ্যম কর্মীরাও। রায় ঘোষণার আগে আসামিদের কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। প্রথমে একটি মাইক্রোতে করে লুৎফুজ্জামান বাবরকে ভেতরে নেওয়া হয়। এর পর একটি গাড়ি থেকে সরকারি সাবেক কর্মকর্তাসহ ১১ জনকে নামিয়ে আদালতে তোলা হয়। আর সবশেষে প্রিজন ভ্যান থেকে ডান্ডা বেরি পরানো অবস্থায় আদালতে তোলা হয় ১৮ জনকে।
এদিকে গণমাধ্যম কর্মীদের জন্য বাহিরে স্পিকার লাগিয়ে আদালতে প্রবেশ করতে দিচ্ছিল না আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এ সময় সংবাদিকরা বিষয়টির প্রতিবাদ করে আদালত এলাকা ত্যাগ করতে চাইলে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাদের আদালতে নেওয়ার ব্যবস্থা করেন। তবে ওপরে গেলেও আদালত কক্ষে প্রবেশ করতে আবারও বাধা দেওয়া হয় সাংবাদিকদের। এরপর তারা আবারও আদালত থেকে চলে যেতে চাইলে ভেতরে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় অনেকের চেহারা ছিল হাস্যেজ্বল। তাদের কারো মধ্যেই তেমন কোন উদ্বেগ লক্ষ্য করা যায়নি।
১১টা ৩৫ মিনিটে বিচারক এজলাসে বসেন। এর পর রায় ঘোষণার শুরুতেই আদালত বিবেচ্য বিষয় সমূহ তুলে ধরেন। এরপর মূল রায় ঘোষণা করেন।
মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত ১৯ আসামি
মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামিরা হলেন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফজ্জমান বাবর, এনএসআই’র সাবেক মহাপরিচালক মেজর জেনারেল (অব.) রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আবদুর রহিম, হানিফ পরিবহনের মালিক মোহাম্মদ হানিফ, বিএনপির সাবেক উপমন্ত্রী আবদুল সালাম পিন্টু, মাওঃ শেখ আবদুস সালাম, জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের নেতা মাওঃ তাজ উদ্দিন, আবদুল মাজেদ ভাট ওরফে ইউছুফ ভাট, আবদুল মালেক ওরফে গোলাম মোস্তফা ওরফে জিএম, মাওঃ শওকত ওসমান ওরফে শেখ ফরিদ, মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান ওরফে অভি, মাওঃ আবু সায়ীদ ওরফে ডা. জাফর, আবুল কালাম আজাদ ওরফে বুলবুল, জাহাঙ্গীর আলম, হাফেজ মাওলানা আবু তাহের, হোসাইন আহমেদ তামীম, মঈন উদ্দিন শেখ ওরফে মুফতি মঈন ওরফে খাজা ওরফে আবু জান্দাল ওরফে মাসুম বিল্লাহ, রফিকুল ইসলাম ওরফে সবুজ ওরফে খালিদ সাইফুল্লাহ ওরফে শামীম ওরফে রাশেদ এবং মো. উজ্জল ওরফে রতন।
যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত ১৯ আসামি হলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান (পলাতক), বিএনপি চেয়ারপারসনের সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী (পলাতক), সাবেক সংসদ সদস্য কাজী শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ (পলাতক), শাহাদাত উল্লাহ জুয়েল, মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু ওমর ওরফে আবু হুমাইয়া ওরফে পীর সাহেব, মাওলানা সাব্বির আহমেদ ওরফে আবদুল হান্নান সাব্বির, আরিফ হাসান সুমন ওরফে আবদুর রাজ্জাক, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মাওলানা আবু বকর ওরফে হাফেজ সেলিম হাওলাদার, আরিফুল ইসলাম আরিফ, মাওলানা মহিবুল মুত্তাকিন (পলাতক), আনিসুল মুরসালিন ওরফে মুরসালিন (পলাতক), মোহাম্মদ খলিল (পলাতক), জাহাঙ্গীর আলম বদর (পলাতক), মো. ইকবাল (পলাতক), মাওলানা লিটন, মুফতি শফিকুর রহমান (পলাতক), মুফতি আবদুল হাই (পলাতক) এবং রাতুল আহমেদ বাবু ওরফে রাতুল বাবু (পলাতক)।
১১ সাবেক সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তাদের বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ড
আট পুলিশ ও তিন সেনা কর্মকর্তাকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন আদালত। তাদের মধ্যে দুই বছর করে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন নৌবাহিনীর লে. কমান্ডার (অব.) সাইফুল ইসলাম ডিউক (খালেদা জিয়ার ভাগনে), লে. কর্নেল (অব.) সাইফুল ইসলাম জোয়ারদার (পলাতক), মেজর জেনারেল (অব.) এ টি এম আমিন (পলাতক), সাবেক আইজিপি আশরাফুল হুদা, সাবেক আইজিপি শহুদুল হক, সাবেক ডিআইজি খান সাঈদ হাসান (সাবেক ডিসি দক্ষিণ) (পলাতক), সাবেক পুলিশ সুপার ওবায়দুর রহমান খান (পলাতক)। তিন বছরের কারাদণ্ড দণ্ডিত হয়েছেন সাবেক আইজিপি খোদা বক্স চৌধুরী, সিআইডির সাবেক সিনিয়র এএসপি মুন্সি আতিকুর রহমান, সাবেক এএসপি আবদুর রশীদ ও সাবেক বিশেষ পুলিশ সুপার রুহুল আমিন।
মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত প্রত্যককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেছেন আদালত। একইসঙ্গে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামিদের প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা করে জারিমানা অনাদায়ে আরও একবছর সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া বিভিন্ন মেয়াদে সাজাপ্রাপ্ত আসামিদেরও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

Powered by WordPress | Designed by: search engine rankings | Thanks to seo services, denver colorado and locksmiths

Design & Developed BY PopularServer.Com