শনিবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
মাধবপুরে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন পিতা-পুত্রের জেল ॥ ৪টি ড্রেজার ধ্বংস শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে দুর্নীতির তদন্তে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় বানিয়াচঙ্গে প্রতিবন্ধীর ভাতা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ প্রাথমিকভাবে প্রমানিত শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে চুনারুঘাটে ৫টি ইটভাটাকে ২ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা জরিমানা ও ২শ’ ৫০ টুকরা গাছ জব্দ ॥ ২টি করাতকল সিলগালা হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস আজ নবীগঞ্জের করগাঁও ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠন আজ নবীগঞ্জ মুক্ত দিবস নবীগঞ্জে পৌর বিএনপির ২নং ওয়ার্ড কমিটি গঠিত নজরুল একাডেমী হবিগঞ্জ জেলা শাখার সংগীত সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত শায়েস্তাগঞ্জে রেলওয়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে খুব শীঘ্রই-উপ সচিব
নবীগঞ্জের আউশকান্দি অরবিট হাসপাতালের ডাক্তারের কাণ্ড !

নবীগঞ্জের আউশকান্দি অরবিট হাসপাতালের ডাক্তারের কাণ্ড !

নবীগঞ্জ সংবাদদাতা ॥ নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি অরবিট হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ খায়রুল বাশারের বিরুদ্ধে সুস্থ্য শিশুকে রেফার্ড করে অভিভাবকদের হয়রানীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সর্বত্র আলোচনা চলছে।
মৌলভীবাজারের মামুন হাসপাতালের ডাক্তার বিশ্বজিৎ ও নবীগঞ্জের আউশকান্দি অরবিট হাসপাতালের ডা. খায়রুল বাশারের মোবাইল ফোনে আলাপে বেড়িয়ে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। গত শুক্রবার দুপুরে আলাপকালে ফোনালাপের কথা স্বীকারও করেছেন ডাঃ খায়রুল বাশার। এঘটনায় উপজেলা শুরু হয়েছে তোলপাড় ! সূত্রে জানা যায়, গত ৩১ আগস্ট উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়নের ফুলতলীর বাজার এলাকার রুবেল মিয়ার ৪০ দিন বয়সী শিশু ইসমত নাহার জিবার ঘন ঘন হেচকি’র কারণে অরবিট হাসপাতালে ডা. খায়রুল বাশারের শরণাপন্ন হন তার মা। সেদিন চিকিৎসক ঔষুধ দিয়ে দিলে শিশুকে জিবার পরিবার ফিরে আসেন। পরদিন শিশু জিবার কোনো উন্নতি না হলে আবারও কথা বলেন চিকিৎসক ডা. খায়রুল বাশারের সাথে। এসময় ডা. খায়রুল জানান, শিশুটির অবস্থা আশংকাজনক। লাখ লাখ টাকা দিয়েও অনেকে বাচ্চা পায়না জানিয়ে টাকার দিকে না তাকিয়ে দ্রুত মৌলভীবাজারের মামুন হাসপাতালে নিয়ে ভর্তির পরামর্শ দেন। এবং সেখানে গিয়ে ডা. বিশ্বাজৎ এর ফোন থেকে ডা. খায়রুল বাশারকে ফোন দেয়ার জন্যও বলেন পরামর্শ দেন তিনি। আর্থিক সঙ্গতি না থাকলেও শিশুর প্রাণ রক্ষার্থে দ্রুত মৌলভীবাজার ছুটে যান শিশুর মা শিরিন আক্তার। সেখানে গিয়ে শিরিন আক্তার তার মোবাইল থেকে ডা. বিশ্বজিতের সাথে কথা বলেন ডা. খায়রুল বাশার। কল রেকডিং এ বলতে শোনা যায় (হুবহু) ঃ Ñ ডা.বিশ্বজিৎ ঃ দুলাভাই তোমার রোগী খুবই ভালা আছে কোনো সমস্যা নাই?
ডা. খায়রুলঃ শোন শোন হের মার সামনে মাতিস না, মা হচ্ছে হাইপারসেন্সেটিভ ভালাবুরা খওয়ার দরকার নাই রোগী খারাপ আছে চিকিৎসা কর !
ডা.বিশ্বজিৎ ঃ আইচ্ছা
ডা. খায়রুল ঃ ভালা জীবনেও কইস না, ভালা জীবনেও কইস না আমি তো জানি ভালা ! মা হচ্ছে হাইপারসেন্সেটিভ তাই বলছি ভর্তি করান !
ডা.বিশ্বজিৎ ঃ হ্যা তারা থাকবো অপজারবেশনে থাকবো !
ডা. খায়রুল ঃ ইনশেকশন টিনশেকসন মার নাইলে শান্তি অইতো না !
পরে সম্পুর্ণ সুস্থ্য জিবাকে হাসপাতালে ভর্তি করার পরামর্শ দেন তিনি ডা. বিশ্বজিৎ। সে অনুযায়ী রাতে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করা হয় জিবাকে। পরে বিষয়টি আঁচ করতে পারেন জিবা’র মা। তাই পরদিন ক্লিনিক থেকে বাড়ি ফেরেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com