শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে টিসিবির পেয়াজ কিনতে গিয়ে ট্রাক থেকে পড়ে আহত ১ বানিয়াচঙ্গে প্রতিবন্ধীর ভাতা ছিনিয়ে নিলেন এক সমাজকর্মী ও ইউপি সদস্য আওয়ামীলীগ জগণের উন্নয়ন ও অগ্রগতির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে-এমপি আবু জাহির নবীগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের খাবারের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন ? একটি টেকসই বিশ্ব গড়তে বাংলাদেশ আইএমও এর সদস্য দেশসমূহের সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করবে-ড. মোহাম্মদ শাহ্ নেওয়াজ নবীগঞ্জে উপজেলা যুবলীগের শহীদ শেখ ফজলুল হক মণির জন্মদিন পালিত যুবলীগের উদ্যোগে শেখ ফজলুল হক মনি’র ৮০তম জন্মদিন উদযাপন মাধবপুর উপজেলার শ্রেষ্ট বিদ্যুৎসাহী সাংবাদিক অলিদ ঢাকার ব্যবসায়ীর আবেদনের প্রেক্ষিতে পাওনা টাকা উদ্ধার করে দিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম আজমিরীগঞ্জে বিষপানে গৃহবধুর আত্মহত্যা
শহরতলীর ভাদৈ গ্রামে ভাগ্নের কোদালের আঘাতে মামা খুন

শহরতলীর ভাদৈ গ্রামে ভাগ্নের কোদালের আঘাতে মামা খুন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হবিগঞ্জ শহরতলীর ভাদৈ গ্রামের বিল্ডিংয়ে কাজ করতে গিয়ে ভাগ্নের কোদালের আঘাতে মামা খুন হয়েছে। মামা-ভাগ্নে দুইজনই রাজমিস্ত্রি। এঘটনায় ঘাতক ভাগ্নেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নিহত মামার নাম মালেক মিয়া (৩০)। তিনি সদর উপজেলার গোপায়া গ্রামের মৃত রঙ্গিলা মিয়ার ছেলে। ঘাতক ভাগ্নে ফরিদ একই উপজেলার নিতাইর চক গ্রামের বাসিন্দা। গতকাল শনিবার বিকেলে হবিগঞ্জ শহরতলীর পশ্চিম ভাদৈ গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের বাড়িতে কাজ করার সময় এ ঘটনাটি ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পশ্চিম ভাদৈ গ্রামে আব্দুল কাইয়ুমের বাড়ির নির্মাণাধীন বাড়ীতে কাজ করার সময় মালেক ও তার ভাগ্নে ফরিদের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ফরিদ তার হাতে থাকা কোদাল দিয়ে মামার মাথায় আঘাত করে। আঘাত পেয়ে মালেক মিয়া রক্তাক্ত অবস্থায় দৌড়ে ভাঙ্গাপুল সড়কে আসে। এমতাবস্থায় একজন টমটম চালক তাকে দেখতে পেয়ে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সাথে সাথে খবর পেয়ে মালেকের স্বজনরা হাসপাতালে ছুটে আসেন। হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মালেককে মৃত বলে ঘোষণা করেন। হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. দেবাশীষ দাস জানান, প্রথমে বলা হয়েছিল ছাদ থেকে পড়ে মালেক মারা গেছেন। কিন্তু পরে জানানো হয় কোদালের আঘাতে তিনি মারা যান। তবে মাথায় কোদালের আঘাতে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।
গোপায়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আক্তার হোসেন জানান, মামা-ভাগ্নে মিলে ভাদৈ গ্রামের একটি বাড়িতে কাজ করার সময় ঝগড়া হয়। এ সময় ভাগ্নের কোদালের আঘাতে মামা খুন হয়। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক বলেন, ফরিদ মিয়া এবং মালেক মিয়া রাজমিস্ত্রির কাজ করে। বিকেলে কাজ করার সময় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে তাদের মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ফরিদের কোদালের আঘাতে মালেকের মৃত্যু হয়েছে এবং হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত কোদাল উদ্ধার করা হয়েছে।
এ ঘটনায় জড়িত ফরিদকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে সে হত্যার কথা শিকার করেছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com