বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০১৯, ১১:০১ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ শিক্ষকের নিক্ষিপ্ত এসিডে ছাত্র দগ্ধ ॥ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, শিক্ষক আটক ॥ তদন্ত কমিটি গঠন

হবিগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ শিক্ষকের নিক্ষিপ্ত এসিডে ছাত্র দগ্ধ ॥ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, শিক্ষক আটক ॥ তদন্ত কমিটি গঠন

মোঃ কাউছার আহমেদ ॥
হবিগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক ছাত্রকে এসিড নিক্ষেপ করেছেন ওই প্রতিষ্ঠানেরই এক শিক্ষক। এতে ছাত্রের পিটের একাংশ ঝলসে গেছে। এসিড নিক্ষেপকারী শিক্ষককে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা সড়ক অবরোধ করে। গতকাল শনিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে ওই প্রতিষ্ঠানের ক্লাস রুমে এসিড নিক্ষেপের ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ চেম্বার   অব কর্মাসের প্রেসিডেন্ট মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ মশিউর রহমান শামীম, গোপায়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান চৌধুরী মিজবাহুল বারী লিটনসহ স্থানীয় গনমান্য ব্যক্তিবগর্ব ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তারা শিক্ষার্থীদের শান্ত করে অবরোধ প্রত্যাহার করান।
এসিড আক্রান্ত ছাত্রের নাম মঈন উদ্দিন। তিনি কেমিস্ট শাখার নবম শ্রেণির ছাত্র এবং শহরতলীর বড় বহুলা গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে। এসিড নিক্ষেপকারী শিক্ষকের নাম আব্দুল কাইয়ুম। প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থীরা জানান, সকালে মঈন উদ্দিন ল্যাবে ক্লাস করতে যায়। এ সময় জুড়ে শব্দ করায় শিক্ষক আব্দুল কাইয়ুম ক্ষিপ্ত হয়ে তার শরীরে এসিড ছুড়ে মারেন। তাৎক্ষণিক অন্যান্য ছাত্ররা তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে ওই শিক্ষকের বিচার দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করে শিক্ষার্থীরা। হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। অবরোধের ফলে প্রায় ৩ ঘণ্টা সড়কে যান চলাচল বন্ধ থাকে। দুপুর দেড়টায় শিক্ষক আব্দুল কাইয়ুমকে পুলিশ আটক করলে শিক্ষার্থীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়।
এসিড দগ্ধ মঈনুদ্দিন জানায়, টেবিলে হাত দিয়ে জোরে শব্দ করলে শিক্ষক আব্দুল কাইয়ুম রাগের মাথায় তার শরীরে এসিড ছুড়ে দেন। সদর হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. দেবাশীষ দাশ জানান, পিঠের উপর থেকে বেশ কিছু অংশ এসিডে ঝলসে গেছে। হবিগঞ্জ টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ হাবিবুর রহমান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, কেমিস্ট ল্যাবে শনিবার প্র্যাক্টিকেল ক্লাস চলছিল। এ সময় ওই ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত শিক্ষক বলছেন পানি মনে করে তিনি ছুড়ে মেরেছিলেন। কিন্তু প্রকৃত অর্থে সেখানে এসিড ছিল। বিষয়টি তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হচ্ছে। দায়ী ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
হবিগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ ইয়াছিনুল হক জানান, খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। আটক শিক্ষককে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্জিনা আক্তার বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত শিক্ষককে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত। শিক্ষক ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com