বৃহস্পতিবার, ০৪ Jun ২০২০, ০৭:৩৭ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ র‌্যালী ॥ ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ায় আনন্দ শোভাযাত্রা

জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্মরণকালের সর্ববৃহৎ র‌্যালী ॥ ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ায় আনন্দ শোভাযাত্রা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেস্কোর “মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল” রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভূক্তির মাধ্যমে “বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যের” স্বীকৃতি লাভ করায় সারাদেশে ন্যায় হবিগঞ্জবাসী যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করেছে। অনুষ্ঠানসূচির মধ্যে ছিল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পন, আনন্দ শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরষ্কার বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এইসব অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
গতকাল শনিবার সকাল ৯টা থেকে ব্যানার, প্লেকার্ড ও ফেষ্টুন হাতে সবগুলো সরকারী দপ্তর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন দলে দলে কালেক্টরেট প্রাঙ্গণ নিমতলায় আসতে শুরু করে। এক পর্যায়ে লোকে লোকারণ্য হয়ে যায় নিমতলাসহ আশপাশের পুরো এলাকা। অবশ্য এর আগের দিনই সরকারী দপ্তর ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যক্তিদের সাথে আলোচনা করে কার অবস্থান কোথায় হবে এর স্থান নির্ধারণ করে দেয় প্রশাসন। সে অনুযায়ী পুরাতন হাসপাতাল থেকে শুরু করে নিমতলা ও সার্কিট হাউজ পর্যন্ত যে যার নির্ধারিত স্থানে অবস্থান নেয়। এসব মনিটরিং করার জন্য জেলা প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা নিয়োজিত ছিলেন। ঘড়ির কাটা দশটার ঘরে পৌছার সাথে সাথে শোভাযাত্রার যাত্রা শুরু হয়। এই শোভাযাত্রায় পুরো শহর লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। এইভাবে শহর প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় নিমতলায় গিয়ে শোভাযাত্রা শেষ হয়। শহরবাসী বলেছেন এটি স্মরণকালের সর্ববৃহৎ র‌্যালী। হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অক্লান্ত পরিশ্রমে সুষ্ঠু ও সুশৃঙ্খলভাবে শতভাগ সফল হয়েছে বলে মনে করছেন অভিজ্ঞ মহল।
র‌্যালীতে নারী সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মনীষ চাকমা, পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা, স্থানীয় সরকারের উপ-পরিচালক সফিউল আলম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফজলুল জাহিদ পাবেল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসম শামসুর রহমান ভূঁইয়া, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তারেক মোঃ জাকারিয়া, জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কুদ্দুছ আলী সরকার, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলী পাঠান, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি চৌধুরী মোহাম্মদ ফরিয়াদ, জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান তালুকদার, জেলা ্আনসার বিডিপি’র কমান্ডার মোঃ সাইফুল্লাহ রাসেল পিএএম, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক অনুপ কুমার দেব মনা, অ্যাডভোকেট আবুল ফজল, অ্যাডভোকেট নিলান্দ্রী শেখর টিটু, জেলা পরিষদ প্যানেল চেয়ারম্যান নুরুল আমিন ওসমান, জেলা পরিষদের সদস্য অ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, জনকন্ঠের জেলা প্রতিনিধি রফিকুল হাসান চৌধুরী তুহিন, সিবিএ নেতা শাহ জয়নাল আবেদীন রাসেল, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের আহ্বায়ক গউছ উদ্দিন চৌধুরী, সদস্য সচিব পংকজ কান্তি দাশসহ প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, বীরমুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, সুশীল সমাজ, বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অংশগণ করেন। এর আগে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। র‌্যালী শেষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
এছাড়া বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের উপর ৩টি গ্র“পে রচনা ও কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।  সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমীতে সাংকৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com