সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:২৪ পূর্বাহ্ন

এ্যাম্বুলেন্সে সাইরেন বাজিয়ে মোটর সাইকেল ও মাইক্রোর মহড়া দিয়ে হাই কের্টের জামিনের কাগজ আদালতে জমা দিতে এসেছিল ॥ কারাগারে মেয়র গউছের উপর হামলাকারী ইলিয়াছ

এ্যাম্বুলেন্সে সাইরেন বাজিয়ে মোটর সাইকেল ও মাইক্রোর মহড়া দিয়ে হাই কের্টের জামিনের কাগজ আদালতে জমা দিতে এসেছিল ॥ কারাগারে মেয়র গউছের উপর হামলাকারী ইলিয়াছ

SAMSUNG CAMERA PICTURES

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ৩০/৩৫টি মোটর সাইকেল ও কুড়ি খানেক মাইক্রো এবং একটি এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে সাইরেন বাজিয়ে শোডাউনের মাধ্যমে শতাধিক যুবক সাথে নিয়ে ফিল্মী ষ্টাইলে হাই কোর্ট থেকে জামিনের কাগজ হবিগঞ্জ আদালতে জমা দিতে এসেছিল কারাগারে হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জি কে গউছকে হত্যার চেষ্টাকারী এবং শায়েস্তাগঞ্জের আলোচিত সুজন হত্যা মামলার আসামী ইলিয়াছ আলী। সে শায়েস্তাগঞ্জের দাউদনগর গ্রামের কনা মিয়ার পুত্র।
প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায়- গতকাল বেলা যখন তিনটা তখন হঠাৎ ৩০/৩৫টি মোটর সাইকেল আর ১৫/২০টি মাইক্রোর হর্ণ এবং এ্যাম্বুলেন্সের সাইরেনের শব্দ। এ গুলো হবিগঞ্জ আদারত প্রাঙ্গণে প্রবেশ করেছে। সবার দৃষ্টি সেই দিকে। এরই মধ্যে শায়েস্তাগঞ্জের আলোচিত সুজন হত্যা মামলা ও ২০১৫ সনে ইদুল ফিতরের দিন হবিগঞ্জ কারাগারে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হবিগঞ্জ পৌর মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছকে হত্যার চেষ্টার মামলার প্রধান আসামী ইলিয়াছ আলী গাড়ি থেকে নামলেন। সাথে শতাধিক যুবক। এরা ফিল্মি স্টাইলে গাড়ি থেকে নেমে ‘ইলিয়াছ আলী জামিনে বেরিয়ে এসেছে’ শ্লোগান সহকারে আদালতে প্রবেশ করে। এরা দ্বিতীয় তলায় উঠতে চাইলে কোর্ট পুলিশ তাদেরকে বাঁধা। এতে তাদের মাঝে বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে দ্বিতীয় তলায় উঠতে না পেরে ফিরে আসে। এ সময় আদালতে আসা বিচার প্রার্থীদের মাঝে আতংক বিরাজ করে।
জজ কোর্টের কয়েকজন কর্মচারি, আইনজীবি ও বিচারপ্রার্থীরা জানান, তাদের কর্মজীবনে জজ কোর্টের ভেতরে শ্লোগান সহকারে কাউকে আসতে দেখেননি। ইলিয়াছের সাথে আসা কয়েকজন যুবক জানায়, তারা হাইকোর্টের জামিনের কাগজ আদালতে জমা দিতে এসেছিল। পরে শ্লোগান সহকারে বীরদর্পে আদালত থেকে বের হয়ে চলে যায়।
উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে শায়েস্তাগঞ্জে নিরীহ যুবক সুজনকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়। ওই মামলাসহ বিভিন্ন মামলায় সে কারাগারে যায় শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার বিরামচর গ্রামের বাসিন্দা ইলিয়াস আলী। এরপর থেকে সে কারাগারেই ছিল। এদিকে সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এস এম কিবরিয়া হত্যা মামলায় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ কারান্তরীন হন। হবিগঞ্জ কারাগারে অন্তরীন অবস্থায় ২০১৫ সালের ১৮ জুলাই কারাগারে ঈদুল ফিতরের নামাজ শেষ হবার পর পরই ইলিয়াছ মিয়া ওরফে ছোটন পেছন দিক থেকে বালতির লোহার হাতল দিয়ে জিকে গউছের পিটে ঘাই মারে। এতে গউছ আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে মাটিতে লুঠিয়ে পড়েন। পরে কেন্দ্রীয় কারাগারের মাধ্যমে গউছকে ঢাকাস্থ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা করানো হয়।
এ ঘটনায় হবিগঞ্জ কারাগারের জেলার শামীম ইকবাল বাদী হয়ে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় ইলিয়াছকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয় আদালতে। রিমান্ড আবেদন শুনানীকালে আদালতে ইলিয়াছ তার বক্তব্যে জানায়, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলায় করান্তরীণ হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব জি কে গউছ তার সাথে একাধিকবার বৈঠক করে। এ সময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতকে হত্যার জন্য ১০ কোটি টাকা এবং হবিগঞ্জ-লাখাই আসনের সংসদ সদস্য এডঃ মোঃ আবু জাহিরকে হত্যার জন্য ২ কোটি টাকায় তার সাথে চুক্তিবদ্ধ হন জিকে গউছ। চুক্তি অনুযায়ী ঈদুল ফিতরের আগে ইলিয়াছের জানিনের ব্যবস্থা করবেন জিকে গউছ। এবং প্রাথমিক ভাবে গউছ ১০ লাখ টাকা প্রদান করবেন ইলিয়াছকে। এবং দু’জনকে হত্যার পর অবশিষ্ট ১১ কোটি ৯০ লাখ টাকা পরিশোধ করা হবে। তাকে জামিনে মুক্ত ও অগ্রিম ১০ লাখ টাকা প্রদান না করায় এ নিয়ে ইলিয়াছের সাথে কারাগারে গউছের বিবাদের সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে ঈদের দিনের ঘটনা।
সূত্রে জানা যায়, মেয়র জি কে গউছের উপর হামলার ঘটনায় দায়েরী মামলাটি এখনো তদন্তাধিন রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com