শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
নবীগঞ্জে ৬ হাজার কেজি নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ ॥ ১ লাখ টাকা জরিমানা বানিয়াচংয়ে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে দখলমুক্ত হল সরকারী জায়গা বিদ্যুৎ বিভাগের সহকারী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ মুফতি আলাউদ্দীন জিহাদীর মুক্তির দাবিতে হবিগঞ্জে আহলে সুন্নাতের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ ভাষা সৈনিক আফরোজ বখত এর মৃত্যুতে ডাঃ মুশফিক চৌধুরীর শোক হবিগঞ্জে নতুন করে ৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবিগঞ্জ পৌরসভার মালিকানাধীন ভূমি কৌশলে অবৈধ দখল হয়ে যাচ্ছে জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে মাধবপুর ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা শহরের পানি ট্যাংকি এলাকা থেকে মাদক বিক্রেতা আটক সৈয়দ আফরোজ বখত এর মৃত্যুতে হবিগঞ্জ গণফোরাম সভাপতির শোক
নার্স-আয়া ও ডাক্তারের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ ॥ নবীগঞ্জে নবজাতকসহ প্রসূতি শিক্ষিকার মৃত্যু

নার্স-আয়া ও ডাক্তারের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ ॥ নবীগঞ্জে নবজাতকসহ প্রসূতি শিক্ষিকার মৃত্যু

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জ হাসপাতালে নার্স, আয়ার ও ডাক্তারদের গাফিলতির কারণে প্রসূতি স্কুল শিক্ষিকা ও নবজাতকের মৃত্যুর হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিহত প্রসূতির নাম সুফলা রাণী দাশ (৩৩)। তিনি উপজেলার রোকনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা এবং নবীগঞ্জ পৌর এলাকার শিবপাশা গ্রামের মৃত সুমেশ চন্দ্র দাশের কন্যা ও উপজেলার আমড়াখাইড় গ্রামের রিপন তালুকদারের স্ত্রী। গত বুধবার সন্ধ্যায় নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনাটি ঘটেছে।
নিহত শিক্ষিকা সুফলা রাণী দাশের মাতা প্রনতি রাণী দাশ জানান, তার কন্যা গর্ভবতী হওয়ার পর থেকেই তারা তাদের বাসার প্রতিবেশি নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত আয়া নমিতা রানী আচার্য্যর পরামর্শ নিয়ে আসছিলেন। ঘটনার ৩ দিন পূর্বে রবিবার বিকেলেও আয়া নমিতা রাণী পৌর এলাকার শিবপাশা গ্রামস্থ তাদের বাসায় গিয়ে সুফলা রাণী দাশকে দেখে আসেন এবং বলেন তার প্রসবের আরো ৩ দিন সময় আছে। তবে সবকিছু টিক আছে। গত বুধবার বিকেল ৩ টার দিকে সুফলার প্রসব ব্যথা শুরু হলে সুফলার পরিবার আয়া নমিতাকে খবর দেন। খবর পেয়ে নমিতা প্রসূতির বাড়িতে যান। এসময় তিনি সূফলাকে তার সাথে নিয়ে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে প্রসূতির সব ধরণের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রসূতির ডেলিভারীর কাজ শুরু করেন। এ সময় প্রসব ব্যথায় কাতর প্রসূতির সুফলা অসহ্য হয়ে ছটফট ও হাউ-মাউ করে কান্নাকাটি করলে তারা তাকে শান্তনা না দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করেন। প্রসূতির মা প্রনতি রাণী মেয়ের অবস্থার অবনতি দেখে তিনি আয়া নমিতা ও তার সহযোগিদের কাছে কাকুতি-মিনতি করে তাদেরকে ডেলিভারী কক্ষে আনেন। তাদের অনেক বুঝানোর পর তারা ওই হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক চম্পক কিশোর সাহা সুমনকে প্রসূতির পাশে আনেন। তিনি এসে পরীক্ষা নীরিক্ষার পর প্রসূতির অবস্থা স্বাভাবিক রয়েছে বলে মাকে শান্তনা দিয়ে জরুরী বিভাগে চলে যান। এরই মধ্যে প্রসূতির গর্ভের সন্তান অর্ধেক ভূমিষ্টের পথে। কিন্তু আয়া ও নার্সরা প্রসূতির সন্তানকে কোনভাবে উদ্ধার করতে না পেরে ‘কেচি দিয়ে কেটে’ নবজাতককে উদ্ধারের চেষ্টা করেন। এতে প্রসূতির অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ শুরু হয়। এভাবে তারা সুফলার মৃত নবজাতক উদ্ধার করে। কিন্তু সুফলার রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছিলনা। শেষ পর্যন্ত তার অবস্থার অবনতি দেখে দীর্ঘ প্রায় ৩ ঘণ্টা পর সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাঁকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পথিমধ্যে আউশকান্দি সংলগ্ন স্থানে পৌছলে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন প্রসূতি সুফলা রাণী দাশ।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রসূতি সুফলার মা প্রনতি রাণী দাশ কান্না জড়িত কন্ঠে এ প্রতিনিধিকে জানান, তার মেয়ের এমন রক্তক্ষরণ হয়েছে যা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। ওই সময় তার রক্তে ডেলিভারী কক্ষ ভেসে গিয়েছিল। তার মেয়ের শরীরে এতো রক্ত ছিল যা তিনি কল্পনাও করতে পারেননি। তিনি জানান, সুফলার আরো একটি শিশু বাচ্চা রয়েছে। মাকে না পেয়ে সে কান্নাকাটি করছে।
এ ব্যাপারে ওই দিন জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাঃ চম্পক কিশোর সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আয়া নমিতার তত্ত্বাবধানে প্রসূতির পরিবার তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন এবং তিনি গিয়ে দেখেছেন প্রসূতি মৃত বাচ্চা প্রসব হয়েছে। প্রসূতির অধিক রক্তরক্ষণের ফলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের (ভারপ্রাপ্ত) টিএইচও ডাঃ আব্দুস সামাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জেনেছি ওই দিন ওই প্রসূতির মৃত বাচ্চা ভূমিষ্ট হয়েছে এবং অবস্থা খারাপ দেখে তাকে সিলেট রেফার্ড করা হয়েছে এবং পথিমধ্যে সে মারা যায়।
এদিকে ভুল চিকিৎসায় স্কুল শিক্ষিকার মৃত্যুর ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন সচেতন মহল।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com