সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০, ০৬:১৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
রিচিতে টমটম ধাক্কায় আহত এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহত ॥ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানে চাঞ্চল্যকর গণধর্ষণ মামলার আসামি গ্রেফতার শায়েস্তাগঞ্জ ১০ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক উমেদনগর পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ে এমপি আবু জাহির ॥ সমাজে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে মানসম্পন্ন শিক্ষার বিকল্প নেই এপিপি আবুল কালামকে আ.লীগ থেকে অব্যাহতি নবীগঞ্জে হত্যাসহ ৬ মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার নবীগঞ্জে অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার নবীগঞ্জ সরকারি কলেজ ছাত্রদলের উদ্যোগে জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী পালিত স্বপ্নধারা সোসাইটি অব হবিগঞ্জের শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মজিদ খানকে বানিয়াচং প্রেসক্লাবের শুভেচ্ছা
নবীগঞ্জে ফের পাহাড়ের মাটি লুট সরজমিন পরিদর্শন করলেন ইউএনও

নবীগঞ্জে ফের পাহাড়ের মাটি লুট সরজমিন পরিদর্শন করলেন ইউএনও

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ নবীগঞ্জে এক সময়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর পাহাড়ি এলাকা খ্যাত দিনারপুর এলাকায় ফের পাহাড় কাটা শুরু হয়েছে। যেটুকু অবশিষ্ট ছিল তা-ও বিলীন হওয়ার পথে। মাঝে মধ্যে প্রশাসন উদ্যোগ নিলেও কিছু দিন বন্ধ থাকে। কিন্তু পরবর্তীতে আবারো শুরু হয় পাহাড় কাটা। কোনভাবে থামানো যাচ্ছেনা পাহাড় খেকোদের।
গতকাল বুধবার সরেজমিনে পাহাড় কাটার স্থান পরিদর্শন করেছেন নবীগঞ্জের নবাগত উপজেলা নির্বাহী অফিসার তৌহিদ বিন হাসান। পাহাড় কাটার দৃশ্য দেখে তিনি জানান, পাহাড় যারা কাটছে তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
এলাকাবাসী জানান, দিনারপুর পাহাড়ি এলাকা এক সময় প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যে ভরপুর ছিল। খন্ডখন্ডভাবে প্রাকৃতিকভাবে গড়ে উঠা টিলা ও এসব পাহাড়ে বাঘ, ভালুক, হরিণ এবং বানরসহ বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণি বাস করত। মুক্তিযুদ্ধে দিনারপুর পাহাড়ের যথেষ্ট অবদান ছিল। এই পাহাড়কে অবলম্বন করে মুক্তিযোদ্ধারা প্রশিক্ষণসহ যুদ্ধ করেছেন। এ পাহাড়কে সরকারিভাবে পৃষ্টপোষকতা করা হলে পর্যটন স্পট হিসেবে গড়ে তোলা যেত। সেই সাথে পাহাড়ের ঐতিহ্য রক্ষা করা যেত।
কিন্তু সরকারিভাবে দেখাশুনা করা ও পৃষ্টপোষকতা না থাকায় কালের আবর্তে সেই ঐতিহ্য বিলুপ্তির পথে। পাহাড় যেমন নেই, তেমনি নেই বন্যপ্রাণিও। কতিপয় স্বার্থান্বেষি মহল পাহাড়ের সেই ঐতিহ্যকে ধূলিস্যাত করে দিয়েছে। সেই সাথে পরিবেশের ওপরও বিরূপ প্রভাত পড়ছে। কিন্তু এজন্য স্বার্থান্বেষি মহলের কাউকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে এমন খবর পাওয়া যায়নি।
পাহাড়ের সবচেয়ে বেশী ক্ষতি হয়েছে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক নির্মাণের সময়। ওই সময় এক শ্রেণির লোক পাহাড় কেটে এর মাটি মহা-সড়কে সরবরাহ করেছে। এমনিভাবে অনেকেই আঙ্গুল ফুলে তালগাছে পরিণত হয়েছে। এমন অবস্থা এখনও চলছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পাহাড়ের মাটি এখনো সরবরাহ করা হচ্ছে। যারা এ কাজে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
এব্যাপারে জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা বলেন, পাহাড় কেটে যারা বিলীন করে দিচ্ছে তাদের ছাড় দেয়া হবেনা। সরকারের সম্পদ যারা নষ্ট করে দিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ারও আশ^াস দেন তিনি।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com