বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
সবাইকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে ছোট্ট ছোঁয়া দাফন সম্পন্ন ॥ পরিবারে চলছে শোকের মাতম প্রধানমন্ত্রী অবহেলিত মানুষের কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিচ্ছেন-ডাঃ মুশফিক চৌধুরী নবীগঞ্জে বিভিন্ন স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণে অতিরিক্ত ফি আদায় বাহুবলে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ডাকাতি ॥ আটক ১ বারাপৈলের জয়নাল মিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় প্রতিবাদ সমাবেশ নবীগঞ্জে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বিএনপি নেতা আব্দুল হাই বহিষ্কার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে মোতাচ্ছিরুল ইসলামের মতবিনিময় দক্ষিণ তেঘরিয়া থেকে এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার চান্দপুর ও মির্জাপুরে মাদক ও দাঙ্গা প্রতিরোধে সচেতনতামূলক সভা বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস হবিগঞ্জ জেলা শাখার প্রশিক্ষণ বৈঠক অনুষ্ঠিত
নবীগঞ্জে দূর্গামন্দিরের বরাদ্দকৃত ৪০ হাজার টাকা সরকারী কোষাগারে ফেরৎ দিলেন কথিত কমিটি

নবীগঞ্জে দূর্গামন্দিরের বরাদ্দকৃত ৪০ হাজার টাকা সরকারী কোষাগারে ফেরৎ দিলেন কথিত কমিটি

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ কর্মসূচির আওতায় টিআর ২য় পর্যায়ে নবীগঞ্জ উপজেলার করগাওঁ ইউনিয়নের পাঞ্জারাই গ্রামে দূর্গামন্দিরের উন্নয়নের জন্য বরাদ্দকৃত ৪০ হাজার টাকা অবশেষে সরকারী কোষাগারে ফেরৎ দিয়েছেন কথিত কমিটি। মূল কমিটিকে ফাস কাটিয়ে ভুয়া কমিটি বানিয়ে টিআর এর বরাদ্দকৃত টাকা উত্তোলন করে কোন কাজ না করেই আত্মসাত করার অপচেষ্টার অভিযোগ করেন পাঞ্জারাই গ্রামে দূর্গামন্দির কমিটি। বিগত ২৩ জুলাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছিলেন মন্দির কমিটির সভাপতি রঘু রায় এবং সাধারন সম্পাদক দিবাকর দাশ দিলুসহ গ্রামবাসী।
অভিযোগে প্রকাশ, উক্ত মন্দিরের উন্নয়নের জন্য সংরক্ষিত আসনের এমপি এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী ৪০ হাজার টাকা টিআর বরাদ্দ প্রদান করেন। কিন্তু দুর্গামন্দিরের প্রকৃত কমিটিকে ফাস কাটিয়ে একই গ্রামের মছলম আলীর ছেলে কমরু মিয়া এবং অবনি দাশের ছেলে ভানু দাশ বিগত ১০/০৫/২০১৮ইং তারিখে নবীগঞ্জ পিআইও অফিস থেকে উক্ত টাকা উত্তোলন করেন। টাকা মন্দির সংস্কার কাজে ব্যয় না করে আত্মসাতের পায়তারা করে আসছিলেন। এ ঘটনায় এলাকায় বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে গ্রামবাসী ও মন্দির কমিটির পক্ষে প্রায় অর্ধ শতাধিক লোকজনের স্বাক্ষর সংম্বলিত একটি অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে স্থানীয় পত্রিকায় ফলাও করে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এক পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের হস্তক্ষেপে পাঞ্জারাই দুর্গা মন্দির উন্নয়ন প্রকল্পের অব্যয়িত ৪০ হাজার টাকা গত ৩১ জুলাই সোনালী ব্যাংক নবীগঞ্জ শাখায় ১-৪৯৩১-০০০০-২৬৮১ নং কোডে সরকারী কোষাগারে জমাদেন ভুয়া প্রকল্প কমিটির সভাপতি কমরু মিয়া। এ ব্যাপারে মন্দিরের প্রকৃত কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন, কতিপয় ব্যক্তির কারনে মন্দির উন্নয়নের অব্যয়িত টাকা ফেরৎ যাওয়ায় মন্দিরের ক্ষতি হলো। তাদের দাবী সনাতন ধর্মের মন্দির উন্নয়নের টিআর প্রকল্পের কমিটিতে কমরু মিয়া কিভাবে সভাপতি হন তা তাদের বোধগোম্য নয়। বিষয়টি তারা জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com