রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৭:১৩ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জাতিকে মেধাশূন্য করতে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়-এমপি আবু জাহির চুনারুঘাটে স্কুল ছাত্রীকে হয়রানীর অভিযোগে যুবকের ১ বছর কারাদন্ড নবীগঞ্জে দীর্ঘদিন পরে সাংবাদিকদের বিরোধের অবসান ॥ প্রেসক্লাবের তফশীল ঘোষণা ॥ ২২ ডিসেম্বর নির্বাচন নবীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের বর্ধিত সভা ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ মোতাচ্ছিরুল ইসলামের প্রচেষ্ঠায় নিজস্ব অর্থায়নে রাস্তা নির্মাণ করছে যাদবপুর ও গোপালপুর গ্রামবাসী শচীন্দ্র কলেজে ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালন চুনারুঘাটে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা আউশকান্দি ছাত্রদলের বিক্ষোভ গ্রাম পুলিশের বেতন-ভাতা পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি করা হবে-এমপি মিলাদ গাজী নবীগঞ্জে আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ঔষধ বিক্রয় বন্ধে মতবিনিময় সভা
একই পদ, একই কর্মকর্তা এক উপজেলায় ১৫ বছর !

একই পদ, একই কর্মকর্তা এক উপজেলায় ১৫ বছর !

পাবেল খান চৌধুরী ॥ এক উপজেলায় টানা ১৫ বছর ধরে কর্মরত আছেন সরকারী এক কর্মকর্তা। তিনি ২০০৩ সাল থেকে অদ্যবধি এক উপজেলায় একই পদে বহাল আছেন। এক ব্যক্তি কি করে এত বছর এক উপজেলা চাকুরী করেন এ নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সরকারি বিধি মোতাবেক একই কর্মস্থলে কোনো কর্মকর্তা তিন বছরের বেশি থাকতে পারবেন না। তবে এর উল্টোটা ঘটেছে হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাওছার শোকরানার ক্ষেত্রে। তিনি দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত এই পদে অদ্যাবধি কর্মরত আছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কাওছার শোকরানা ২০০৩ সালের আগস্টে বানিয়াচং উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। তিনি মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা। সরকারি চাকুরিবিধি ও সর্বশেষ মন্ত্রিপরিষদের পরিপত্র অনুযায়ী একই কর্মস্থলে ৩ বছরের অধিক কর্মরত থাকার কোনো নিয়ম নেই। গুরুত্বপূর্ণ অফিসে ১৫ বছর ধরে তিনি কিভাবে কর্মরত আছেন এ বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে কানাঘুষা চলছে। বেশ কয়েকবার বদলীর আদেশে আসলেও তা কার্যকর হয়নি। এনিয়ে স্থানীয় শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ ও প্রশ্ন রয়েছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এডঃ আসাদুজ্জামান খান তুহিন বলেন, যতটুকু জানি ৩ বছর হলেই কোনো কর্মকর্তাকে তার কর্মস্থল থেকে বদলি করা হয়। তবে ১৫ বছর ধরে ওই কর্মকর্তা জনগুরুত্বপূর্ণ একটি সরকারি অফিসে কিভাবে কর্মরত থাকতে পারেন সেটিই এখন বড় প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান এ আইনজীবী।
এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা কাওছার শোকরানার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কর্তৃপক্ষ আমাকে বদলী না করলে আমার কি করার আছে। এখানে গত ১৩ আগষ্টে এমপি মহোদয়ের একটি অনুষ্টানকে ঘিরে আমার বিরুদ্ধে এসব কথা বার্তা উঠেছে। আমি কোন প্রকার দূর্নীতির সাথে জড়িত নই। একটি পক্ষ আমাকে অপরাধী সাজানোর চেষ্টা করছে।
এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন খন্দকারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, সরকারি বিধি মোতাবেক কর্মস্থলে ৩ বছর হলেই তাকে অন্যত্র বদলির নিয়ম আছে। তবে উনি কী কারণে বা কিভাবে এতদিন ধরে এই পদে কর্মরত আছেন তা কর্তৃপক্ষ ভালো বলতে পারবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com