সোমবার, ২৬ অগাস্ট ২০১৯, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লাখাইয়ে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা ॥ পুত্রের হাতে পিতা খুন হবিগঞ্জে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ॥ রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনই উত্তম পন্থা শহরের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের সামন থেকে ১২ রোমিও আটক পরিবারের মুছলেখায় মুক্তি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে চুনারুঘাটের ১ জনের মৃত্যু নবীগঞ্জে বউ-শাশুড়ীর ঝগড়া প্রাণ গেল সবুর হোসেনের বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশকে পিছিয়ে দিয়েছিল-এমপি মিলাদ গাজী বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলা গড়াই হোক জাতীয় শোক দিবসের অঙ্গীকার-এমপি মজিদ খান পইলে শহীদ এনাম স্মৃতি সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত তিতখাই-চান্দপুর সড়কটি সংস্কার কাজ বন্ধ ॥ জনদুর্ভোগ চরমে বানিয়াচঙ্গে চেক ডিজঅনার মামলার সাজা প্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার
মাধবপুর ট্রাজেডি ঃ স্বামী-শ্বাশুড়ির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা ॥ আটক ১

মাধবপুর ট্রাজেডি ঃ স্বামী-শ্বাশুড়ির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা ॥ আটক ১

আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে ॥ মাধবপুরে দুই শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যা ও মায়ের মৃত্যুর ঘটনার রহস্য উদঘাটন হয়নি। মর্মান্তিক এই ঘটনা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। মা হাদিসা বেগম নিজের দুই শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করেছেন না-কি পরিকল্পিতভাবে হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে এ নিয়ে নানা প্রশ্ন ঘুরফাক খাচ্ছে। হাদিসা বেগমই যদি এমনটি করে থাকেন তাহলে এর পেছনে কি কারণ রয়েছে এমন প্রশ্নের জবাব খুজছেন স্থানীয়রা। হাদিসার স্বামী ও স্বামীর পরিবারের লোকজন গা-ঢাকা দেয়ায় ঘটনার রহস্য আরো ঘনীভূত হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে স্বামীসহ পরিবারের সবাই লাপাত্তা হয়ে গেছে। পুলিশসহ স্থানীয়রা কারো সন্ধান পাচ্ছেননা। এ ব্যাপারে হাদিসার পিতা শামীম মিয়া বাদী হয়ে গতকাল রাতে মাধবপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। হাদিসার স্বামী আব্দুল মজিদ, শ্বাশুরী রাজিয়া খাতুনসহ কয়েকজনকে আসামী ভুক্ত করা হয়েছে। গতকাল শনিবার একজনকে আটক করেছে ডিবি পুলিশ। তবে আটককৃত ব্যক্তির নাম প্রকাশ করা হয়নি।
এদিকে হাদিসার পিতা শামীম মিয়া ও ভাই দ্বীন ইসলাম দাবি করছেন, হাদিসা ও তার দুই সন্তানকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। গতকাল ময়নাতদন্ত শেষে লাশগুলোর তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
গতকাল শনিবার সরজমিনে প্রতিবেশীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, বিয়ের পর থেকেই হাদিসা বেগম এর সাথে তার স্বামী ও স্বামীর পরিবারের লোকদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া হত। হাদিসাকে তার স্বামী মারধরও করত। এ নিয়ে একাধিকবার বিচার বৈঠকও হয়েছে। ঘটনার দিন গত শুক্রবার সকালেও হাদিসা এবং তার স্বামী আব্দুল মজিদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে মজিদ স্ত্রী হাদিসাকে মারধর করে। মারধরের কারণে হাদিসা রাগান্বিত হয়ে খাওয়া-ধাওয়া বন্ধ করে দেয়। শেষ পর্যন্ত স্বামী আব্দুল মজিদ বিভিন্নভাবে অনুনয় বিনুনয় করে স্ত্রীকে ভাত খাওয়াতে সক্ষম হন। পরে দুপুরের দিকে মজিদ দোকানে চলে যান। পরবর্তীতে তিনি বাড়ি এসেছেন কি-না তা কেউ বলতে পারছেনা। অপরদিকে জনৈক প্রতিবেশী জানালেন, হাদিসার মাথায়ও কিছু সমস্যা ছিল।
