সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স অনুষ্ঠিত ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি’র নির্বাচন ॥ শামছুল হুদা-আলমগীর প্যানেলের নিঙ্কুশ বিজয় নবীগঞ্জের ঘোলডোবা এম সি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি বিলুপ্ত মাধবপুরে দোকান থেকে ১১ বস্তা ভিজিডির চাল জব্দ যুক্তরাষ্ট্রে জ্বালানি ব্যবহারে গ্যাসের ভূমিকা শীর্ষক কনফারেন্সে এমপি আবু জাহির শহরের পুরাতন খোয়াই নদীতে ২৫০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ সামাজিক সংগঠন ‘বন্ধু মেলা’ এর আহ্বায়ক কমিটি গঠন মাধবপুরে দু’মাদক পাচারকারীকে ভ্রাম্যমান আদালতের কারাদন্ড অসাধু বিদ্যুৎ কর্মচারীদের সহযোগিতায় শহরের অর্ধশতাধিক অবৈধ টমটম গ্যারেজ নবীগঞ্জে বিয়ের প্রস্তাবে সম্মতি না দেয়ায় দুই বোনকে পিঠিয়ে আহত
বানিয়াচঙ্গে প্রেমিকের লালসার শিকার সাবিনার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় ॥ দায়ের করা মামলাটি ডিবিতে স্থানান্তর

বানিয়াচঙ্গে প্রেমিকের লালসার শিকার সাবিনার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় ॥ দায়ের করা মামলাটি ডিবিতে স্থানান্তর

মখলিছ মিয়া, বানিয়াচং থেকে ॥ বানিয়াচঙ্গে প্রেমিকের লালসার শিকার অন্তসত্ত্বা কুমারী তরুণী সাবিনার রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলাটি তদন্তের জন্য ডিবিতে স্থানান্তর করা হয়েছে। মামলাটি স্পর্শকাতর হওয়ায় ২৫ আগস্ট গোয়েন্দা বিভাগে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে বানিয়াচং থানার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফিরোজ জানিয়েছেন।
বানিয়াচং উপজেলার কাগাপাশা ইউনিয়নের লোহাজুড়ী গ্রামের দিনমজুর চান মিয়া ওরফে নিবরসা মিয়ার কন্যা সাবিনা (২০) গত ১৭ জুলাই রহস্যজনকভাবে মারা যান। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় শুরু হয়। এ ব্যাপারে সাবিনার পিতা চান মিয়া বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, সাবিনার সাথে একই গ্রামের নান্দু খান এর ছেলে ঝুম্মন (২৩) এর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে বিয়ের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে এরা দৈহিক মেলামেশা শুরু করে। এতে সাবিনা অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়ে। ৫ মাস অতিবাহিত হবার পর অন্তসত্ত্বার বিষয়টি পরিবারের নজরে আসে। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে প্রেমিক ঝুম্মন ও তার (ঝুম্মনের) পরিবারের লোকজন গর্ভ নষ্ট করার জন্য সাবিনাকে বলে দেয়। সাবিনা এতে রাজি হয়নি। এক পর্যায়ে সাবিনাকে গর্ভ নষ্ট করার জন্য চাপ সৃষ্টি করে ঝুম্মন। অন্যথায় বিয়ে করবে না বলে সাবিনাকে হুমকি দেয়। শেষ পর্যন্ত ঝুম্মনের মা ও চাচী বিগত ঈদুল ফিতরের পরপরই সাবিনাকে হবিগঞ্জ জেলা সদরে নিয়ে এসে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে গর্ভ নষ্ট করায়। পরবর্তীতে ঘটনা নিয়ে গত ১৩ জুলাই লোহাজুড়ী গ্রামে এক সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হয়। উক্ত সালিশ বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ওই গ্রামের সর্দার নজরুল ইসলাম খান। গ্রাম্য পঞ্চায়েতে তরুণীর ইজ্জতের মূল্য ৬০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু সাবিনা বিয়ে ছাড়া টাকার বিনিময়ে ঘটনাটি শেষ করতে রাজি হয়নি। এরই মধ্যে সালিসের ৩ দিন পর ১৭ জুলাই সাবিনার রহস্যজনক মৃত্যু হয়। এতে জনমনে প্রশ্ন জাগে সে আত্মহত্যা করেছে না-কি তাকে হত্যা করা হয়েছে। তার পরিবার দাবি করছে তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।
হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ বজলুর রহমান জানান, সাবিনার মাথা ও গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে, শরীরও ফুলা।
এ ব্যাপারে সাবিনার পিতা বাদী হয়ে ঝুম্মন এবং সালিসের সভাপতি নজরুল ইসলামসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। মামলায় ঝুম্মনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। সে এখনো জেল হাজতে রয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2013-2019 HabiganjExpress.Com
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com