শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০১:৫০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতীয় নাগরিকের পিটুনীতে বাংলাদেশী খুন ॥ লাশের অপেক্ষায় স্বজনরা বানিয়াচংয়ের বিভিন্ন বাজারে সেনাবাহিনীর জনসচেতনতামূলক প্রচারাভিযান শ্রীমঙ্গলে ৬৭ টি মামলায় ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা নবীগঞ্জে সরকারের অর্থ সহায়তার তালিকায় নারী কাউন্সিলরের পরিবারের ৬ সদস্যের নাম শচীন্দ্র লাল সরকারের সমাধীতে জেলা সিপিবি, উদীচী, কিবরিয়া ফাউন্ডেশন, সচেতন নাগরিক কমিটি ও মাতৃছায়া কেজি এন্ড হাইস্কুলের পুষ্পস্তবক অর্পন দৈনিক খোয়াই পত্রিকার সার্কুলেশন ম্যানেজার সাইফুলের পিতার ইন্তেকাল নবীগঞ্জে ভাতিজার হাতে চাচা খুন শ্রীমঙ্গলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার কাউন্সিলর আব্দুল আহাদের মৃত্যু বানিয়াচঙ্গের হাওর থেকে অজ্ঞাত মহিলার লাশ উদ্ধার হবিগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১
বেলেশ্বরী উৎসব বানুনি স্নানে ভক্তের ঢল

বেলেশ্বরী উৎসব বানুনি স্নানে ভক্তের ঢল

বরুন সিকদার ॥ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য আর উৎসাহ-উদ্দীপনায় মধ্য দিয়ে প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও গঙ্গাদেবী (বেলেস্বরী)পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মধু কৃষ্ণের ত্রয়োদশী উপলক্ষে গতকাল শুক্রবার লাখাই balusore banniউপজেলার সুতাং নদীর পূর্বপাড়ে বেকিটেকা গ্রামে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। উৎসবের মূল আকর্ষন সুতাং নদীতে ভক্তদের (বানুনি) স্নান করা।
এ উপলক্ষে ভোর থেকেই হবিগঞ্জসহ এর পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলাগুলো থেকে ভক্তরা আসতে থাকেন। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভক্তদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে উঠে বেলেস্বরী মন্দির প্রাঙ্গন। মাহাদেব ও গঙ্গা দেবীর পূজার মাধ্যমে এ উৎসবের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। জনশ্র“তি মতে জানা যায়, বহু যুগ পূর্বে জনৈক সাধু ব্যক্তি পূণ্য অর্জন লাভে গঙ্গায় স্নান করার ইচ্ছা পোষন করেন। কিন্তু আর্থিক সংকটে তার গঙ্গায় গিয়ে স্নান করা হয়ে উঠে নি। মনো-বাসনা পূরনে ভগবান স্বপযোগে তাকে নির্দেশ দিলেন বেকীটেকা গ্রামের নদীতে স্নান করলে পূণ্য অর্জন সম্ভব। সাধুব্যক্তি স্বপ্নযোগে পাওয়া নির্দেশ মোতাবেক মধু কৃষ্ণের ত্রয়োদশী দিনটিতে বেকীটেকা নদীতে স্নান করে মনোবাসনা ও পূণ্য অর্জন লাভ করেন।
পরবর্তীতে সাধুব্যক্তির ঈশ্বরিক প্রদত্ত নির্দেশ লোকমুখে ছড়িয়ে পড়লে অনেকেই নিজ মনো-বাসনা পুরনে নদীতে স্নান করেন। এতে ভক্তদের কাংখিত ফল প্রাপ্তিসহ দিনকে দিন পবিত্রতম স্থান হিসেবে এর প্রসার ঘটে। বেলেস্বরী ও সুতাং নদীর তীরবর্তী স্থানে গড়ে তোলা হয় বেলেস্বরী (গঙ্গাদেবী) মন্দির। মধু কৃষ্ণের ত্রয়োদশী উপলক্ষে আয়োজন করা হতো বাৎসরিক উৎসবের। ভক্তদের কাছে স্থানটি রূপ নেয় তীর্থক্ষেত্রে। উৎসব উপলক্ষে ভক্তরা তাদের মনকামনা পূরনে নদীতে নেমে গঙ্গাদেবীকে প্রনাম ও দেবীর সন্তুষ্ঠিতে ফলমূল, কবুতর, ছাগল, কলা, নারিকেল সহ নানা দ্রব্যদি জলে ছুড়ে উৎসর্গ করে থাকেন। সেগুলো আবার প্রসাদ স্বরূপ অনেকে সংগ্রহ করেন।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, বেকীটেকা গ্রামের মধ্য দিয়ে প্রবহিত বেলেস্বরী নদীটি (যা গঙ্গা নদীর সাথে যুক্ত ছিল) চড় পড়ে একেবারেই শুকিয়ে গেছে। শধুমাত্র মন্দির সংলগ্ন সুতাং নদীটিতে হাটুযুক্তপানি বহমান রয়েছে। তীর্থক্ষেত্র হওয়ায় কাদাযুক্ত ও ঘোলা হাটুপানিতে স্নান করেই তুষ্টি মেটাতে দেখা গেছে ভক্তদের।
উৎসবকে কেন্দ্র করে হরেক রকমের পসরা ও খাবারের দোকান নিয়ে বসেন দোকানীরা। নদীর দুপাশে জমে উঠে মেলা। বেলেস্বরী তীর্থক্ষেত্রের নামের সাথে মিল রেখে মেলাতে প্রচুর বেলের অমদানী হয়। তবে দাম ছিল ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। আমদানীকৃত বেল ছোট থেকে মাঝারি সাইজের হালি প্রতি মূল্য ছিল ১০০-১২০ টাকা, বড় সাইজের ২শ থেকে ২শ৫০ টাকা দাম হাকাতে দেখা যায়। মেলাতে স্থান ভেদে কোথাও কোথাও বসে জুয়া ও গানের আসর। সার্বিক নিরাপত্তা বিধানে পুলিশ প্রশাসন।
এ সম্পর্কে আকাশ দত্ত জানায়, আমি প্রতি বছর বানুনি স্নানে আসি। উৎসব উপলক্ষে যানবাহনে অন্যদিনের তুলনায় ভাড়া ছিল তিনগুন।
উৎসব উদযাপন কমিটির সদস্যরা জানায়, এই উৎসবে ভারত সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হিন্দু মুসলিম সহ নানা ধর্মের লোকজন এসে থাকেন। তবে পরিতাপের বিষয় ঐতিহ্যবাহী বেলেস্বরী মন্দীরটি পুরোপুরিভাবে নির্মানের জন্যে প্রশাসনিক বা ব্যক্তিগত কোন সহযোগিতা পাচ্ছি না। একদিনের প্রাপ্য প্রনামীর দানকৃত টাকা দিয়ে সারা বছরের বিভিন্ন অনুষ্ঠান চালাতে হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com