বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ০৪:০৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
২০ হাজার মানুষের গ্রামে একটি রাস্তাও পাকা নেই ॥ চরম দুর্ভোগ সাবেক মেয়র জিকে গউছের নামে ভূয়া ইউটিউব চ্যানেল ॥ থানায় জিডি নবীগঞ্জে সাংবাদিক আজাদের মায়ের ইন্তেকাল ॥ বিভিন্ন মহলের শোক নবীগঞ্জে বিদ্যুতপৃষ্টে বৃদ্ধের করুন মৃত্যু ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষে নবীগঞ্জে আলোচনা সভা বানিয়াচঙ্গে সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসি’র মতবিনিময় কারিতাস সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব সাদাছড়ি নিরাপত্তা দিবস পালন শায়েস্তাগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ডাকাত কুদরত নিহত ॥ ৬ পুলিশ আহত বাহুবলের সাবেক চেয়ারম্যান মুদ্দত আলীর বিরুদ্ধে মেয়াদোত্তীর্ণ কাগজ দিয়ে মাটি, বালু উত্তোলনের অভিযোগ আজমিরীগঞ্জে ইমামের পিছনে বসা নিয়ে সংঘর্ষ ॥ মহিলাসহ আহত ১০
মাধবপুরে বসত ঘরে গলাকাটা দু’শিশুসহ মায়ের লাশ উদ্ধার ॥ গৃহকর্তাসহ পরিবারের লোকজনের আত্মগোপন

মাধবপুরে বসত ঘরে গলাকাটা দু’শিশুসহ মায়ের লাশ উদ্ধার ॥ গৃহকর্তাসহ পরিবারের লোকজনের আত্মগোপন

আবুল হোসেন সবুজ, মাধবপুর থেকে ॥ মাধবপুরে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় মা হাদিসার মৃতদেহ ও জবাই করা তার দু’শিশু সন্তানের লাশ বসত ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। কেউ কেউ বলছেন মা তার দু’শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যার পর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আবার কেউ কেউ এটা পরিকল্পিত হত্যা বলেও ধারণা করছেন। মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামে গতকাল শুক্রবার রাত ৮ টার দিকে এ ঘটনাটি ঘটেছে। নিহতরা হচ্ছে ওই গ্রামের আব্দুল মজিদের স্ত্রী হাদিসা বেগম (২৫), তার দু’শিশু সন্তান মিম আক্তার আড়াই বছর ও ৬ মাসের শিশু সন্তান মোজাহিদুল ইসলাম শুভ। ঘটনার পর থেকে আব্দুল মজিদ, তার মা রাজিয়া খাতুন ও মজিদের ভাইসহ পরিবারের সকলেই আত্মগোপন করেছেন।
এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামের আব্দুল মজিদ প্রায় ৫ বছর পূর্বে বি-বাড়িয়া জেলার বিজয়নগর উপজেলার বুধন্তি ইউনিয়নের কেনা গ্রামের শামীম মিয়ার মেয়ে হাদিসা বেগমকে বিয়ে করেন। তাদের দাম্পত্য জীবনে দুই সন্তানের জন্ম হয়। তারা হচ্ছে আড়াই বছরের মেয়ে মীম ও ৬ মাসের ছেলে শুভ। আব্দুল মজিদ ধর্মঘর বাজারের মুদিমাল ব্যবসায়ী। সম্প্রতি আব্দুল মজিদ নতুন একটি ঘর নির্মাণ করেন। ওই ঘরে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে তিনি বসবাস করছিলেন। পুরাতন ঘরে থাকেন তার মা রাজিয়া বেগম। মজিদ মিয়া প্রতিদিনের ন্যায় গতকাল শুক্রবার ধর্মঘর বাজারে দোকানে ছিলেন বলে জানা যায়। তার স্ত্রী হাদিসা বেগম ছেলে শুভ ও মেয়ে মিমকে নিয়ে ঘরে অবস্থান করছিলেন। সূত্র মতে সন্ধ্যার পরও দু’শিশুকে ঘরে খেলা করতে দেখেছেন তাদের দাদী রাজিয়া বেগম। রাত ৮টার দিকে ঘরে নিরবতা দেখে রাজিয়া খাতুন তাদের ঘরে যান। কোন সারা শব্দ না পেয়ে ঘরে প্রবেশ করে নাতি-নাতনির গলাকাটা লাশ ও তাদের মা হাদিসা খাতুনের মৃতদেহ গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় ঘরে পড়ে থাকতে দেখতে পান। এ অবস্থা দেখে তিনি সুরচিৎকার শুরু করলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসে। খবর পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল পুলিশকে খবর দেন। সাথে সাথে মাধবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ চন্দন কুমার চক্রবর্তী ঘটনাস্থলে ছুটে যান। ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল জানান, তিনি গিয়ে দেখতে পান ঘরের একটি কক্ষে মেয়ে মীমের জবাই করার লাশের পাশে মাথা এবং অপর কক্ষে খাটের উপর ছেলে শুভ এর দেহ আর নীচে মাটিতে মাথা পড়ে আছে। এবং তাদের মা হাদিসা বেগম এর মৃতদেহ গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে ছিল।
ঘটনার পর থেকে হাদিসার স্বামী আব্দুল মজিদ, তার মা-ভাইসহ পরিবারের সকলেই আত্মগোপন করেছে। ইউপি চেয়ারম্যান শামসুল ইসলাম কামাল, পুলিশসহ স্থানীয় লোকজন গভীর রাত পর্যন্ত খোঁজাখুজি করেও পরিবারের কোন সদস্যের সন্ধান পাননি। কি কারণে এ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে তা এখনও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। এ মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে এলাকায় আলোচনা চলছে। মা তার দু’শিশু সন্তানকে জবাই করে হত্যা করে আত্মহত্যা করেছে না-কি কেউ পরিকল্পিতভাবে হত্যার ঘটনাটি ঘটিয়েছে তা কেউ পরিস্কার করে বলতে পারছেন না। তবে কেউ কেউ ধারনা করছেন-দু’সন্তানকে হত্যা করে মা আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে মাধবপুর সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার এস. এম. রাজু আহম্মদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com