মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
লবন নিয়ে গুজব ॥ মুদির দোকানে ক্রেতাদের ভীড় বাহুবল উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতির ২ মাসের কারাদন্ড জেলা আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভায় আহমদ হোসেন ॥ আমাদের যাতে রাজপথে যেতে না হয় সে জন্য মিলেমিলে কাজ করতে হবে কুলাঙ্গার পুত্রের কান্ড ! নবীগঞ্জে প্রতি কেজি পেয়াজ ৫৫-৬০ টাকার বেশি বিক্রি করলেই ১ লাখ টাকা জরিমানা-ইউএনও নবীগঞ্জে ৪ মাদকসেবী আটক নবীগঞ্জের তরুণীকে অপহরণ করে ধর্ষণের চেষ্টায় গ্রেপ্তার ২ জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে ট্রেন দুর্ঘটনায় আহত সোহেল ॥ চিকিৎসার ব্যয়ে দিশেহারা পরিবার বাহুবলে ৩শ বস্তা সরকারী চাল জব্দ ॥ ১ জন আটক মাদক স¤্র্রাট জুয়েল নিষিদ্ধ অফিসার চয়েজসহ গ্রেপ্তার
হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ ॥ শহরে চাঁদা না দেয়ায় হিন্দু পরিবার হামলার শিকার

হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ ॥ শহরে চাঁদা না দেয়ায় হিন্দু পরিবার হামলার শিকার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শহরে এক হিন্দু পরিবারের উপর হামলা এবং ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। এতে পরিবারের লোকজন আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছে। হামলার শিকার হবিগঞ্জ শহরের বাতিরপুর কালিগাছতলার বাসিন্দা প্রহলাদ দাস গতকাল সোমবার দুপুর ১টার দিকে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন।
তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমি ওই এলাকায় পরিবার পরিজন নিয়ে সুনামের সাথে বসবাস করে আসছি। সম্প্রতি হবিগঞ্জ শহরের চিহ্নিত একদল চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসী দ্বারা আমি চরমভাবে লাঞ্ছিত ও নিপীড়নের শিকার হয়েছি। গত ২ ডিসেম্বর সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্য দিবালোকে আমার বাসায় প্রবেশ করে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে। সন্ত্রাসীরা আমার স্ত্রীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে তাকে জিম্মি করে। তাদের হাত থেকে আমার অবুঝ দুই শিশুও রক্ষা পায়নি। সন্ত্রাসীরা তাদেরকেও মারধর করে আহত করে। সন্ত্রাসীদের ভয়ভীতির কারণে আমি ও আমার পরিবার চরম আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছি। আমার পরিবারের সদস্যদের এখনো ভীতি কাটেনি। অপরিচিত লোক দেখলেই আতংকিত হয়ে পড়ে আমার স্ত্রীসহ শিশু সন্তানরা। তিনি এ ব্যাপারে প্রশাসনের কাছে নিরাপত্তা দাবি করেন।
ঘটনা সম্পর্কে প্রহলাদ দাস বলেন, হবিগঞ্জ পৌর শহরের গার্নিং পার্ক এলাকার সুশান্ত গুপ্ত নেতৃত্বে নোয়াহাটি, ঘাটিয়া, বাতিরপুর ও নাতিরপুরসহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা তনু দাস, হরিদাস, সুমন, শ্যামল ওরপে বাঘা, নজির মিয়া ও সুজন মিয়াসহ একদল সন্ত্রাসী দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন সমাজবিরোধী কার্যকলাপ চালিয়ে আসছে। তারা দীর্ঘদিন ধরে আমার নিকট চাঁদা দাবি করে আসছে। তাদের দাবিকৃত চাঁদার টাকা না দেয়ায় তারা আমার প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে ওই দিন রাত ১০টার দিকে চাঁদার দাবিতে