বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৪:৩৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে কৃষকরা হতাশ

ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে কৃষকরা হতাশ

আজিজুল ইসলাম সজীব ॥ বৈরী আবহাওয়া মোকাবেলা করে ধান ঘরে তুলতে পারলেও ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না কৃষকরা। যথাসময়ে সরকারীভাবে ধান সংগ্রহ না হওয়ায় পানির ধরে ধান বিক্রি করতে হচ্ছে কৃষকরা। আবার সরকারীভাবে ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হলেও অধিকাংশ কৃষকই গুদাম কর্তৃপক্ষের করসাজির কারণে সেই সুযোগ থেকেও বঞ্চিত হতে হয়।
গত ২ মে থেকে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান-চাল ক্রয় কার্যক্রম শুরু করার কথা থাকলেও নির্ধারিত সময় পেরিয়ে মাত্র এক দিন হলো আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে সরকারিভাবে ধান-চাল ক্রয়কার্যক্রম। ফলে কৃষকেরা জীবনযাপনের তাগিদে স্বল্পমূল্যে স্থানীয় পাইকারদের কাছে ধান-চাল বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। পর পর কয়েক বছর ফসল হারিয়ে মহাবিপদে পড়েছিলেন হাওরপাড়ের কৃষকেরা। সরকারিভাবে ন্যায্যমূল্যে কৃষকদের কাছ থেকে গুদামগুলোতে সঠিক সময়ে ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু না করায় স্বল্পমূল্যে স্থানীয় পাইকারিদের কাছে বিক্রি করতে হয়েছে কষ্টার্জিত সোনালি ধান। ধান কাটতে শ্রমিক সঙ্কটের পাশাপাশি অর্থসঙ্কটেও ছিলেন কৃষকেরা। বাধ্য হয়ে শ্রমিকের মজুরি ও ঋণ পরিশোধ এবং পরিবারের চাহিদা পূরণে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছে মণপ্রতি ৪৫০ টাকা থেকে ৬০০টাকা দামে ধান বিক্রি করে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন কৃষকেরা। অধিকাংশ কৃষক উৎপাদন খরচও পাচ্ছেন না।
মাধবপুরের কৃষক ফারুক মিয়া বলেন, সরকার এ বছর কৃষকদের কাছ থেকে ন্যায্যমূল্যে ধান-চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু করতে দেরি করায় স্বল্পমূল্যেই স্থানীয় বেপারিদের কাছে সাড়ে ৫০০ থেকে সাড়ে ৬০০ টাকা মণ ধরে ধান বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছি। আর সরকারি খাদ্যগুদামে ধান দিতে গেলেও ধরতে হয় বিভিন্ন দালাল ও সরকারি দলের নেতাদের। এত ঝামেলা সহ্য করে কোনো লাভ হয় না। কৃষক সজল মিয়া বলেন, গত বছর ফসল হারিয়ে এবার মোটামুটি ভালো ফসল পেয়েছি, কিন্তু ধানের সঠিক মূল্য না পাওয়ায় খরচই উঠানো কঠিন হয়ে পড়বে। প্রত্যেক বছর সরকার কৃষকদের কাছ থেকে ন্যায্যমূল্যে ধান কিনলেও এবার অনেক দেরি করেছে। তবে শুনেছি ২৬ টাকা কেজি ধরে ধান কেনা হবে কৃষকদের কাছ থেকে।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলার ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মো: আবু জাহির বলেন, কৃষি অফিসের কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে যদি কৃষকদের তালিকা তৈরি করা যেতো তাহলে প্রকৃত কৃষকেরাই গুদামে সরাসরি ধান বিক্রি করে লাভবান হতো।
হবিগঞ্জ সদর উপজেলা খাদ্যকর্মকর্তা জানান, ধান কেনার সিদ্ধান্ত এখনো পাওয়া যায়নি। তাই এখনো ধান কেনা শুরু করতে পারছেন না। তবে কয়েক দিনের মধ্যেই সিদ্ধান্ত পাওয়ার সাথে সাথে ধান কেনা শুরু করা হবে। প্রকৃত কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনতে পারলে কৃষকেরা লাভবান হবেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com