প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার রাতে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামের ব্যবসায়ী আব্দুল মজিদের দুই শিশু সন্তান আড়াই বছরের মিম আক্তার এবং ৬ মাস বয়সের মোজাহিদুল ইসলাম শুভ ও স্ত্রী হাদিসা বেগম (২৫) এর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। দুই শিশুকে বলি দেয়ার মত অবস্থায় পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ৬ মাসের শিশু শুভ’র শরীর বিছানায় এবং মাথা মেঝেতে পাওয়া যায়। অপর শিশু মিমের শরীর এক জায়গায় এবং মাথা একই মেঝের পৃথক স্থানে পাওয়া যায়। মা হাদিসাকে উদ্ধার করা হয় বিছানা থেকে। তার গলায় রশি বাধা ছিল। মৃতদেহটি ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথেও রশি বাধা ছিল। ধারণা করা হচ্ছে হাদিসা ঝুলন্ত থাকাবস্থায় রশিটি ছিড়ে থাকতে পারে।
এলাকাবাসি ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল মজিদের সাথে প্রায় ৫ বছর পূর্বে বি-বাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তি ইউনিয়নের কেনা গ্রামের শামীম মিয়ার মেয়ে হাদিসা বেগমের বিয়ে হয়। আব্দুল মজিদ স্থানীয় ধর্মঘর বাজারে মুদিমালের ব্যবসা করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে আড়াই বছরের মেয়ে মীম ও ৬ মাসের ছেলে শুভ। সম্প্রতি আব্দুল মজিদ বসত বাড়ির দক্ষিণ-পূর্ব দিকে নতুন একটি ঘর নির্মাণ করেন। ওই ঘরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে তিনি বসবাস করছিলেন। পুরাতন ঘরে থাকেন তার মা রাজিয়া বেগম। মজিদ মিয়া প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার ধর্মঘর বাজারে দোকানে ছিলেন বলে জানা যায়। তার স্ত্রী হাদিসা বেগম ছেলে শুভ ও মেয়ে মিমকে নিয়ে ঘরে অবস্থান করছিলেন। সূত্র মতে সন্ধ্যার পরও দু’শিশুকে ঘরে খেলা করতে দেখেছেন তাদের দাদী রাজিয়া বেগম। রাত ৮টার দিকে ঘরে নিরবতা দেখে রাজিয়া খাতুন তাদের ঘরে যান। কোন সারা শব্দ না পেয়ে জানালা ভেঙ্গে ঘরে প্রবেশ করে নাতি-নাতনির গলাকাটা লাশ ও তাদের মা হাদিসা খাতুনকে সিলিং প্যানের সাথে ঝুলানো দেখতে পান। এ অবস্থায় তিনি রশি কেটে দিলে হাদিসা মেঝেতে পড়ে যায়। এ অবস্থা দেখে তিনি সুরচিৎকার শুরু করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল পুলিশকে খবর দেন। সাথে সাথে মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ চন্দন কুমার চক্রবর্তী ঘটনাস্থলে ছুটে যান।
ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল জানান, তিনি গিয়ে দেখতে পান ঘরের একটি কক্ষে খাটের উপর মেয়ে মীমের জবাই করা লাশের পাশে মেঝেতে মাথা এবং অপর কক্ষে ছেলে শুভ এর দেহ থেকে মাথা আলাদা অবস্থায় মাটিতে পড়ে আছে। এবং তাদের মা হাদিসা বেগম এর মৃতদেহ গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে ছিল।
ঘটনার পর থেকে হাদিসার স্বামী আব্দুল মজিদ, তার মা-ভাইসহ পরিবারের সকলেই আত্মগোপন করেছে। ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল, পুলিশসহ স্থানীয় লোকজন গভীর রাত পর্যন্ত খোঁজাখুজি করেও পরিবারের কোন সদস্যের সন্ধান পাননি। কি কারণে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটেছে তা এখনও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। খবর পেয়ে মাধবপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার এস.এম. রাজু আহম্মদ রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
এদিকে মাধবপুর থানার এসআই কামাল হোসেন লাশের সুরত হাল রিপোর্ট করে গতকাল শনিবার ময়নাতদন্তের জন্য লাশ হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন। দুপুরে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তবে এব্যাপারে পুলিশ নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেনি।
এদিকে হাদিসার ভাই দাবি করছেন, তার বোন ও সন্তানদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। মাধবপুর থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তি জানান, থানায় সাধারণ ডায়রীর মাধ্যমে লাশের ময়না তদন্ত করে আনা হয়েছে। মজিদের পক্ষের কেউ লাশ নিতে আসেনি। নিহত হাদিসার বাবা শামিম মিয়াসহ তার আত্মীয়স্বজন এসেছে। তাদের নিকট লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত থানায় কোন ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com