পিস্তলসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমার বাসায় প্রবেশ করে আমাকে খুঁজতে থাকে। তারা আমাকে না পেয়ে আমার স্ত্রীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে তাকে জিম্মি করে। এ সময় আমার স্ত্রীর নিকট ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে বলে ‘যদি টাকা না দেয়া হয় তাহলে তাকে মেরে ফেলবে। আমার স্ত্রী তাদেরকে কাকুতি মিনতি করে এত টাকা নেই বললে, আমার স্ত্রীর গলায় রামদা ধরে চিৎকার করতে বারণ করে এবং আলমিরার চাবি দিতে বলে। তখন আমার স্ত্রী চাবি দিতে অস্বীকার করলে সন্ত্রাসীরা আমার তিন বছর বয়সী অবুঝ পুত্র সৃজন কর্মকারকে জোরপূর্বক তাদের কাছে নিয়ে খুন খরার ভয়ভীতি দেখায় এবং আমার স্ত্রীকে মারপিট করতে থাকে। সে সময় আমার স্ত্রী ও সন্তানরা চিৎকার করলে তারা আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং তাদের নির্যাতনের মাত্রা বাড়াতে থাকে।
সন্ত্রাসীরা ওই রাতে আমাকে বাসায় না পেয়ে আমার বসতঘরে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ ও লুটপাট চালায়। তারা আমার ঘরে থাকা নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার লুট করে নিয়ে যায় এবং যাবার সময় খুন করার হুমকি দেয়। তাদের তাণ্ডবে অনুমান ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি সাধন হয়। ওই দিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে কালিগাছতলা এলাকায় রাস্তায় একা পেয়ে আমার গতিরোধ করে আমার উপর আক্রমন চালায়। এ সময় তনু দাস নামের ওই সন্ত্রাসী আমার বুকে পিস্তল ঠেকিয়ে তার দাবিকৃত ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। আমি গরীব ও নিরীহ মানুষ। সন্ত্রাসীদের চাঁদার টাকা দিতে পারবো না বলে জানালে তারা লোহার রড, রামদাসহ দেশীয় অস্ত্রদ্বারা আমাকে বেধড়ক মারধোর করতে থাকে।
সেদিন সন্ত্রাসীদের এমন তাণ্ডবে আমার প্রতিবেশীসহ আশপাশের বাসিন্দারা এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা তাদের উপরও হামলা চালায়। এ সময় পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে এবং এক ভীতিকর পরিবেশ তৈরি হয়। তখন কালিগাছতলা এলাকার লোকজন চিৎকার চেচামেচি শুরু করলে তনু দাস নামের ওই সন্ত্রাসী তার সাথে থাকা পিস্তল বের করে আগত লোকজনকে ভয় দেখায়।
এ সময় জেলা যুবলীগ সভাপতি আতাউর রহমান সেলিম সাহেবের ছোট ভাই সাইদুর রহমানসহ স্থানীয় জনতা এগিয়ে এলে সন্ত্রাসীরা তাদের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসী সুশান্ত গুপ্তের নেতৃত্বে তনু দাস তার পিস্তল দিয়ে ফাঁকা গুলি ছুড়তে ছুড়তে পালিয়ে যায়।
এ সময় স্থানীয় জনতা ধাওয়া দিয়ে বানিয়াচং উপজেলার সুনারু গ্রামের মৃত সতীন্দ্র দাসের পুত্র হরি দাস (২৮) ও সদর উপজেলার রায়পুর গ্রামের দীনেস দাসের পুত্র পিন্টু দাস (৩২) নামের দুই সন্ত্রাসীকে আটক করে। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার এসআই রবিউল আলমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমি মামলা দায়ের করেছি। কিন্তু অদ্যাবদি পুলিশ তাদের কাছ থেকে অস্ত্র উদ্ধার করতে পারেনি। ঘটনার ৮ দিন অতিবাহিত হলেও শিশুরা ঘর থেকে বের হচ্ছেনা বলে প্রহলাদ দাস দাবি করেন। তিনি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com